বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘কোনও ভুল করিনি’, টিকিট বিশৃঙ্খলায় পুলিশের অভিযোগ নস্যাৎ আজহারদের
টিকিট বিশৃঙ্খলায় পুলিশের অভিযোগ নস্যাৎ আজহারদের

‘কোনও ভুল করিনি’, টিকিট বিশৃঙ্খলায় পুলিশের অভিযোগ নস্যাৎ আজহারদের

  • এক সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই দাবি করেছেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন। ক্রীড়ামন্ত্রী ভি শ্রীনিবাস গৌড়ের তরফে হায়দরাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের কাছ থেকে বিষয়টি নিয়ে ব্যাখ্যাও চাওয়া হয়েছে।

শুভব্রত মুখার্জি: ঘরের মাটিতে ভারতীয় সিনিয়র দলের ক্রিকেট ম্যাচ মানেই সবসময় থাকে আলাদা উন্মাদনা। সেই ম্যাচের টিকিট ঘিরে যে উত্তেজনা থাকবে তা খুব স্বাভাবিক। হায়দরাবাদের জিমখানা স্টেডিয়ামের বাইরে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়ার তৃতীয় টি-২০ ম্যাচের টিকিট সংগ্রহ করতে গিয়ে পদপিষ্ট হন একাধিক মানুষ। সেই ঘটনা নিয়েই মুখ খুলেছেন হায়দরাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহম্মদ আজহারউদ্দিন। তবে এতকিছুর পরেও টিকিট বিলি নিয়ে অব্যবস্থা মানতে নারাজ এইচসিএ প্রেসিডেন্ট মহম্মদ আজহারউদ্দিন।

এক সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই দাবি করেছেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন। ক্রীড়ামন্ত্রী ভি শ্রীনিবাস গৌড়ের তরফে হায়দরাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের কাছ থেকে বিষয়টি নিয়ে ব্যাখ্যাও চাওয়া হয়েছে। মহম্মদ আজহারউদ্দিন জানিয়েছেন 'আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন করা মোটেও সহজ কাজ নয়। এই ঘরে বসে আলোচনা করার মতন সহজ ব্যাপার তো একেবারেই নয়। আমরা কোনও ভুল করিনি। সকালের ঘটনায় যে সমস্ত মানুষ আঘাত পেয়েছে আমরা তাদের পাশে রয়েছি। এইচসিএ ওই আহতদের সমস্ত রকম সহায়তা করতে। আমি টিকিট বিক্রির বিষয়ে সমস্ত রিপোর্ট পেশ করব। আর কত টিকিট রয়েছে এবং সমস্ত তথ্য আমরা মন্ত্রীর হাতে তুলে দেব। তারপরে উনিই আপনাদের জানাবেন কোনটা ঠিক আর কোনটা ঠিক নয়।'

প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক আরও যোগ করেন 'সমস্যা হবেই। জনসাধারণ ম্যাচ দেখার জন্য মুখিয়ে থাকেন। তিন বছর পরে ম্যাচ হচ্ছে ফলে খেলা দেখতে সকলে মুখিয়ে থাকে। আমরা মিডিয়াকে বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত জানাবো। আমাদের কিছু লোকানোর নেই। তবে আমাদের এটাও নিশ্চিত করতে হবে যাতে করে ম্যাচটা সময় মতো আয়োজন করা যায়। সুপ্রিম কোর্টের কোনও নির্দেশ নেই যা আমার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করছে।'

প্রসঙ্গত ৩০০০ টিকিট বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল এইচসিএ। সেই টিকিট কিনতে লাইনে দাঁড়িয়েছিল ৩০০০০ মানুষ। ফলে দেখা দেয় চরম অব্যবস্থা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার বদলে আরও বিগড়ে যায়। অনেকের পদপিষ্টের মতো অবস্থা তৈরি হয়েছিল। একাধিক মানুষ। ২০ জন গুরুতর আহত হন। সোশ্যাল মিডিয়াতে ঘটনার বেশ কিছু ভিডিয়ো ছড়িয়ে পড়ে। যদিও পুলিশ রাজ্য সংস্থার উপর দোষ চাপিয়েছে।

বন্ধ করুন