বাড়ি > ময়দান > চ্যাপেলের চুক্তিপত্রে টিম ইন্ডিয়ার কোচ নির্বাচিত হয়েছিলেন কার্স্টেন
গ্যারি কার্স্টেন। ছবি- রয়টার্স।
গ্যারি কার্স্টেন। ছবি- রয়টার্স।

চ্যাপেলের চুক্তিপত্রে টিম ইন্ডিয়ার কোচ নির্বাচিত হয়েছিলেন কার্স্টেন

  • কাকতলীয়ভাবেই ভারতের কোচ হওয়ার অভিজ্ঞতার কথা শোনালেন গ্যারি।

ভারতের কোচ হওয়ার জন্য আবেদন করেননি গ্যারি কার্স্টেন। সুনীল গাভাসকরের ই-মেল পেয়ে ইন্টারভিউ দিতে আসেন টিম ইন্ডিয়ার হেড কোচের পদে। কখনও কোথাও কোচিং করাননি। স্বাভাবিকভাবেই কোচ নির্বাচনের ইন্টারভিউয়ের জন্য কীভাবে প্রস্তুতি নিয়ে হয়, সেটাও জানা ছিল না কার্স্টেনের।

নিতান্ত অপ্রস্তুত অবস্থায় হাই প্রোফাইল চাকরির ইন্টারভিউ বোর্ডে ঢুকে পড়েন প্রাক্তন প্রোটিয়া তারকা। গোটা ইন্টারভিউ পর্বটাই ছিল অত্যন্ত মজাদার। তবে ৭ মিনিটের ইন্টারভিউয়ের শেষে যেটা ঘটেছিল, তা আরও হাস্যকর। ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী কোচ নিজেই শোনালেন সেই মজাদার গল্প।

আসলে ইন্টারভিউয়ে চাকরি নিশ্চিত হওয়ার পর কার্স্টেনের দিকে যে চুক্তিপত্র বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল সই করার জন্য, সেটা ছিল আগের কোচ গ্রেগ চ্যাপেলের। তাতে কোথাও কার্স্টেনের নামই ছিল না।

কার্স্টেন জানান, ইন্টারভিউয়ে তাঁকে বিসিসিআই সচিব প্রেজেন্টেশন দেওয়ার কথা বলেন, যার জন্য তিনি প্রস্তুত ছিলেন না। গ্যারি স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, তিনি সঙ্গে কিছুই নিয়ে আসেননি। কারণ, তাঁকে কেউ প্রেজেন্টেশনের সম্পর্কে কিছুই জানাননি এবং তিনি প্রস্তুত হয়েও আসেননি ইন্টারভিউয়ের জন্য। শেষে রবি শাস্ত্রী কার্স্টেনের কাছে জানতে চান, ভারতকে হারানোর জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে খেলার সময় কী করতেন। এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া অবশ্য কঠিন ছিল না প্রোটিয়া তারকার পক্ষে। মিনিট তিনেক সেই বিষয়ে টানা কথা বলেন গ্যারি এবং সব মিলিয়ে মিনিট সাতেক পর বোর্ড সচিব তাঁর দিকে চুক্তিপত্র বাড়িয়ে দেন সই করার জন্য।

কোচ হওয়ার এমন প্রক্রিয়ায় মজার শেষ ছিল না। কারণ, চুক্তিপত্র নিয়েও অদ্ভূত অভিজ্ঞতা হয় কার্স্টেনের। তাঁর দিকে যে চুক্তিপত্র বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল, সেটা ছিল আগের কোচ গ্রেগ চ্যাপেলের নামে। নিজের নাম না খুঁজে পেয়ে গ্যারি সেটি পুনরায় বিসিসিআই সচিবের দিকে ঠেলে দেন এবং বলেন, 'এটা বোধহয় আপনাদের আগের কোচের চুক্তিপত্র।'

একটু বিচলিত হয়ে বিসিসিআই সচিব পকেট থেকে পেন বার করেন এবং চ্যাপেলের নাম কেটে পাশে লিখে দেন কার্স্টেনের নাম। এভাবেই মাত্র ৭ মিনিটে অদ্ভূদ সব কাণ্ডের পর টিম ইন্ডিয়ার হে়ড কোচ নিযুক্ত হন কার্স্টেন।

পরের গল্পটা ভারতীয় ক্রিকেটের লোকগাথায় চিরকালীন জায়গা করে নিয়েছে। কোচিংয়ের কোনও অভিজ্ঞতা ছাড়াই গ্যারি ভারতীয় দলকে সাফল্যের শীর্ষে নিয়ে যান। টিম ইন্ডিয়াকে এক নম্বর টেস্ট দল বানানো ছাড়াও ২০১১ সালে ধোনিদের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করেন তিনি।

বন্ধ করুন