বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > দলে যখন দ্রাবিড় আছে তখন ব্যাটিং কোচের দরকার কেন? গাভাসকরের বড় প্রশ্ন

দলে যখন দ্রাবিড় আছে তখন ব্যাটিং কোচের দরকার কেন? গাভাসকরের বড় প্রশ্ন

টিম রাহুল দ্রাবিড়কে নিয়ে সুনীল গাভাসকরের বড় প্রশ্ন (ছবি-এএনআই)

সুনীল গাভাসকর আরও বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না, যখন রাহুল দ্রাবিড়ের মতো কিংবদন্তি ব্যাটার দলে রয়েছেন, তখন ব্যাটিং কোচের দরকার কেন? দ্রাবিড় কিছু বলছেন, আর বিক্রম রাঠৌর বলছেন অন্য কিছু এবং এটি বিভ্রান্তির দিকে নিয়ে যায়। আমাদের বুঝতে হবে সাপোর্ট স্টাফের কতজন সদস্যের প্রয়োজন।’

বৃহস্পতিবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ১০ উইকেটের লজ্জাজনক হারের মুখোমুখি হয়েছিল টিম ইন্ডিয়া। ২০ ওভারে ১৬৮/৬ তে সীমাবদ্ধ থাকার পরে, জোস বাটলার এবং অ্যালেক্স হেলসের অপরাজিত ইনিংসের কারণে ইংল্যান্ড বড় জয় পায়। বিনা উইকেটে ভারতের বিরুদ্ধে অপরাজিত ১৭০ রান তোলে ইংল্যান্ড। এই হারের পর, ভারতীয় দল তাদের এমন পারফরম্যান্সের জন্য কঠোর সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছে এবং ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক সুনীল গাভাসকরও এই বিষয়ে কথা বলেছেন। ভারতের হতাশাজনক সমাপ্তির জন্য বিস্তারিতভাবে সমালোচনা করেছেন।

আরও পড়ুন… BWF World Tour Finals থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করলেন পিভি সিন্ধু

প্রাক্তন ভারতীয় ব্যাটসম্যান এর আগে ভারতের পরাজয়ের পরে 'ওয়ার্কলোড ম্যানেজমেন্ট' নিয়ে উদ্বেগ নিয়ে কথা বলেছিলেন, বছরের পর বছর একাধিক দ্বিপাক্ষিক সিরিজের জন্য বিশ্রাম নেওয়ার জন্য বেশ কয়েকজন মূল খেলোয়াড়ের কথা উল্লেখ করেছেন। এখন, গাভাসকর স্কোয়াডে সাপোর্ট স্টাফ সদস্যদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যা নিয়েও কথা বলেছেন। তাঁর মতে এর ফলে খেলোয়াড়দের মধ্যে আরও ‘বিভ্রান্তি’ তৈরি হচ্ছে।

আরও পড়ুন… Pak vs Eng: পাকিস্তানকে হারানোর জন্য বোলারদের কৃতিত্ব দিতে চান বেন স্টোকস

কিংবদন্তি ক্রিকেটার সুনীল গাভাসকর আজ তক-এ বলেছিলেন, ‘১৯৮৩ বিশ্বকাপে আমাদের একজন ম্যানেজার ছিল। ১৯৮৫ সালেও একই রকম। ২০১১ সালে যখন দলটি জিতেছিল, তখন সেখানে খুব বেশি লোক ছিল না। আমি অবাক হয়েছি যে দলের সদস্যদের চেয়ে সাপোর্ট স্টাফের সংখ্যা বেশি। খেলোয়াড়রা কার কথা শুনবে তা নিয়ে বিভ্রান্ত হয়ে যাচ্ছে।’ 

সুনীল গাভাসকর আরও বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না, যখন রাহুল দ্রাবিড়ের মতো কিংবদন্তি ব্যাটার দলে রয়েছেন, তখন ব্যাটিং কোচের দরকার কেন? দ্রাবিড় কিছু বলছেন, আর বিক্রম রাঠৌর বলছেন অন্য কিছু এবং এটি বিভ্রান্তির দিকে নিয়ে যায়। আমাদের বুঝতে হবে সাপোর্ট স্টাফের কতজন সদস্যের প্রয়োজন।’ 

প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক আরও যোগ করে বলেছেন যে বিসিসিআই-এর কাছে ‘৫০-১০০ জনকে’ দূরে সফরে পাঠানোর জন্য যথেষ্ট অর্থ রয়েছে। তবে এই সংখ্যাটি দলকে সাহায্য করছে কিনা তা তাদের বুঝতে হবে। তিনি বলেছেন, ‘আমি জানি বিসিসিআই-এর কাছে টাকা আছে, তারা ৫০-১০০ জনকে দলে পাঠাতে পারে। কিন্তু এটা কি সত্যিই দলকে সাহায্য করছে?’ 

বন্ধ করুন