বাংলা নিউজ > ময়দান > IND vs HKG: এমন শট ছেলেবেলায় বন্ধুদের সঙ্গে রবারের বলে খেলতাম- খোলসা করলেন সূর্য
সূর্যকুমার যাদব।

IND vs HKG: এমন শট ছেলেবেলায় বন্ধুদের সঙ্গে রবারের বলে খেলতাম- খোলসা করলেন সূর্য

  • প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে হতাশ করলেও, হংকং-এর বিরুদ্ধে ম্যাচের সেরা হন সূর্যকুমার যাদব। বিরাট এবং সূর্যকুমার তৃতীয় উইকেটে অপরাজিত ৯৮ রানের জুটি গড়েন। এর মধ্যে ৬৮ রানই এসেছে সূর্যের ব্যাট থেকে। তিনি এই ম্যাচে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেছেন। তাঁর ২৬ বলে ৬৮ রানের ইনিংসে রয়েছে ৬টি চার এবং ৬টি ছয়।

হংকং-এর বিরুদ্ধে সূর্যকুমার যাদবের ২৬ বলে অপরাজিত ৬৮ রানের দুরন্ত ইনিংসের হাত ধরে ভারতের স্কোর পৌঁছয় ভদ্রস্থ জায়গায়। তাঁর এই ইনিংসে ছিল ছ’টি চার এবং ছ’টি ছয়। ব্যাট হাতে হংকংয়ের বিরুদ্ধে কার্যত তাণ্ডব চালান সূর্য। রোহিত শর্মা তো বলেই ফেলেছেন, ‘ও এমন কিছু শট খেলেছে, যা কোনও বইয়ে কোথাও লেখা নেই।’

সূর্য এ দিন দৃষ্টিনন্দন পারফরম্যান্স করেছেন। মাঠের চার দিকে শট খেলেছেন। অফ স্টাম্পের বাইরের ছোট লেন্থের বলকে বলকে অবলীলায় পাঠিয়েছেন মাঠের বাইরে। হংকং-এর বোলারদের রীতিমতো কাঁদিয়ে ছেড়েছেন সূর্য। শেষ ওভারে হারুন আর্শাদের প্রথম ৩টি বলে পরপর ৩টি ছক্কা হাঁকান সূর্য। চতুর্থ বলে কোনও রান নেননি তিনি। পঞ্চম বলে ফের একটি ছক্কা হাঁকান। শেষ বলে ২ রান নেন। সেই ওভারে সূর্যকুমার মোট ২৬ রান সংগ্রহ করেন। এমন বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের পরেও সূর্য অবশ্য নির্বিকার।

আরও পড়ুন: সূর্যের জাদুতে অভিভূত কিন্তু আবেশ, আর্শদীপ রান গলানোয় ক্ষুব্ধ রোহিত

ইনিংসের বিরতিতে সূর্যকুমার বলেছেন, ‘এমন ধরনের শট কখনও অনুশীলন করিনি। ছোটোবেলায় বন্ধুদের সঙ্গে রবারের বলে ক্রিকেট খেলতাম। তখন হার্ড উইকেটে এ রকম শট খেলতাম। ছোটোবেলার ক্রিকেট থেকেই এই শটগুলো তুলে এনেছি। উইকেট একটু মন্থর ছিল শুরুতে। ব্যাট করতে যাওয়ার আগে রোহিত শর্মা এবং ঋষভ পন্তের সঙ্গে কথা বলেছিলাম। ওদের বলেছিলাম রান তোলার গতি বাড়ানোর চেষ্টা করব। ১৭০-১৭৫ রান তোলার চেষ্টা করব।’

আর ম্যাচের পর তিনি যোগ করেছেন, ‘আমার কিছু শট পূর্বনির্ধারিত ছিল। কারণ এই ফর্ম্যাটে আপনি যখন ব্যাট করতে যাচ্ছেন, তার আগের প্রস্তুতির উপর নির্ভর করে। তবে যখন ক্রিজে রয়েছেন, তখন বর্তমানে থাকাটা গুরুত্বপূর্ণ।’

আরও পড়ুন: পাশে থাকার বার্তা, হংকং প্লেয়ারদের উপহার মন ছুঁয়ে গেল কোহলির

এ দিকে রোহিত বলে দিয়েছেন, প্রয়োজনে ব্যাটিং অর্ডার বদলাতেও পারেন তাঁরা। সেই প্রসঙ্গে সূর্যের দাবি, ‘আমি মনে করি আপনাকে নমনীয় হতে হবে, যে কোনও নম্বরে ব্যাট করাটা চ্যালেঞ্জ হওয়া উচিত। আমি কিন্তু এই বিষয়টি বেশ পছন্দ করি এবং উপভোগ করি।’

দ্রুত গতিতে রান তোলার লক্ষ্যেই আগ্রাসী ব্যাটিং করেছেন সূর্যকুমার। তাঁর ইনিংসে ভর করেই ভারতীয় দল হংকংয়ের বিরুদ্ধে সম্মানজনক ১৯২ রান তুলতে পেরেছে। ভারতীয় ইনিংসের শুরুতে লোকেশ রাহুল (৩৯ বলে ৩৬) ছিলেন কিছুটা মন্থর। যদিও রোহিত (১৩ বলে ২১) শুরুটা আক্রমণাত্মক মেজাজেই করেছিলেন। কিন্তু তিনি উইকেটে বেশীক্ষণ স্থায়ী হননি। রাহুল আউট হওয়ার পর ক্রিজে আসেন সূর্যকুমার যাদব। তিনি যখন ব্যাট করতে নামেন, তখন ভারতের স্কোর ছিল ১৩ ওভারে মাত্র ৯৪ রান। শেষ সাত ওভারে ওঠে ৯৮ রান। উইকেটে সূর্যকুমারের সঙ্গে ছিলেন বিরাট কোহলি। তবু তাঁদের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে ৬৮ রানই এল সূর্যকুমারের ব্যাট থেকে। যার মধ্য়ে ২৬ রান সূর্য করেছেন শেষ ওভারে।

বন্ধ করুন