বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘অহেতুক আমায় কৃতিত্ব দেওয়া হচ্ছে’, ‘ছাত্ররা’ প্রশংসার দাবিদার, বললেন দ্রাবিড়
রাহুল দ্রাবিড়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
রাহুল দ্রাবিড়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

‘অহেতুক আমায় কৃতিত্ব দেওয়া হচ্ছে’, ‘ছাত্ররা’ প্রশংসার দাবিদার, বললেন দ্রাবিড়

  • রাহুলের জহুরি চোখ চিনে নিয়েছিল শুভমন গিল, হনুমা বিহারী, ওয়াশিংটন সুন্দরের মতো প্রতিভাদের।

তিনি নিজে হয়ত অস্ট্রেলিয়া থেকে সিরিজ জিতে ফিরতে পারেননি। কিন্তু তাঁর ‘ছাত্ররা’ ডন ব্র্যাডম্যানের দেশে ইতিহাস রচনা করেছে। তাঁর জহুরি চোখ চিনে নিয়েছিল শুভমন গিল, হনুমা বিহারী, শার্দুল ঠাকুরের মতো প্রতিভাদের, যাঁরা অস্ট্রেলিয়ায় ডেরায় গিয়ে অজিদের হারিযে এসেছেন।

সেইসব প্রতিভাদের তুলে আনার জন্য চারিদিক রাহুল দ্রাবিড়ের প্রশংসার বন্যা বইছে। যিনি ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দল এবং ভারতীয় ‘এ’ দলের কোচিংয়ের সময় ঋষভ পন্ত, শুভমন, বিহারী, ওয়াশিংটন সুন্দর, মায়াঙ্ক আগরওয়ালের মতো খেলোয়াড়দের তৈরি করেছেন। তাঁদের প্রতিভা নিঃসন্দেহে ছিল। কিন্তু অনেক প্রতিভাবান খেলোয়াড় তো হারিয়ে যান। তা হতে দেননি দ্রাবিড়। আর তাঁর কঠোর পরিশ্রমে ভারত নয়া ইতিহাস তৈরি করেছে বলে মত ক্রিকেট মহলের।

তবে সেজন্য নিজে কৃতিত্ব নিতে একেবারেই রাজি নন স্বয়ং দ্রাবিড়। বরং চিরাচরিত ভঙ্গিমায় ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে তিনি বলেন, ‘হাহা, অহেতুক (আমায়) কৃতিত্ব দেওয়া হচ্ছে। ছেলেরা সমস্ত প্রশংসার যোগ্য।’ যে রাহুলকে ফোন করে ২০১৮ সালে ইংল্যান্ড সফরে রবি শাস্ত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, প্রথম একাদশে কাকে সুযোগ দেওয়া হবে - পৃথ্বী শ নাকি হনুমা বিহারী? 

দ্রাবিড়ের অবদান প্রসঙ্গে প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার ডব্লিউ ভি রামন ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানান, ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দল এবং ভারতীয় ‘এ’ দলের মাথা থেকে জয় এবং হারের ভাবনা বের করে দিযেছিলেন রাহুল। বর্তমানে জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির কোচ স্পষ্ট জানিয়েছিলেন, যে কোনও সফরে সব খেলোয়াড়কে সুযোগ দেওয়া হবে। খেলোয়াড়রা যাতে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে পারেন, সেদিকে নজর দেওয়া হবে। তাই প্রত্যেকে জানতেন যে তাঁরা সুযোগ পাবেন। ফলে নিজেদের ক্ষমতা আরও উন্নত করতে পারতেন। 

যদিও একাংশের বক্তব্য, শুধু দ্রাবিড় একাই প্রশংসার যোগ্য, সেটা বলা ভুল হবে। প্রতিভা অন্বেষণের যে সার্বিক কাঠামো তৈরি করা হয়েছে, তা পুরোটাই কৃতিত্বের দাবিদার। দ্রাবিড় থাকার ফলে অবশ্যই সেই কাঠামো আরও মজবুত হয়েছে। প্রাক্তন জাতীয় নির্বাচক যতীন পারাঞ্জপে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানান, ভারতীয় ‘এ’ দলে রাহুলের মতো মানুষ ছিলেন। সেখান থেকে খেলোয়াড়রা জাতীয় দলে শাস্ত্রীর হাতে পড়েন। ফলে সেই উত্থানটা একেবারে মসৃণ হয়।

বন্ধ করুন