বাংলা নিউজ > ময়দান > ২০ ম্যাচ পরে থামল নাদালের বিজয়রথ, পরাজিত উঠতি আমেরিকান তারকার কাছে
নাদালকে হারিয়ে উচ্ছ্বসিত ফ্রিটজ। ছবি: পিটিআই

২০ ম্যাচ পরে থামল নাদালের বিজয়রথ, পরাজিত উঠতি আমেরিকান তারকার কাছে

  • ২০০১ সালে আন্দ্রে আগাসি ইন্ডিয়ান ওয়েলসে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন। এর ২১ বছর পর দ্বিতীয় আমেরিকান হিসেবে এই টুর্নামেন্ট জিতলেন ফ্রিটজ। তাও আবার নাদালকে হারিয়ে।

জেতাটা যেন অভ্যেসই করে ফেলেছিলেন রাফায়েল নাদাল। টানা ২০ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর ২১তম ম্যাচে এসে ধাক্কা খেলেন রাফা। তাও আমেরিকার উঠতি তারকার কাছে। ইন্ডিয়ান ওয়েলসের ফাইনালে অপ্রতিরোধ্য নাদালকে একেবারে স্ট্রেট সেটে ৬-৩, ৭-৬ (৭-৫)-এ কার্যত উড়িয়ে দিলেন টেলর ফ্রিটজ।

প্রথম সেটে সে ভাবে কোনও প্রতিরোধই গড়ে তুলতে পারেননি নাদাল। একেবারে উড়ে যান স্প্যানিশ সুপারস্টার। দ্বিতীয় সেটে অবশ্য লড়াই করেছিলেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। ম্যাচ চলাকালীন অবশ্য চিকিৎসা নিতে দেখা গিয়েছিল সর্বোচ্চ ২১ গ্র্যান্ডস্লাম জয়ী তারকাকে। এর থেকেই পরিষ্কার তাঁর চোট রয়েছে। সেই চোট নিয়েই তিনি লড়াই করে যান।

ম্যাচের পর নাদাল স্বীকারও করে নেন, ‘আমি গত সপ্তাহ থেকেই চোটের জেরে ভুগছিলাম। তবু নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আজ আমার পক্ষে আর সম্ভব হয়নি। তবুও শেষ পর্যন্ত আমি লড়াই চালিয়ে গিয়েছি।’

ইন্ডিয়ান ওয়েলসের ফাইনালে নিজের ছেলেবেলার হিরোকে হারাতে পেরে ভীষণই উচ্ছ্বসিত ২৪ বছরের ফ্রিটজ। ২০০১ সালে আন্দ্রে আগাসির ২১ বছর পর দ্বিতীয় আমেরিকান হিসেবে ইন্ডিয়ান ওয়েলস জিতে ফ্রিটজ বলেন, ‘এটা আমার একেবারে ছেলেবেলার স্বপ্ন ছিল। নাদালকে হারাবা। কিন্তু সেই স্বপ্ন যে সত্যি হবে, তা আমি কল্পনাও করতে পারিনি।’

অস্ট্রেলিয়ান ওপেন দিয়ে এই মরশুম শুরু করেছিলেন রাফা। দীর্ঘ দিন পর মেলবোর্ন পার্কে আবার চ্যাম্পিয়নও হয়েছিলেন। পাশাপাশি বছরের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম জেতার সঙ্গে সঙ্গেই ছেলেদের টেনিসে প্রথম কোনও প্লেয়ার হিসেবে ২১তম গ্র্যান্ড স্লাম জেতার রেকর্ডও গড়ে ফেলেছিলেনন স্প্যানিশ টেনিস স্টার। চোট সারিয়ে কোর্টে ফিরে রাফা রীতিমতো নাস্তানাবুদ করে চলেছিলেন প্রতিপক্ষদের। অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছিলেন তিনি। টানা ২০টি ম্যাচে জেতার পর রাফার বিজয় রথ থামালেন ফ্রিটজ।

বন্ধ করুন