বাংলা নিউজ > ময়দান > কলকাতার দর্শকদের ভূয়সি প্রশংসা সুনীল-স্টিম্যাচদের
কলকাতার দর্শকদের ভূয়সি প্রশংসা সুনীল-স্টিম্যাচদের

কলকাতার দর্শকদের ভূয়সি প্রশংসা সুনীল-স্টিম্যাচদের

  • কাম্বোডিয়াকে ভারত প্রথম ম্যাচে ২-০ গোলে হারায়। আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ২-১ ফলে ছিনিয়ে নেয় রুদ্ধশ্বাস জয়। আর তৃতীয় ম্যাচে ৪-০ গোলে কার্যত উড়িয়ে দেয় হংকংকে। সুনীল ছেত্রীরা এই নিয়ে ষষ্ঠবার এশিয়ান কাপের মূলপর্বে খেলবে।

শুভব্রত মুখার্জি: ভারত তথা বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে অন্যতম 'আইকনিক' স্টেডিয়াম কলকাতার যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গণ। ভারতীয় সিনিয়র ফুটবল দলের জন্য পয়মন্ত মাঠও বটে। যেখানে এএফসি এশিয়ান কাপের বাছাইপর্বের তিনটি ম্যাচেই পরপর জিতে ভারত পরপর দ্বিতীয়বার মূলপর্বের টিকিট ছিনিয়ে নিল। করোনা কারণে দীর্ঘদিন কম খেলা হওয়া বা মাঠে দর্শক প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা ছিল। ভারতের ম্যাচ দিয়েই আন্তর্জাতিক ফুটবল ফিরেছিল যুবভারতীতে। ফলে কোনও ভাবেই প্রিয় তারকাদের খেলা মিস করতে না চাওয়া ফুটবল প্রেমীরা ম্যাচের দিনগুলোতে ভরিয়ে তুলেছিল স্টেডিয়াম। 'ইন্ডিয়া ইন্ডিয়া' চিৎকারে মুখরিত হয়েছিল যুবভারতী প্রাঙ্গণ। দলের ১২ তম ফুটবলারের এই জোশ বাড়তি অক্সিজেন‌ জুগিয়েছিল‌ দলকে। মূলপর্ব নিশ্চিত করার পরে সেকথা বিনা বাক্যব্যয়ে মেনে নিয়েছেন কোচ ইগর স্টিম্যাচ এবং কিংবদন্তি অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী।

প্রসঙ্গত কাম্বোডিয়াকে ভারত প্রথম ম্যাচে ২-০ গোলে হারায়। আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ২-১ ফলে ছিনিয়ে নেয় রুদ্ধশ্বাস জয়। আর তৃতীয় ম্যাচে ৪-০ গোলে কার্যত উড়িয়ে দেয় হংকংকে। সুনীল ছেত্রীরা এই নিয়ে ষষ্ঠবার এশিয়ান কাপের মূলপর্বে খেলবে। অধিনায়কের একের পর এক দুরন্ত গোল, আনোয়ার আলির গোল, সামাদের গোলে রুদ্ধশ্বাস জয় একাধিক অবিস্মরণীয় মুহূর্তের সাক্ষী থেকেছে কলকাতার দর্শক। বলা ভালো এই মুহূর্তগুলো তৈরিতে ফুটবলারদের হয়ে ননস্টপ গলা ফাটিয়েছেন। তাই তো তৃতীয় ম্যাচ শেষে সুনীলের বক্তব্য 'আমি সবসময় এটা মনে করে এসেছি ভারতের সব ক্লাবেই আপনি খেলেছেন, ভারতের সব প্রান্তে আপনি গিয়েছেন। তবে আপনি যদি কলকাতাতে খেলার স্বাদ না পেয়ে থাকেন তাহলে ফুটবলার হিসেবে আপনার বৃত্ত সম্পূর্ণ হয়নি। এখানের সমর্থকরা আপনাকে অকুণ্ঠভাবে ভালোবাসে।'

কলকাতাকে ভারতীয় ফুটবলের 'মক্কা' হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। সেই কথাকেই যেন পরোক্ষে জোড় দিয়ে কলকাতার ফুটবলপ্রেমীদের কুর্ণিশ জানিয়ে জাতীয় দলের কোচ ইগর স্টিম্যাচের ছোট্ট অভিব্যক্তি 'কলকাতা আমি তোমাকে ভালবাসি।' বলা বাহুল্য ভারতের পরপর তিনটি ম্যাচে দর্শক উপস্থিতি ছাল যথাক্রমে ২৮ হাজার, ৩২ হাজার এবং ৪৪ হাজার। 'কমপ্লিমেন্টারি' টিকিট বন্টনে ভুল ত্রুটি থাকলেও তার প্রভাব মাঠে উপস্থিত দর্শকদের মধ্যে দেখা যায়নি। ঝড়, জল, বৃষ্টি উপেক্ষা করে জাতীয় দলকে সমর্থন দিয়েছেন '১২' তম ফুটবলার। স্ট্যান্ডে গলা মিলিয়ে সকলে গেয়েছেন 'বন্দে মাতরম'। একসঙ্গে হাজার হাজার মোবাইলের ফোনের ফ্ল্যাশলাইটের ঝলকানিতে কলকাতা বুঝিয়ে দিয়েছে তাদের ঐক্যের কথা। মাঠে বেশ কিছু অভিনব টিফো, ব্যানার নিয়ে উপস্থিত থেকেছেন দলের অফিসিয়াল ফ্যান ক্লাব 'ব্লু পিলগ্রিম' এর সদস্যরা।

বন্ধ করুন