বাংলা নিউজ > ময়দান > ISL-এর প্রথম ডার্বির আগে একনজরে মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গলের কিছু স্মরনীয় ম্যাচ

শুভব্রত মুখার্জি

শুক্রবার গোয়ার বুকে প্রথম আইএসএল ডার্বিতে মুখোমুখি হবে এটিকে-মোহনবাগান এবং এসসি ইস্টবেঙ্গল। এশিয়ার প্রাচীনতম ডার্বি ঘিরে স্বাভাবিকভাবেই চড়েছে প্রত্যাশার পারদ।

ইস্টবেঙ্গল এবং মোহনবাগান এবার আই লিগের মঞ্চ ছেড়ে পৌঁছে গেছে আইএসএলে। দেশের মূল ফুটবল লিগে প্রথম ডার্বি অনুষ্ঠিত চলেছে শুক্রবার। কাকতালীয় হলেও বছরটা ডার্বির শতবর্ষ। বিগত ১০০ বছরে একাধিক স্মরণীয় ডার্বির সাক্ষী থেকেছে কলকাতা সহ দেশের অন্যান্য শহর। তার মধ্যে থেকে আমরা সাম্প্রতিক অতীতের কয়েকটি ম্যাচ দেখে নেওয়ার চেষ্টা করব একনজরে।

∆ আইএফএ শিল্ড ফাইনাল ১৯৬৯ :-

মোহনবাগান-৩, ইস্টবেঙ্গল-১

ডায়মন্ড কোচ হিসেবে খ্যাত প্রয়াত অমল দত্তর কোচিংয়ে সেবার শিল্ডের ফাইনালে ইস্টবেঙ্গলকে ৩-১ গোলে হারিয়ে ১১তম আইএফএ শিল্ড জিতেছিল মোহনবাগান। ম্যাচের ৩০ মিনিটের মধ্যে ৩-০ গোলে এগিয়ে গিয়েছিল সবুজ-মেরুন ব্রিগেড।ম্যাচে জোড়া গোল করেছিলেন প্রণব গঙ্গোপাধ্যায়, একটি গোল করেছিলেন সুকল্যাণ ঘোষ দস্তিদার। ইস্টবেঙ্গলের হয়ে একটি মাত্র গোল ছিল পিটার থঙ্গরাজের।

∆ আইএফএ শিল্ড ফাইনাল ১৯৭৫ :-

ইস্টবেঙ্গল-৫, মোহনবাগান-০

৫-০ ব্যবধানে লজ্জাজনক হারের নজিরটা এই দশকেই গড়েছিল মোহনবাগান। ১৯৭৫ আইএফএ শিল্ড ফাইনালে মোহনবাগানকে ৫-০ গোলে হারিয়ে ১৪ বারের জন্য খেতাব জিতেছিল ইস্টবেঙ্গল। দু’টি গোল করেছিলেন শ্যাম থাপা। সুরজিৎ সেনগুপ্ত, রঞ্জিত মুখোপাধ্যায়, শুভঙ্কর সান্যাল একটি করে গোল করেছিলেন।

∆ ফেডারেশন কাপ সেমিফাইনাল ১৯৯৭ :-

ইস্টবেঙ্গল-৪, মোহনবাগান-১

১৯৯৭ সালের ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগানের ম্যাচ এক অভিনব কারনে চিরস্মরনীয় হয়ে রয়েছে। দেশের ফুটবল ইতিহাসে সর্বাধিক ১ লক্ষ ৩১ হাজার দর্শক সেদিন ভিড় করেছিল সল্টলেক স্টেডিয়ামে। নাজিম-উল-হকের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল ইস্টবেঙ্গল। কলকাতা ডার্বির ইতিহাসে প্রথম ফুটবলার হিসেবে হ্যাটট্রিক করেছিলেন বাইচুং। বাগানের হয়ে একটি গোল করেছিলেন চিমা ওকোরি।

∆ আই লিগ ২০০৯:-

মোহনবাগান-৫, ইস্টবেঙ্গল-৩

১৯৭৫ সালের পাঁচ গোলের প্রতিশোধ সেদিন সম্পন্ন করেছিল সবুজ-মেরুন ব্রিগেড। সবুজ-মেরুন জার্সিতে সেদিন একাই ৪ গোল করেছিলেন নাইজিরিয়ান স্ট্রাইকার চিডি। নির্মল ছেত্রীর গোলে সেদিন ম্যাচে প্রথমে লিড নিয়েছিল ইস্টবেঙ্গল।মনীশ মাথানির দূরপাল্লার শট এবং চিডির জোড়া গোলে বিরতিতে যাওয়ার আগেই ৩-১ গোলে লিড নেয় মোহনবাগান। পরে আর ফিরে তাকাতে হয়নি।ইস্টবেঙ্গলের হয়ে বিরতির পর দু’টি গোল করেন ইউসুফ ইয়াকুবু।

বন্ধ করুন