বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > T20 WC-এ পাকিস্তানকে কেন সমীহ করে চলতে হবে, জেনে নিন তিনটি কারণ
বিশ্বকাপ জিততে মরিয়া পাকিস্তান।
বিশ্বকাপ জিততে মরিয়া পাকিস্তান।

T20 WC-এ পাকিস্তানকে কেন সমীহ করে চলতে হবে, জেনে নিন তিনটি কারণ

  • বাবর আজম এবং মহম্মদ রিজওয়ান জুটি এখনও পর্যন্ত ১০ ইনিংস খেলে ৫২১ রান করেছেন। গড় ৫২.১০। আর এটা পাকিস্তানের হয়ে খেলা ৪৬টি ওপেনিং জুটির মধ্যে সেরা।

এ বার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তান কিন্তু সব প্রতিপক্ষকেই বড় ধাক্কা দিতে পারে। যে দল বাবর আজমদের হাল্কা ভাবে নেবে, তারা কিন্তু বিপাকে পড়বে। এমনটাই মনে করছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। পাকিস্তান কেন বিপজ্জনক হতে পারে, এর পিছনে তারা তিনটি কারণও দেখাচ্ছে।

১) সেরা ওপেনার: পাকিস্তানের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরাই তাদের আসল শক্তি। তার উপর আবার তাদের ওপেনিং জুটিতে বাবর আজম এবং মহম্মদ রিজওয়ানের মতো ব্যাটসম্যান রয়েছেন। তাঁরা দু'জনেই আইসিসি ক্রমতালিকায় প্রথম দশের মধ্যে রয়েছেন। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলছে যে সমস্ত দেশ, কোনও দেশেরই দুই ওপেনার একসঙ্গে আইসিসি-র ক্রম তালিকায় প্রথম দশের মধ্যে নেই।

এই জুটি এখনও পর্যন্ত ১০ ইনিংস খেলে ৫২১ রান করেছেন। গড় ৫২.১০। আর এটা পাকিস্তানের হয়ে খেলা ৪৬টি ওপেনিং জুটির মধ্যে সেরা। বাবর আজম এবং মহম্মদ রিজওয়ানের দু'টি সেঞ্চুরি এবং একটি অর্ধশতরান রয়েছে।

২) দ্রুততম পেস বোলিং: শুধু ওপেনিং জুটি নয়, পাকিস্তানের কিন্তু দ্রুততম পেস বোলিং শক্তিও বড় অস্ত্র। শাহিন আফ্রিদি (৩০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ৩২টি উইকেট নিয়েছেন), হাসান আলি (৪১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ৫২টি উইকেট নিয়েছেন) এবং হরিশ রাউফ (২৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ২৮টি উইকেট নিয়েছেন)- বৈচিত্র্য এবং অভিজ্ঞতা মিলিয়ে ভয়ঙ্কর পেস আক্রমণ।

সংযুক্ত আরব আমিশাহিতে তিনটি ভেন্যু - দুবাই, শারজা এবং আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত গত বছরের আইপিএলের ম্যাচে দেখা গিয়েছিল, পরিসংখ্যানের দিক থেকে পেসাররা কিন্তু স্পিনারদের চেয়ে বেশি সফল হয়েছিল। এমন কী  ২০২১-এ আইপিএলের দ্বিতীয় পর্বে সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে প্রতিটি ফ্র্যাঞ্চাইজি অন্তত একজন করে এক্সপ্রেস পেসার রেখেছিল দলে এবং যার ইতিবাচক ফল হাতেনাতে পেয়েছে তারা। এর থেকে বোঝা যাচ্ছে পাকিস্তানের পেস বোলিং কতটা প্রভাব ফেলতে চলেছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মঞ্চে।

৩) নিজেদের প্রমাণ করার খিদে: খাতায়-কলমে শক্তিশালী দল হলেও মাঠে নেমে সেটা প্রমাণ করা কিন্তু সম্পূর্ণ আলাদা। পাকিস্তানের ক্ষেত্রে অবশ্য নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ড সফর বাতিল করা নিয়ে জনগণের মনে তীব্র ক্ষোভ রয়েছে। খেলোয়াড়দের কাছেও এটা নিজেদের তাতানোর বড় একটি কারণ। মোদ্দা কথা, বিশ্ব ক্রিকেটে নিজেদের প্রমাণ করার এবং নিজেদের একটি জায়গা তৈরি করার তাগিদটা খুব বেশি ভাবে রয়েছে পাকিস্তানের।

বন্ধ করুন