বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > Danushka Gunathilaka granted bail: মাত্র ১১ দিনেই ধর্ষণ মামলায় জামিন পেলেন শ্রীলঙ্কার দনুষ্কা, খসল ১ কোটি টাকা

Danushka Gunathilaka granted bail: মাত্র ১১ দিনেই ধর্ষণ মামলায় জামিন পেলেন শ্রীলঙ্কার দনুষ্কা, খসল ১ কোটি টাকা

ধর্ষণের মামলায় জামিন পেলেন দনুষ্কা গুণতিলকে। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে এপি)

Danushka Gunathilaka granted bail: আদালতে পুলিশের পেশ করা নথিতে দাবি করা হয়েছে, ঘটনার দিন দনুষ্কা গুণতিলকের হাত ছাড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন অভিযোগকারী। কিন্তু গলার কাছে চেপে ধরেছিলেন দনুষ্কা।

মাত্র ১১ দিনেই ধর্ষণের মামলায় জামিন পেলেন দনুষ্কা গুণতিলকে। ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় কোটি টাকার বন্ডে জামিন পেয়েছেন শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার। সেইসঙ্গে দনুষ্কা টিন্ডার-সহ কোনওরকম ডেটিং অ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন না বলে নির্দেশ দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার আদালত।

ইএসপিএন ক্রিকইনফোর প্রতিবেদন অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার পার্কলি জেল থেকে ভার্চুয়ালি সিডনির ডাউনিং সেন্টার লোকাল কোর্টে হাজিরা দেন দনুষ্কা। বিচারক জানান, একজন অস্ট্রেলিয়ানের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ উঠত, তাহলে যেভাবে বিচার করতেন, সেভাবেই দনুষ্কার মামলা শুনবেন তিনি। সেই প্রেক্ষিতে দনুষ্কার আইনজীবী মুরুগান থঙ্গরাজ দাবি করেন, সেটা করা হলে দনুষ্কার জামিন মঞ্জুর হয়ে যাওয়ার কথা।  

যদিও শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারের জামিনের আর্জির বিরোধিতা করেন সরকারি আইনজীবী কেরি-অ্যান ম্যাককিনন। তিনি দাবি করেন, জামিন মঞ্জুর হলে অস্ট্রেলিয়া ছেড়ে পালিয়ে যেতে পারেন শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার। সেইসঙ্গে অভিযোগকারীর নিরাপত্তাও বিঘ্নিত হতে পারে বলে সওয়াল করেন সরকারি আইনজীবী। তাঁর যুক্তি ছিল, মহিলার বাড়িতে হেঁটে গিয়েছিলেন দনুষ্কা। অর্থাৎ মহিলার বাড়ি চেনেন।

আদালতে পুলিশের পেশ করা নথিতে দাবি করা হয়েছে, ঘটনার দিন দনুষ্কার হাত ছাড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন অভিযোগকারী। কিন্তু গলার কাছে চেপে ধরেছিলেন দনুষ্কা। তার জেরে মৃত্যুভয় চেপে বসেছিল অভিযোগকারীর মনে। সরকারি আইনজীবী দাবি করেছেন, কন্ডোম ছাড়া যৌনসম্পর্কে লিপ্ত হতে চাননি অভিযোগকারী। (আরও পড়ুন: কন্ডোম পরেনি গুণতিলকে, বারবার মুখ চেপে ধরেছিল মহিলার, উঠে এল অভিযোগ)

যদিও সরকারি আইনজীবীর সওয়ালের বিরোধিতা করেন দনুষ্কার আইনজীবী। তিনি দাবি করেন, পুলিশের সঙ্গে সবরকমের সহযোগিতা করছেন দনুষ্কা। পাসপোর্ট জমা রেখেছেন। দনুষ্কা যে অস্ট্রেলিয়া ছেড়ে পালিয়ে যাবেন, এমন কোনও সম্ভাবনা নেই। সেইসঙ্গে দনুষ্কা যে অভিযোগকারীর বাড়ি চেনেন বলে সওয়াল করেন সরকারি আইনজীবী, তারও বিরোধিতা করেন শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারের আইনজীবী। তিনি দাবি করেন, ওই ঘটনার আগে কখনও ওই এলাকায় যায়নি দনুষ্কা। ঘটনার দিন তাঁরা ১৫ মিনিটে হেঁটে গিয়েছিলেন। সেই পরিস্থিতিতে কীভাবে দনুষ্কা মনে রাখবেন যে ওই মহিলা কোন বাড়িতে থাকতেন?

তারইমধ্যে আজ সরকারি আইনজীবী দাবি করেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় মহিলাকে হেনস্থা করা হচ্ছিল। 'শ্রীলঙ্কার নাম' দেওয়া অ্যাকাউন্ট থেকে হেনস্থা করা হচ্ছিল বলে দাবি করেন সরকারি আইনজীবী। সেই পরিস্থিতিতে নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছেন মহিলা। যদিও দনুষ্কার আইনজীবী সওয়াল করেন, সেই সওয়ালের কোনও ভিত্তি নেই। কারণ দনুষ্কা একজনকেও একটা কোনও কাজ করতে উৎসাহ জোগাননি। 'তাছাড়া উনি (মহিলা) তো সোশ্যাল মিডিয়া ছেড়ে দিয়েছেন। তাই সেইসব বন্ধ হয়ে গিয়েছে।'

আরও পড়ুন: Danushka Gunathilaka Controversies: দনুষ্কা-কাণ্ডে কমিটি গঠন লঙ্কা বোর্ডের, ধর্ষণের অভিযোগের আগেও হয়েছেন নির্বাসিত

দু'পক্ষের সওয়াল-জবাবের পর একাধিক শর্তে দনুষ্কার জামিনের আর্জি মঞ্জুর করেছেন বিচারক। আদালত স্পষ্টভাবে জানিয়েছে, দনুষ্কাকে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় থাকতে হবে। রোজ হাজিরা দিতে হবে পুলিশের কাছে। সেইসঙ্গে টিন্ডার বা অন্য কোনও ডেটিং অ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন না। আইনজীবীদের উপস্থিতি ছাড়া কোনওরকম সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন না দনুষ্কা। যে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার অভিযান শেষের পর যে ক্রিকেটারকে গত ৬ অক্টোবর সিডনির হোটেল থেকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ।

বন্ধ করুন