বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > বাবর-৫৬, আফ্রিদি-১০; জানেন কি পাকিস্তানি ক্রিকেটাদের জার্সির পিছনের নম্বরের গল্পটা!
মাঠে নামার আগে টিম পাকিস্তান (ছবি:টুইটার)
মাঠে নামার আগে টিম পাকিস্তান (ছবি:টুইটার)

বাবর-৫৬, আফ্রিদি-১০; জানেন কি পাকিস্তানি ক্রিকেটাদের জার্সির পিছনের নম্বরের গল্পটা!

  • পাকিস্তান দলের ক্রিকেটারদের জার্সির পিছনের গল্পটা তুলে ধরল পিসিবি। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের অফিসিয়াল পেজে বাবর আজম থেকে শোয়েব মালিক ও রিজওয়ান, আফ্রিদিরা জানালেন তাদের জার্সির নম্বরের পিছনের গল্প।

নম্বর দিয়ে যায় চেনা। হ্যা খেলার জগতে এই প্রবাদটা সকলেরই জানা। যেমন পেলে, মারাদোনা, মেসি মানেই নম্বর ‘টেন’ (10), আবার সিআর সেভেন মানেই ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। এমন ভাবে সব খেলার খেলোয়াড়দের সঙ্গে নম্বটা যুক্ত হয়ে গেছে। ফুটবলের পাশাপাশি ক্রিকেটেও এই ছবিটা দেখা যায়। যেমন সচিনের জার্সি নম্বর ছিল দশ। আবার রোহিত শর্মাতো বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে জানিয়েছিলেন তাঁর পছন্দের নম্বর ‘45’ এর গল্প। ধোনির জার্সি নম্বর সাত সম্বন্ধে সকলেই জানেন। 

এবার পাকিস্তান দলের ক্রিকেটারদের জার্সির পিছনের গল্পটা তুলে ধরল পিসিবি। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের অফিসিয়াল পেজে বাবর আজম থেকে শোয়েব মালিক ও রিজওয়ান, আফ্রিদিরা জানালেন তাদের জার্সির নম্বরের পিছনের গল্প। বাবর প্রকাশ করেছেন যে তাকে প্রাথমিকভাবে 33 এবং 56 নম্বর থেকে বেছে নেওয়ার বিকল্প দেওয়া হয়েছিল। তিনি 56 নম্বর বাছাই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। চ্যাম্পিয়ন ওপেনার তার শার্ট নম্বর নিয়ে গর্বিত।

বাবর বলেছেন: ‘সবাই জানে আমার শার্ট নম্বর 56। এর পিছনে কোন বিশেষ কারণ নেই। প্রাথমিকভাবে, তারা আমাকে 33 এবং 56 থেকে বেছে নেওয়ার বিকল্প দিয়েছিল। আমি 56 বেছে নিয়েছিলাম। তারপর থেকে আমি এটি চালিয়ে যাচ্ছি। প্রাথমিকভাবে, শার্ট নম্বরটি ছিল না। আমার কাছে কোন ব্যাপার না কিন্তু এখন এটা আমার যাত্রার একটি অংশ হয়ে গেছে। আমি সংখ্যাটিকে মূল্য দিতে যথাসাধ্য চেষ্টা করি এবং আমি এতে সত্যিই গর্বিত বোধ করি।’  

শাহিন আফ্রিদি জানিযেছেন তিনি কী ভাবে বোর্ডের থেকে তার প্রিয় দশ নম্বরটা চেয়ে নিয়েছিলেন। আফ্রিদি জানান, ‘আমি ছোট থেকেই আফ্রিদির ভক্ত ছিলাম। ছোট থেকেই ভাবতাম আফ্রিদির ১০ নম্বর জার্সিটা গায়ে তুলব। প্রথমে আমায় চল্লিশ নম্বর জার্সি দেওয়া হয়। পরে শোয়েব আফ্রিদি খেলা ছাড়ার পরে পিসিবি কে বলে, লালার থেকে পারমিশন নিয়ে আমি ১০ নম্বর জার্সিটা পড়ি। এটা পড়লে নিজেকে গর্বিত মনে হয়।’

বন্ধ করুন