বাংলা নিউজ > ময়দান > নিজেকে সত্যিই ইন্ডিয়া ক্যাপ্টেন মনে হচ্ছে- কীসের ইঙ্গিত দিলেন হার্দিক?

নিজেকে সত্যিই ইন্ডিয়া ক্যাপ্টেন মনে হচ্ছে- কীসের ইঙ্গিত দিলেন হার্দিক?

খেলা চলাকালীন পায়ে টান ধরে হার্দিকের।

প্রথম টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে হার্দিক বলে পরিষ্কার দেন, ‘এখন বলতে পারি, ক্যাপ্টেন ডাকটা বেশ ভালো লাগছে। নিজেকে সত্যিই ইন্ডিয়া ক্যাপ্টেন মনে হচ্ছে।’

হার্দিক পাণ্ডিয়ার কি ফের চোট লেগেছে? মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচেই হার্দিককে কিছুটা অস্বস্তিতে মনে হয়। ফিল্ডিং করার সময়ে পায়ে লেগেছিল বলে মনে হয়। কিন্তু ম্যাচের পরে সকলকে চিন্তামুক্ত করে অধিনায়ক বলে দেন, ‘যতক্ষণ আমার মুখে হাসি লেগে রয়েছে, জানবেন সব কিছু নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে মাত্র ২ রানে হারালেও, তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ভারত ১-০ লিড নিয়েছে। আর টানটান উত্তেজনার ম্যাচ জয়ের পর হাসিমুখে হার্দিক বলেন, ‘সবাইকে ভয় পাইয়ে দেওয়াটা দেখছি আমার স্বভাব হয়ে গিয়েছে। আসলে আমার কিছুই হয়নি। কাল রাত্রে ঘুম হয়নি ঠিক মতো। জল কম খাওয়া হয়েছে। তাই হয়তো একটু টান ধরেছিল।’

হার্দিকের উত্তরের প্রসঙ্গ ধরেই তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, দায়িত্ব সামলাতে হবে ভেবে ঘুম হয়নি তাঁর?হার্দিক পরিষ্কার বলে দেন, ‘এখন বলতে পারি, ক্যাপ্টেন ডাকটা বেশ ভালো লাগছে। নিজেকে সত্যিই ইন্ডিয়া ক্যাপ্টেন মনে হচ্ছে।’ এই কথার মাধ্যমেই কি হার্দিক বুঝিয়ে দিতে চাইলেন, তিনিই রোহিতের উত্তরসূরী? এই নিয়ে কিন্তু চর্চাও শুরু হয়েছে।

আরও পড়ুন: T20I অভিষেকেই ৪ উইকেট নিয়ে রেকর্ড GT তারকার, মাভির আগুনে খাঁক লঙ্কা

এ দিকে এ দিন শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে অভিষেক ম্যাচে ৪ ওভারে ২২ রানে চার উইকেট নিয়ে সকলকে চমকে দিয়েছেন শিবম মাভি। তবে কিছু খারাপ বল করে যখন তিনি বেশি রান দিচ্ছিলেন, তখন তাঁকে পরামর্শ দেন হার্দিক। আর সেই পরামর্শ শুনেউ বাজিমাত করেন শিবম মাভি।

মাভিকে কী পরামর্শ দিয়েছিলেন, নিজেই জানিয়েছেন হার্দিক। বলেছেন, ‘ওকে আইপিএলের সময় থেকে দেখছি। বেশ ভালো বল করেছে আইপিএলে। জানি ও কী করতে পারে। তাই ওকে বলে দিয়েছিলাম, নিজের ক্ষমতা অনুযায়ী বল করে যেতে। বুঝিয়ে দিয়েছিলাম, যদি মার খেয়ে যায়, তবু ওর সঙ্গে আছি।’ অধিনায়কের এই ভরসাতেই আত্মবিশ্বাস ফিরে পান শিবম মাভি। এবং ভালো বল করে নজর কাড়েন তিনি।

মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামে ভারত। কিন্তু শুরু থেকেই টিম ইন্ডিয়ার ব্য়াটিং বিপর্যের ধারা চলে। ৪৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসেছিল ভারত। এর পরেও পড়ে আরও ২ উইকেট।

আরও পড়ুন: কিপার না বাজপাখি! ইশানের ছোঁ মেরে নেওয়া ক্যাচ দেখে হতবাক সকলে- ভিডিয়ো

তবে দীপক হুডার অপরাজিত ৪১ (২৩ বলে) এবং অক্ষর প্যাটেলের ২০ বলে অপরাজিত ৩১ রান ভারতকে ১৫০ রানের গণ্ডি পার করিয়ে দেয়। এ ছাড়া ওপেন করতে নেমে ইশান কিষাণ ৩৭ (২৯ বল) করেছিলেন। আর হার্দিক পাণ্ডিয়া ২৯ (২৭ বল) করেন। এর বাইরে বাকিরা কেউ দুই অঙ্কের ঘরেই পৌঁছতে পারেনি। নির্দিষ্ট ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ভারত করে ১৬২ রান।

শ্রীলঙ্কার দিলসন মাদুশঙ্কা, মহেশ থিকসানা, চামিকা করুণারত্নে, ধনঞ্জয় ডি'সিলভা, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা ১টি করে উইকেট নিয়েছেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কাও শুরু থেকে একের পর এক উইকেট হারাতে থাকে। ৫১ রানে তারা চার উইকেট হারিয়ে বসেছিল। চরিথ আশালঙ্কা তৃতীয় ব্যাটার হিসেবে সাজঘরে ফেরেন। তবে অধিনায়ক দাসুন শনাকার ২৭ বলে ৪৫ লঙ্কাকে লড়াইয়ে ফেরায়। এ ছাড়া চামিকা করুণারত্নে ১৬ বলে ২৩ রান করে অপরাজিত থাকেন। হাসারঙ্গা ১০ বলে ঝড়ো ২১ রান করেন। যার ফলে জেতার মতো জায়গায় পৌঁছে গিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। ওপেন করতে নেমে কুশল মেন্ডিসও ২৮ করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ২ রানে তারা হেরে যায়। ২০ ওভারে শ্রীলঙ্কা ১৬০ রান করে।

ভারতের শিবম মাভির ৪ উইকেট ছাড়াও উমরান মালিক এবং হর্ষাল প্যাটেল ২টি করে উইকেট নিয়েছেন।

বন্ধ করুন