বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > শারীরিক ও মানসিক ভাবে ক্লান্ত-ব্যর্থতার জন্য বায়ো বাবল ও IPL শাস্ত্রীর কাঠগড়ায়
নামিবিয়ার বিরুদ্ধে কোচ হিসেবে শেষ ম্যাচ রবি শাস্ত্রীর।
নামিবিয়ার বিরুদ্ধে কোচ হিসেবে শেষ ম্যাচ রবি শাস্ত্রীর।

শারীরিক ও মানসিক ভাবে ক্লান্ত-ব্যর্থতার জন্য বায়ো বাবল ও IPL শাস্ত্রীর কাঠগড়ায়

  • টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর আর ভারতের কোচের দায়িত্বে থাকবেন না রবি শাস্ত্রী। দায়িত্ব নেবেন রাহুল দ্রাবিড়। তবু শেষ বেলার নিজের পিঠ বাঁচাতে ঘুরিয়ে বিসিসিআই-এর দিকেই আঙুল তুলেছেন তিনি। অতিরিক্ত টুর্নামেন্ট, আইপিএল- এইসব কিছুকেই অজুহাত হিসেবে দেখিয়ে হয়তো নিজের ভাবমূর্তি ঠিক রাখতে চাইছেন।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে ভারত ইতিমধ্যেই ছিটকে গিয়েছে। টিম ইন্ডিয়ার খারাপ পারফরম্যান্সের কারণে সমালোচনার ঝড় বয়ে চলেছে। প্রাক্তন ক্রিকেটার থেকে শুরু করে সমর্থকরা দলের উপর ক্ষোভ উগড়ে দিচ্ছেন। রবি শাস্ত্রীর কোচিং, বিরাট কোহলির অধিনায়কত্ব, প্রথম একাদশ বাছাইয়ে টিম ম্যানেজমেন্টের ভুল সিদ্ধান্ত, সব কিছু নিয়েই প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। তবে রবি শাস্ত্রী কিন্তু ঢাল করেছেন, জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকার জন্য প্লেয়ারদের শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি এবং আইপিএলকে।

এ দিন ম্যাচ শুরুর আগে স্টার স্পোর্টসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রবি শাস্ত্রী পরিষ্কার ভাবে বলেন, ‘আমাদের সবার আগে বিশ্রাম প্রয়োজন। মানসিক ভাবে আমি নিজেই ক্লান্ত। এটা আমার বয়সে হতেই পারে। কিন্তু প্লেয়াররাও শারীরিক এবং মানসিক ভাবে একেবারে ক্লান্ত, বিধ্বস্ত। টানা ৬ মাস ধরে বাবলে রয়েছি। আর আইপিএল এবং বিশ্বকাপের মাঝে খুব অল্প দিনের ব্যবধান ছিল। এটা এমন নয় যে, বড় খেলাগুলো যখন আসে, তখন চাপ অনেক বেড়ে যায়। আসলে যে রকম প্রস্তুতির প্রয়োজন ছিল, সেই প্রস্তুতিটা ছিল না। এটা কোনও অজুহাত দিচ্ছি না। হারার ভয়ে আমরা বসে থাকি না। বরং জেতার জন্যই লড়াই করি। তবে একটা এক্স ফ্যাক্টরের অভাব তো ছিলই।’

যদিও রবি শাস্ত্রী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর আর ভারতের কোচের দায়িত্বে থাকবেন না। দায়িত্ব নেবেন রাহুল দ্রাবিড়। তবু শেষ বেলার নিজের পিঠ বাঁচাতে ঘুরিয়ে বিসিসিআই-এর দিকেই আঙুল তুলেছেন তিনি। অতিরিক্ত টুর্নামেন্ট, আইপিএল- এইসব কিছুকেই অজুহাত হিসেবে দেখিয়ে হয়তো নিজের ভাবমূর্তি ঠিক রাখতে চাইছেন।

বিরাট কোহলিরা টুর্নামেন্টের শুরুতেই নিজেদের লড়াইটা কঠিন করে ফেলেছিলেন। প্রথমে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১০ উইকেটে হার। তার পর নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটে বিশ্রি হার। এই দুই ম্যাচ হেরেই ভারতের বিশ্বকাপের স্বপ্ন শেষ হয়ে গিয়েছিল। তবে নিউজিল্যান্ড যেহেতু নিজেদের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে হেরে গিয়েছিল, তাই কোথাও একটা সুক্ষ্ম সম্ভাবনা ছিল। যদি নিউজিল্যান্ড পয়েন্ট নষ্ট করত, তবে হয়তো ভারতের সেমিতে যাওয়ার রাস্তাটা খুলত। কিন্তু ভারতের পর নিউজিল্যান্ডের ম্যাচ বাকি ছিল স্কটল্যান্ড, নামিবিয়া এবং আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে। এদের কারও কাছে হারার মতো টিম নয় নিউজিল্যান্ড। তাও ‘যতক্ষণ শ্বাস, ততক্ষণ আশ’। এই আশাতেই অপেক্ষা করেছিল ভারতের ক্রিকেট প্রেমীরা। কিন্তু রবিবার নিউজিল্যান্ড জেতায়, নামিবিয়া ম্যাচ খেলতে নামার আগে বিশ্বকাপে যাত্রা শেষ হয়ে গিয়েছে ভারতের।

বন্ধ করুন