বাংলা নিউজ > ময়দান > IND vs NZ: আমার টিম, আমার সিদ্ধান্ত- উমরান, সঞ্জুকে না খেলানোর অজুহাত হার্দিকের

IND vs NZ: আমার টিম, আমার সিদ্ধান্ত- উমরান, সঞ্জুকে না খেলানোর অজুহাত হার্দিকের

হার্দিক পান্ডিয়া।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে যাওয়ার পর নতুন টিম গড়ার লক্ষ্যে অনেকেই মনে করেছিলেন, উমরানের মতো তরুণকে এখন থেকেই তৈরি করবে টিম ইন্ডিয়া। সঞ্জুরও সুযোগ পাওয়া উচিত ছিল বলে মনে করা হয়েছিল। তবে এই প্রসঙ্গে ভারতের টি-টোয়েন্টি টিমের স্ট্যান্ডবাই অধিনায়কের কাছ থেকে জুতসই উত্তর পাওয়া যায়নি।

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ভারত সঞ্জু স্যামসন এবং উমরান মালিকের মতো এক্স-ফ্যাক্টর খেলোয়াড়দের সুযোগই দেয়নি। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির পর তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ভারতের একাদশে সঞ্জু এবং উমরানের নাম না দেখে হতবাক হন অনেকেই।

আসলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে যাওয়ার পর নতুন টিম গড়ার লক্ষ্যে অনেকেই মনে করেছিলেন, উমরানের মতো তরুণকে এখন থেকেই তৈরি করবে টিম ইন্ডিয়া। সঞ্জুরও সুযোগ পাওয়া উচিত ছিল বলে মনে করা হয়েছিল। তবে এই প্রসঙ্গে ভারতের টি-টোয়েন্টি টিমের স্ট্যান্ডবাই অধিনায়ক হার্দিক পান্ডিয়ার কাছ থেকে জুতসই কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি। তিনি অজুহাত দিয়ে বলেছেন, যাঁরা সিরিজে একটি ম্যাচেও সুযোগ পাননি, তাঁরা ভবিষ্যতে অনেক সুযোগ পাবেন।

আরও পড়ুন: এই নিয়ে দ্বিতীয়বার আন্তর্জাতিক T20 ম্যাচ টাই হলেও সুপার ওভারে নিষ্পত্তি হল না

হার্দিক বলেছেন, ‘প্রথম কথা হল, বাইরে কে কী বলছে, সেটা নিয়ে মাথাব্যথা নেই। এটা আমার টিম। কোচ আর আমার যেটা ঠিক মনে হবে, যে দল আমাদের প্রয়োজন, সেই ভাবেই সেরা দল বাছা হবে। প্রচুর সময় আছে। প্রত্যেকে সুযোগ পাবে। যখন সুযোগ পাবে, তখন কিন্তু টানা সুযোগ পাবে। এটি একটি ছোট সিরিজ ছিল। যদি আমাদের আরও ম্যাচ থাকত, তবে আমরা আরও প্লেয়ারদের খেলাতে পারতাম।’

সঞ্জু স্যামসন এবং উমরান মালিক সে ভাবে সুযোগই পাচ্ছেন না। যার ফলে নানা প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। তবে উমরান মালিক এখনও বেশ কাঁচা। পোক্ত হননি। তবে স্যামসন প্রায় তিন বছর ধরে অগ্নিপরীক্ষার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন: T20-র মতোই ODI-তে বেধড়ক মেরে খেলবেন, বিশ্বকাপের আগে বলে দিলেন সূর্যকুমার

এ দিকে হার্দিক তাঁর বক্তব্যকে আরও জোরদার করার জন্য দীপক হুডার উদাহরণ দিয়েছেন। তিনি যোগ করেছেন যে, টিম ম্যানেজমেন্ট একটি ষষ্ঠ-বোলিং বিকল্প চেয়েছিল, তাই তারা হুডাকে খেলানোর চেষ্টা করেছিল এবং এটি কার্যকরও হয়েছে। হুডা দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে চার উইকেট নিয়েছিলেন। এবং মঙ্গলবার মাত্র ১ ওভার বল করার সুযোগ পেয়েছিলেন।

হার্দিক বলেন, ‘যেমন আমার ছয় জনের বোলিং অপশন দরকার ছিল, আর এই সিরিজে সেই জায়গাটা মিটিয়ে দিয়েছে দীপক হুডা। প্রতিপক্ষকে চমকে দিয়েছে ও।’

জয়ের জন্য ১৬১ রান তাড়া করতে নেমে ভারত ২.৫ ওভারে তিন উইকেটে ২১ রানে লড়াই করছিল। কিন্তু পান্ডিয়া তিনটি বাউন্ডারি এবং একটি ছক্কা মেরে পরিস্থিতি সামাল দেন। চার উইকেটে ৭৫ রানে নিয়ে যান ম্যাচটিকে। বৃষ্টিতে ম্যাচটি বন্ধ হওয়ার সময়ে ডিএলএস-এর নিয়মে এটি নিউজিল্যান্ডের স্কোরের সমান ছিল। যে কারণে ম্যাচটি টাই হয়ে যায়। আর সিরিজটি ভারত ১-০ জিতে যায়।

বন্ধ করুন