বাংলা নিউজ > ময়দান > ১৮ মাসের লক্ষ্যমাত্রায় স্থির করেছি ভারতীয় সিনিয়র ক্রিকেট দলে খেলার: যশ ধুল
যশ ধুল। ফাইল ছবি

১৮ মাসের লক্ষ্যমাত্রায় স্থির করেছি ভারতীয় সিনিয়র ক্রিকেট দলে খেলার: যশ ধুল

  • এক সাক্ষাৎকারে জানিয়ে দিলেন নিজের সামনে তিনি ১৮ মাসের লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছেন ভারতীয় সিনিয়র দলের হয়ে খেলার বিষয়ে

শুভব্রত মুখার্জি: সদ্য শেষ হওয়া অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে দিল্লির তরুণ প্রতিভা যশ ধুলের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দল চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে। স্বয়ং অধিনায়ক ধুল ব্যাট হাতে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। টুর্নামেন্টের মাঝপথে করোনা আক্রান্ত হয়ার ফলে কয়েকটা ম্যাচে তিনি খেলতে পারেননি। সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এক অসাধারণ শতরানের ইনিংস খেলে তিনি দলের জয়ের রাস্তা সুগম করেছিলেন। সেই ধুল সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে জানিয়ে দিলেন নিজের সামনে তিনি ১৮ মাসের লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছেন ভারতীয় সিনিয়র দলের হয়ে খেলার বিষয়ে।

গত ৪৮ ঘণ্টায় যে কতবার ধুলকে বিমান যাত্রা করতে হয়েছে তা হয়ত ভুলেছেন তিনিও। ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জ থেকে চারটি বিমান বদল করে তাদের এসে পৌঁছতে হয়েছে ভারতে। তারপর আমদাবাদে গোটা দলের সাথে সংবর্ধিত হয়েছেন তিনি। এরপর দিল্লিতে এসে মাত্র ৩০ মিনিট তিনি পরিবারের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পেয়েছেন। পরবর্তীতে তিনি এসে উপস্থিত হন পশ্চিম দিল্লির বালভবনে যেখানের মানুষদের পরামর্শে, সহায়তায় তিনি আজকে এই জায়গাতে পৌঁছতে পেরেছেন। এর ঠিক দু'ঘণ্টা পরেই তাকে ফের গুয়াহাটির বিমান ধরতে হয়েছে। কারণ সেখানেই দিল্লির হয়ে রঞ্জি অভিষেক হবে তার।

এমন আবহে সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন 'শেষ কয়েকদিনে আমি খুব কম ঘুমনোর সুযোগ পেয়েছি। তবে সেই বিষয়টি নিয়ে আমি কোন অভিযোগ করছি না। আমার লক্ষ্য ভবিষ্যত টার্গেটের প্রতি। আমার লক্ষ্য আগামী ১৮ মাসের মধ্যে ভারতের সিনিয়র দলের হয়ে খেলা। তবে তা যদি কোন কারণে সম্ভব না হয় তাহলেও আমি কঠোর পরিশ্রম চালিয়ে যাব যতক্ষণ না পর্যন্ত আমি আমার লক্ষ্যে পৌঁছতে পারি।'

অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দিল্লির অপর দুই অধিনায়ক কোহলির ক্যারিয়ার যখন একদিকে ধুলকে অনুপ্রেরণা জোগায় তখন উন্মুক্ত চাঁদের ক্যারিয়ার তাকে সতর্কও করে দেয় সম্ভাব্য ব্যর্থতার বিষয়ে। ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের সাফল্যের পরে কি ধুলের মনে ব্যর্থতার কোন ভয় রয়েছে? প্রশ্নের উত্তরে ধুল জানিয়েছেন 'যাদের নাম আপনি নিয়েছেন (কোহলি, চাঁদ) তাদের লাইনে আমি এখুনি ভাবছি না। আমি ভবিষ্যত নিয়ে বেশি ভাবতে রাজি না। ২০০৮ অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের খেতাব জয়ের পরে কি হয়েছিল সেই অভিজ্ঞতা বিরাট ভাই আমার সঙ্গে শেয়ার করেছে। এই আলাপচারিতায় কোনও কোনও বিষয়ে আমাকে ফোকাস করতে হবে সেই বিষয়টা আমার কাছে স্পষ্ট হয়েছে।'

লাল বলের ক্রিকেট খেলা প্রসঙ্গে ধুল জানিয়েছেন 'লাল বলের ক্রিকেটের জন্য আমাকে আমার মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। প্রস্তুতিও ভিন্ন হবে। তবে আমি মনে করিনা সাদা বলের ক্রিকেটের থেকে এটা খুব বেশি আলাদা এবং কঠিন হবে। প্রথম দিকে লাল বল সুইং করে। সেই সময়টা দেখে খেলতে পারলে ব্যাটিং পরবর্তীতে সহজ হবে। সমস্ত শটের উপর আমাকে কাজ করতে হবে একজন ভাল ব্যাটার হতে গেলে।'

করোনা আক্রান্ত হওয়ার সময় নিয়ে তিনি জানিয়েছেন 'সময়টা খুব হতাশাজনক ছিল। নিভৃতবাসের প্রথম দু'দিন খুব কষ্টকর ছিল। তারপর নিজের হোটেল রুমেই প্রস্তুতি শুরু করি। মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলাম। শেষ কয়েক বছর ধরে আমি এই টুর্নামেন্টের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করেছি। এক সপ্তাহ অনুশীলন না করলে আমি নিজের খেলাটা ভুলে যাব না। নিজের খেলা এবং ক্ষমতার প্রতি সেই বিশ্বাসটা আমার ছিল।'

বন্ধ করুন