বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > পাকিস্তানিদের পাত্তা দিলেন না ওয়াসিমরাও, ওড়ালেন ভারতের ম্যাচে ফিক্সিংয়ের তত্ত্ব
আফগানিস্তান ম্যাচে বিরাট কোহলি এবং জসপ্রীত বুমরাহ। (ছবি সৌজন্য এএনআই)
আফগানিস্তান ম্যাচে বিরাট কোহলি এবং জসপ্রীত বুমরাহ। (ছবি সৌজন্য এএনআই)

পাকিস্তানিদের পাত্তা দিলেন না ওয়াসিমরাও, ওড়ালেন ভারতের ম্যাচে ফিক্সিংয়ের তত্ত্ব

  • পাকিস্তানি সমর্থকদের ‘ম্যাচ ফিক্সিংয়ের’ তত্ত্বকে ওড়ালেন প্রাক্তন ক্রিকেটাররাই। 

পাকিস্তানি সমর্থকদের ‘ম্যাচ ফিক্সিং’ তত্ত্বকে উড়িয়ে দিলেন খোদ সেদেশের প্রাক্তন ক্রিকেটাররা। ওয়াসিম আক্রম এবং ওয়াকার ইউনিস সাফ জানিয়ে দিলেন, ভারত-আফগানিস্তানের ম্যাচ নিয়ে ‘ফিক্সিং’-এর অভিযোগ তোলা হচ্ছে, তাতে পাত্তা দেওয়ার কোনও মানে হয় না।

পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যমে আক্রম বলেন, ‘আমি জানি না, কেন আমরা এরকম ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব তৈরি করতে ভালোবাসি! ভারত খুব ভালো দল। টুর্নামেন্টের শুরুতে ওদের দুটি খারাপ দিন গিয়েছে।’ একই সুরে আক্রমের বোলিং পার্টনার ওয়াকার বলেন, ‘এটার বিষয়ে কথা বলার কোনও অর্থই নেই। এইসব বিষয়ে লোকজনের বেশি পাত্তা দেওয়ার দরকার নেই।’

বুধবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আফগানিস্তানকে ৬৬ রানে হারিয়ে দেয় ভারত। সেই ম্যাচে জয়ের ফলে এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম পয়েন্ট এসেছে ভারতের ঝুলিতে। সেইসঙ্গে সেমিফাইনালে ওঠার সামান্য আশাও জিইয়ে রাখতে পেরেছেন বিরাট কোহলিরা। যদিও পাকিস্তানি অভিনেত্রী শেহর শিনওয়ারি অভিযোগ করেন, ভারত-আফগানিস্তান ম্যাচে ফিক্সিং হয়েছে। তিনি বলেন, ‘ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) ভালোভাবে ম্যাচটা কিনে নিয়েছে।’ সেই সুরে সুর মেলান পাকিস্তানি সমর্থকদের একাংশ। কিন্তু সেই অংশের দাবি নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি নন বিশেষজ্ঞরা।

এমনিতে নেট রানরেট নিয়ে বুধবার সাংবাদিক বৈঠকে রশিদ খানকে প্রশ্ন করা হয়েছিল। বিশেষত শুরুতেই উইকেট হারানোর পর আফগানিস্তান হারের ব্যবধান কমানোর চেষ্টা করেছিল কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন করেন এক সাংবাদিক। সেই প্রশ্নের জবাবে আফগানিস্তানের তারকা স্পিনার বলেন, ‘অবশ্যই। ওই বিষয়টা আমাদের মাথায় ছিল। শুরুতেই কয়েকটি উইকেট পরপর হারানোর পর দল হিসেবে আমরা যতটা বেশি সম্ভব, ততটা রান করার চেষ্টা করেছিলাম। নেট রানরেটের দিকে তাকিয়ে সেটা করা হয়েছে। সেটা নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে আমাদের শেষ ম্যাচে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। সেটা অন্তিম পর্যায়ে বড় পার্থক্য গড়ে দিতে পারে। বার্তাটা স্পষ্ট ছিল, স্মার্ট ক্রিকেট খেল, ২০ ওভার খেল এবং যত বেশি রান করা যায়, তত কর। এটাই ছিল খেলোয়াড়দের মানসিকতা।’

বন্ধ করুন