বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > ENG vs NZ: ‘মিথ্যে’ ক্যাচ ধরেছিলেন উইলিয়াসন, ক্ষমা চাইলেন বাটলারের কাছে- ভিডিয়ো

ENG vs NZ: ‘মিথ্যে’ ক্যাচ ধরেছিলেন উইলিয়াসন, ক্ষমা চাইলেন বাটলারের কাছে- ভিডিয়ো

জস বাটলারের ক্যাচ মিস করার আফসোসটা থেকেই গেল কেন উইলিয়ামসনের।

সকলেই মনে করেছিলেন ক্যাচটি অসাধারণ ধরেছেন উইলিয়ামসন। তবে থার্ড আম্পায়ার পরে টিভি রিপ্লেতে দেখেন বল মাটি ছুঁয়েছে। এমন কী ধারাভাষ্যকাররাও প্রথমে বুঝতে পারেননি। তাঁরাও অনবদ্য একটি ক্যাচ বলে বর্ণনা করেন। বাটলার ক্রিজ ছেড়ে প্যাভিলিয়নের দিকে হাঁটতেও শুরু করেন।

২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ডের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি ম্যাচে, কেন উইলিয়ামসন ইংল্যান্ডের ইনিংসের ষষ্ঠতম ওভারে একটি দুরন্ত ক্যাচ নিয়েছিলেন বলে মনে কার হচ্ছিল। যেটা ব্রিটিশ অধিনায়ক জস বাটলারের ছিল। বড় শট খেলতে চেয়েছিলেন বাটলার। মিড অফে ডাইভে ক্যাচের চেষ্টা কেন উইলিয়ামসনের। যদিও বল তাঁর হাতে লেগে মাঠ ছোঁয়। উইলিয়ামসন দ্রুততার সঙ্গে বল তুলে ক্যাচ নিয়েছেন এমন ভঙ্গিতেই উঠে দাঁড়ান। তিনি নিজে থেকে কোনও ইঙ্গিত করেননি, আদৌ ক্যাচ নিয়েছেন এ বিষয়ে নিশ্চিত কিনা।

আরও পড়ুন: ফের পরিত্রাতা বাটলার, কিউয়িদের হারিয়ে সেমির আশা জিইয়ে রাখল ইংল্যান্ড

নিঃসন্দেহে সকলেই মনে করেছিলেন ক্যাচটি অসাধারণ ধরেছেন উইলিয়ামসন। তবে থার্ড আম্পায়ার পরে টিভি রিপ্লেতে দেখেন বল মাটি ছুঁয়েছে। এমন কী ধারাভাষ্যকাররাও প্রথমে বুঝতে পারেননি। তাঁরাও অনবদ্য একটি ক্যাচ বলে বর্ণনা করেন। সতীর্থরাও সাবাশি দেন অধিনায়ককে। বাটলার ক্রিজ ছেড়ে প্যাভিলিয়নের দিকে হাঁটতেও শুরু করেন। বাউন্ডারি লাইনের সামনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিলেন বাটলার।

মাঠের আম্পায়াররা একবার চেক করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। সেটা দেখতে গিয়েই আসল বিষয়টি সামনে আসে। আউট বাতিল করে দেন। থার্ড আম্পায়ারের সঙ্গে কথাও বলেন। বাটলার পুনরায় ক্রিজে আসার পর ক্ষমা চেয়ে নেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন।

তবে ক্যাচটি যদি সত্যিই ধরতে পারতেন কিউয়ি অধিনায়ক, তবে হয়তো মঙ্গলবারই সেমিতে জায়গা পাকা করে ফেলত নিউজিল্যান্ড। সেই সঙ্গে দুরন্ত এক ক্যাচ ধরে হিরো হয়ে যেতেন কিউয়ি অধিনায়ক। এই ক্যাচ মিসের একটি ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। কিন্তু তাঁর সঙ্গে পাকিস্তানের ক্রিকেটার আহমেদ শেহজাদের তুলনা টানা শুরু হয়। তিনিও মাটিতে পড়া বল তুলে ফেয়ার ক্যাচের দাবি তুলেছিলেন। উইলিয়ামসনকে এর জন্য কটাক্ষও শুনতে হচ্ছে।

আর এই ক্যাচ মিসের খেসারতই দিতে হয় নিউজিল্যান্ডকে। কারণ ইংল্যান্ডের অধিনায়ক বাটলার মাত্র ৪৭ বলে ৭৩ রানের দুরন্ত একটি ইনিংস খেলেন। যার হাত ধরেই ইংল্যান্ড ১৮০ রানের লক্ষ্য রাখে নিউজিল্যান্ডের সামনে।

সতীর্থ ওপেনার অ্যালেক্স হেলসের সঙ্গে বাটলার ৮১ রানের জুটি গড়েন। হেলস দলের হয়ে অর্ধশতরান (৫২ রান) করে আউট হন। নিউজিল্যান্ডের লকি ফার্গুসন দু'টি উইকেট নিয়েছেন।

আরও পড়ুন: রাহুলকে নেটে ট্রেনিং করালেন কোহলি, ঘুচবে কি রাহুর দশা?

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করেনি নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় ওভারেই আউট হয়ে যান ডেভন কনওয়ে (৩)। এর পর দলের ২৮ রানের মধ্যে ফিন অ্যালেনও সাজঘরে ফেরেন। তবে কেন উইলিয়ামসন এবং গ্লেন ফিলিপস দলের হাল ধরেন। তৃতীয় উইকেটে ৯১ রানের পার্টনারশিপ করেন কেন এবং গ্লেন। তবে বেন স্টোকস ফেরান উইলিয়ামসনকে (৪০ বলে ৪০ রান)। এর পরেই নিউজিল্যান্ডের কোমর ভেঙে যায়। 

ফিলিপস ৩৬ বলে ৬২ করে আউট হলে মুখ থুবড়ে পড়ে নিউজিল্যান্ড। ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে নিউজিল্যান্ড করে ১৫৯ রান। ২০ রানে ম্যাচ জিতে যায় ইংল্যান্ড। ব্রিটিশ বোলার স্যাম কারান এবং ক্রিস ওকস ২টি করে উইকেট নিয়েছেন। এই ম্যাচ জিতে সেমিফাইনালে ওঠার আশা বাঁচিয়ে রাখল ইংল্যান্ড।

বন্ধ করুন