বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > অর্জুনের ভূমিকায় বিরাট, কৃষ্ণের চরিত্রে ধোনি! মাহি-কোহলির যুগলবন্দি দেখার অপেক্ষায় গোটা ক্রিকেট বিশ্ব
বিরাট কোহলি ও মহেন্দ্র সিং ধোনি (ছবি:টুইটার)
বিরাট কোহলি ও মহেন্দ্র সিং ধোনি (ছবি:টুইটার)

অর্জুনের ভূমিকায় বিরাট, কৃষ্ণের চরিত্রে ধোনি! মাহি-কোহলির যুগলবন্দি দেখার অপেক্ষায় গোটা ক্রিকেট বিশ্ব

  • ২০২১ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ধোনি এবং কোহলির যুগলবন্দি দেখার অপেক্ষায় রয়েছে গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। একটা সময়ে মাহির নেতৃত্বে বিরাট কোহলি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক করেছিলনে। সেই বিরাট এবার মেন্টর মাহির ছত্রছায়ায় নিজের স্বপ্নপূরণ করতে চলেছেন।

২০২১ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ধোনি এবং কোহলির যুগলবন্দি দেখার অপেক্ষায় রয়েছে গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। একটা সময়ে মাহির নেতৃত্বে বিরাট কোহলি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক করেছিলনে। সেই বিরাট এবার মেন্টর মাহির ছত্রছায়ায় নিজের স্বপ্নপূরণ করতে চলেছেন। আন্তর্জাতিক টি টোয়েন্ট ক্রিকেটে ভারতীয় জার্সিতে অধিনায়ক হিসাবে বিরাট কোহলির এটাই শেষ টুর্নামেন্ট। তাই ভারতীয় অধিনায়ক হিসাবে ২০২১ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিততে চাইবেন বিরাট। আর বিরাটের এই মহাযুদ্ধে সারথীর ভূমিকায় থাকবেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। অনেকটা মহাভারতের শ্রীকৃষ্ণ ও অর্জুনের মতো। 

ধোনি এবং কোহলির রসায়ন আগুন এবং তেল এর মতো। যা একসঙ্গে থাকলে বিপক্ষের শিবিরকে জ্বালিয়ে দিতে পারে। টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে কোহলি চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের ভূমিকায় থাকবেন, আর ধোনি থাকবেন চাণক্যের ভূমিকায়। কোহলি জানেন যে ধোনিকে কম ওভারের খেলায় অন্ধের মতো বিশ্বাস করা যায়, কারণ ধোনি নিজেকে বারবার প্রমাণ করেছেন। অনেকে বলছেন এবারের টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বিরাট কোহলি অর্জুনের ভূমিকায় থাকবেন এবং মহেন্দ্র সিং ধোনি শ্রীকৃষ্ণের ভূমিকা পালন করবেন। মাহি বিরাটকে পথ দেখাবেন আর বিরাট সেই পথ অনুসরণ করবেন। 

সোমবার ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের অনুশীলন ম্যাচে চলাকালীন পর্দায় একটি পরিচিত ছবি ফুটে উঠেছিল। ক্যামেরা ছিল ভারতীয় দলের ড্রেসিংরুমে। বিরাট কোহলি এবং এমএস ধোনি কিছু গভীর আড্ডায় মগ্ন ছিলেন। এই ছবিটি বলে যে, অধিনায়ক কোহলি যদি ক্রিকেটে বড় কোনও সিদ্ধান্ত নেন তখন তাকে সাহায্য করার জন্য পাশে থাকবেন মহেন্দ্র সিং ধোনি।  

তবে ম্যাচের ১২০ বলের মধ্যে দুজনে একে অপরেরর সঙ্গে কীভাবে যোগাযোগ করবেন সেটাই হবে দেখার দৃশ্য। এটা নিশ্চিত যে কোহলি এবং ধোনির মধ্যে কোনও সংঘর্ষ হবে না। ধোনির প্রতি অনেক শ্রদ্ধা রয়েছে শাস্ত্রী। ফলে তিনি কোন শব্দ করবেন না এবং কোহলি ও ধোনিকে তাদের কাজ করতে দেবেন। যতদূর ধোনির কথা, টিম ইন্ডিয়া ট্রফি জিতলেও তিনি লাইমলাইট থেকে দূরে থাকবেন। 

মাহির অধিনায়কত্বেই কোহলির আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল। অধিনায়ক ধোনি শুধু খারাপ সময়েই কোহলির পাশে থাকেননি, তিনি কোহলির ব্যাটিংয়ে বিশ্বাস রেখে আধুনিক ক্রিকেটে অন্যতম সেরা ব্যাটারের উপহার দিয়েছিলেন। ২০২১ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ হচ্ছে কোহলি এবং ধোনির 'শেয়ার্ড ড্রিম'। এখন দেখার দুজনের স্বপ্ন এবার সফল হয় কিনা।

বন্ধ করুন