বাংলা নিউজ > ময়দান > Ind vs Eng: ODI-তে আট বা নীচে ব্যাট করে সর্বোচ্চ রানের নজির কারানের, ছুঁলেন প্রাক্তন নাইটকে

শুভব্রত মুখার্জি

পুণেতে ভারত বনাম ইংল্যান্ড একদিনের সিরিজের তৃতীয় তথা শেষ ম্যাচটা দু'দলের কাছেই ছিল ডু অর ডাই ম্যাচ। যে দল জিতবে সিরিজ সেই দল ছিনিয়ে নেবে। এই অবস্থায় ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজে খেলা শুরু করেছিল ভারত। রোহিত ধাওয়ান-শিখর ধাওয়ানরা একের পর এক বলকে হেলায় বাউন্ডারি পার করছিলেন। এরপরে বল হাতে পরপর রোহিত, ধাওয়ান এবং বিরাট কোহলিকে তুলে নিয়ে ব্রিটিশদের ম্যাচে ফেরান মইন আলি এবং আদিল রশিদ জুটি। ভারতের চার উইকেট পড়ার পরে উইকেটে জুটি বাঁধেন হার্দিক পান্ডিয়া এবং ঋষভ পন্ত। দু'জনেই ভালো ফর্মে ছিলেন ৩০ ওভারে ভারতের রান পেরিয়ে যায় ২০০‌। যখন মনে হচ্ছিল, ভারত কমপক্ষে ৩৫০-৩৬০ রান তুলবে, তখন পরপর পন্ত (৭৮) ও হার্দিক (৬৪) সাজঘরে ফিরে যান। শেষপর্যন্ত ইনিংসের ১০ বল বাকি থাকতেই ৩২৯ রানে অলআউট হয়ে যায় গোটা ভারতীয় দল।

৩৩৯ রানের লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে ইংরেজরা নিয়মিত উইকেট হারাতে থাকে। মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ডেভিড মালান ৫০ রান করা ছাড়া টপ এবং মিডল অর্ডার মিলিয়ে আর কেউ সেট হয়েও ৫০ রানের গণ্ডি পার করতে পারেননি। ফলে একটা সময় ইংল্যান্ডের স্কোর দাড়ায় ২০০/৭। ততক্ষণে আপামর ভারতীয় সমর্থকরা ধরেই নিয়েছেন ৩৬ বছরের ধারা বজায় রেখে ফের ভারতের মাটি থেকে একদিনের সিরিজে খালি হাতেই ফের একবার ফিরতে চলেছেন ইংরেজরা। ঠিক তখন ব্যাট হাতে জ্বলে ওঠেন আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে খেলা অলরাউন্ডার স্যাম কারান‌। ৮৩ বলে ৯৫ রানের এক অনবদ্য অপরাজিত ইনিংস খেলেন তিনি। একেবারে শেষ ওভার পর্যন্ত ইংল্যান্ডের প্রায় হেরে যাওয়া ম্যাচকে টেনে নিয়ে যান তিনি। ৩২২ রান নির্ধারিত ৫০ ওভারে তুলতে সমর্থ হয় ইংরেজরা। ফলে ৭ রানের ব্যবধানে ম্যাচ ও সিরিজ হেরে যায় তারা। তবে ইংল্যান্ডকে ব্যাট হাতে জেতাতে না পারলেও ব্যক্তিগতভাবে লোয়ার অর্ডারে (৮-১১) ব্যাট করে রান তাড়া করার ক্ষেত্রে সর্বাধিক ব্যক্তিগত রানের ইনিংস খেলার নজির স্পর্শ করেন তিনি। একনজরে দেখে নিন সেই পরিসংখ্যান :-

∆ ২০১৬ ইংল্যান্ড বনাম শ্রীলঙ্কা, নটিংহ্যাম, ক্রিস ওকস (প্রাক্তন কলকাতা নাইট রাইডার্স পেসার), অপরাজিত ৯৫ রান।

∆ ২০২১ সাল, পুণে,ভারত বনাম ইংল্যান্ড, স্যাম কারান, অপরাজিত ৯৫ রান।

∆ ২০১২ সাল, গ্রস আইলেট, অস্ট্রেলিয়া বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ড্যারেন স্যামি, ৮৪ রান।

∆ ২০০২ সাল, জোহানেসবার্গ, দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম অস্ট্রেলিয়া, ল্যান্স ক্লুজনার,৮৩ রান।

∆ ২০০৫ সাল, ক্রাইসচার্চ, নিউজিল্যান্ড বনাম অস্ট্রেলিয়া, ড্যানিয়েল ভেত্তোরি, ৮৩ রান।

বন্ধ করুন