বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > হ্যা সত্যি কষ্ট হয়েছে- এশিয়া কাপের পর T20 WC! বাবরের গলায় ট্রফি কাছে গিয়েও শিরোপা না জেতার আক্ষেপ

হ্যা সত্যি কষ্ট হয়েছে- এশিয়া কাপের পর T20 WC! বাবরের গলায় ট্রফি কাছে গিয়েও শিরোপা না জেতার আক্ষেপ

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২০২২ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচের মুহূর্ত (ছবি-এএফপি)

ম্যাচের পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসে বাবর আজম বলেন, ‘অবশ্যই আমরা দুঃখিত। আপনি যখন ফাইনালে শেষ করতে পারেন না তখন এটি কষ্ট দেয়। পাকিস্তানের হয়ে খেলতে পেরে আমরা খুব গর্বিত। এটা শেষ করতে পারলাম না। আমরা এশিয়া কাপেও শেষ করতে পারিনি।’

তিন মাসের মধ্যে দু’বার ট্রফির কাছে পৌঁছেও টুর্নামেন্টের শিরোপা জিততে পারেনি পাকিস্তান। প্রথমে এশিয়া কাপ এবং এরপরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। তবে উভয় ক্ষেত্রেই বাবর আজম এবং কোম্পানি শেষ বাধায় হোঁচট খায় এবং ছিটকে যায়। সেপ্টেম্বরে, পাকিস্তান শুধুমাত্র শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে এশিয়া কাপের ফাইনালে পৌঁছেছিল এবং দুই মাস পরে, দলটি ছিটকে যেতে যেতে বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছিল। সেখানে ইংল্যান্ড তাদের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি অর্জনের পথে তাদের সেরা করেছিল। তবে বিশ্বকাপের শিরোপা জিততে না পেরে বাবর আজম বিরক্ত হয়েছিলেন। যদিও পাকিস্তান অধিনায়ক দলের দ্বারা করা প্রচেষ্টার প্রশংসা করেছিলেন। তবে দলের ব্যর্থতা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন বাবর আজম। 

আরও পড়ুন… আইয়ারকে ছেড়ে দেবে KKR? নাইট টিম ম্যানেজমেন্টকে হরভজনের বড় পরামর্শ

ম্যাচের পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসে বাবর আজম বলেন, ‘অবশ্যই আমরা দুঃখিত। আপনি যখন ফাইনালে শেষ করতে পারেন না তখন এটি কষ্ট দেয়। পাকিস্তানের হয়ে খেলতে পেরে আমরা খুব গর্বিত। এটা শেষ করতে পারলাম না। আমরা এশিয়া কাপেও শেষ করতে পারিনি, এবং সেটাও স্টিং করে। এটা একটা চাপের সপ্তাহ ছিল কারণ আমরা জানতাম না যে আমরা মাঠে আছি বা বাইরে আছি। কিন্তু যেভাবে আমরা আমাদের সুযোগটা দখল করে নিয়েছি এবং আমাদের খেলতে পেরেছি। টানা চার ম্যাচে সেরা ক্রিকেট খেলেছি। আমাদের দল কৃতিত্বের দাবিদার।’

আরও পড়ুন… আমার ছেলে যোগ্য তাই খেলছে- লাইভ শোতে পাকিস্তানের দুই তারকার ঝামেলা

ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জোস বাটলার ফিল্ডিং বেছে নেওয়ার পর, পাকিস্তানের ব্যাটাররা ঠিক এগোতে পারেনি। বাবর আজম এবং মহম্মদ রিজওয়ান, দুজনেই নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে দুর্দান্ত হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন, তারা আবারও অদম্য দেখায় এবং পাওয়ারপ্লেতে বড় রান পেতে ব্যর্থ হয় তারা। পাকিস্তান নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে ইংল্যান্ডের লেগ-স্পিনার আদিল রশিদ এবং বাঁহাতি দ্রুত স্যাম কারানের দুরন্ত পারফরমেন্সের ফলে শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ১৩৭/৮ রান সংগ্রহ করতে পারে। যা শেষ পর্যন্ত বেন স্টোকসরা স্বাচ্ছন্দ্যে তুলে দেয়।

এরপরে বাবর আজম বলেন, ‘বল শুরুর দিকে সিম করছিল। পাওয়ারপ্লেতে আমরা ৪৫-৫০ রান পেতে চেয়েছিলাম কিন্তু আমরা কয়েকটি উইকেট হারিয়েছিলাম। ১১ ওভারে, আমরা ৮৫ এর কাছাকাছি ছিলাম (৮৪), কিন্তু ব্যাক-টু-ব্যাক উইকেট পড়েছিল। মিডল অর্ডারে আমরা গতি হারিয়ে ফেলেছি। বিশেষ করে শাদাব এবং শানের পার্টনারশিপ শেষ হওয়ার পরে দুজনেই একে অপরের মতো তাড়াতাড়ি আউট হয়ে যায়।’ বাবর আজম আরও বলেন, ‘আমাদের মিডল অর্ডার ডট-বল অনুপাত একটু বেশি ছিল কারণ আমরা একটি ভিন্ন পরিস্থিতিতে ছিলাম, একটি অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার চেষ্টা করছিলাম। আমরা তা করতে পারিনি, এবং যখনই একটি উইকেট পড়ে, তখন নতুন ব্যাটারকে সেট হতে ২-৩ বল লাগে। স্থির হওয়ার জন্য এটা দরকার হয়। এটি আমাদের ব্যাটিং ইউনিট হিসাবে পিছনের পায়ে রেখেছিল কারণ আমরা যেভাবে চেয়েছিলাম সেভাবে শেষ করতে পারিনি।’

এরপরে বাবর বলেন, ‘আমরা যেভাবে লড়াই করে খেলাকে শেষ ওভারে নিয়ে গিয়েছিলাম, তাতে সকলেই অবাক হয়ে যাবেন। হয়তো শাহিন বোলিং করলে হয়তো পরিস্থিতি অন্যরকম হতে পারত। কিন্তু কৃতিত্ব ইংল্যান্ডের বোলিংকে দিতে হবে। আমরা একটা পার্টনারশিপ গড়ার চেষ্টা করছিলাম, কিন্তু করতে পারিনি। ব্যাক-টু-ব্যাক উইকেট আপনার উপর চাপ সৃষ্টি করে। সেই চাপ ২০তম ওভার পর্যন্ত আমাদের উপর ছিল। আমরা ব্যাট হাতে ২০ রান বা তার চেয়ে কম ছিলাম, যদিও আমরা বল হাতে ম্যাচে ফিরে এসেছিলাম। শাহিনের চোটের পর খেলাটি ইংল্যান্ডের হাতে চলে যায়।’

বন্ধ করুন