বাংলা নিউজ > ময়দান > ফিটনেসের ওপর জোর দিয়েই ছন্দ ফিরে পেয়েছি, জানালেন ম্যাচের সেরা কুলদীপ

ফিটনেসের ওপর জোর দিয়েই ছন্দ ফিরে পেয়েছি, জানালেন ম্যাচের সেরা কুলদীপ

আউট করে খুশি কুলদীপ (ANI )

এদিন তিনটি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট তুলে নেন বাঁহাতি স্পিনার

ইডেন গার্ডেনে ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে কঠিন লড়াইয়ের পর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভারতীয় দল ৪ উইকেটে জিতল। একই সঙ্গে জিতে গেল সিরিজ। ভারতের এই জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করলেন ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা 'চায়নাম্যান' স্পিনার কুলদীপ যাদব। এদিন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিনটি উইকেট নেন তিনি, কার্যত তাদের মিডল অর্ডারের মেরুদণ্ড ভেঙে দেন তিনি।

কুলদীপের অনবদ্য বোলিংয়ে ভর করেই এদিন ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে কম রানে বেঁধে ফেলতে সক্ষম হয় ভারতীয় দল। ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হওয়ার পরে তিনি জানালেন কীভাবে ভারতীয় দলে সফল প্রত্যাবর্তন ঘটালেন তিনি। কুলদীপ যাদব জানান ' আমি আমার পারফরম্যান্সে খুব খুশি। শেষ এক বছর আমি আমার শক্তিকেই 'ব্যাক' করেছি। এই এক বছর খুব বেশি ভাবিনি। যখন সুযোগ পেয়েছি আমার একটাই ভাবনা চিন্তা ছিল আর তা হল ভালো পারফরম্যান্স করা। আমি নিজের বোলিং নিয়ে খুব খুশি। দলের কম্বিনেশন ও অনেকটা সময়তে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। সেই কারণেই আমি অন্য কোনও দিকে খেয়াল না করেই নিজের সেরা পারফরম্যান্সটা দিতে বদ্ধপরিকর থাকি।'

তারকা স্পিনার বলেন,'আমি আইপিএল এবং টি-২০তে একটু জোরে বল করার চেষ্টা করি। যাতে ব্যাটাররা এক রান নিলেও বাউন্ডারি মারতে না পারে। সম্প্রতি আমি আমার ব্যাটিং নিয়ে ও কাজ করা শুরু করেছি। ফিটনেস নিয়েও কাজ করতে শুরু করেছি। আমি সময় পেলেই ন্যাশনাল ক্রিকেট অ্যাকাদেমিতে যাই। এই জিনিসটা আমি গত এক বছর ধরেই নিয়মিত করার চেষ্টা করে চলেছি। আগে আমি এই জিনিসটা কম করেছি। চাহাল ও আমাকে অনেকটা সাহায্য করেছে ব্যাটারদের বিষয়ে তথ্য দিয়ে।' ফিটনেসে উন্নতি ঘটিয়েই তিনি অতিরিক্ত গতির সঙ্গে টানা বল করতে পারছেন বলে জানান কুলদীপ।

এদিন ইডেনে ১০ ওভার বল করে ৫১ রা দিয়ে তিনটি উইকেট নিয়েছেন ।কুশল মেন্ডিস (৩৪),চারিথ আসালঙ্কা (১৫) এবং গত ম্যাচেল শতরানকারী দাসুন শানাকাকে (২) সাজঘরে ফেরান তিনি। প্রসঙ্গত শেষ কয়েকটা বছর তাঁর কেরিয়ার বেশ কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে গেছেন কুলদীপ । যুজবেন্দ্র চাহালের সঙ্গে একটা সময় জুটি বেঁধে কাঁপিয়েছেন বিশ্ব ক্রিকেটের ২২ গজ। তারপরেই আসে তাঁর কেরিয়ারের খারাপ সময়। আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সে ফর্মহীনতায় ভুগতে হয়েছে তাঁকে। কেকেআর ম্যানেজমেন্টের সাপোর্ট পাননি বলেই আরো সমস্যায় পড়তে হয় তাঁকে। পরবর্তীতে দিল্লি ক্যাপিটালস দলে আসার পর থেকেই বদলে যায় তাঁর ভাগ্য। ফর্ম তো ফিরে পান অবশ্যই। পাশাপাশি টিম ম্যানেজমেন্টের সাপোর্ট ও পেয়ে নিজের আত্মবিশ্বাস ও ফিরে পান তিনি। যা দেখা যায় ২২ গজে তাঁর পারফরম্যান্সে।

 

বন্ধ করুন