বাংলা নিউজ > ময়দান > ভারতের মিডল অর্ডারে অন্য মাত্রা যোগ করেছেন, ৩১ বছরের তারকায় মুগ্ধ জাদেজা

ভারতের মিডল অর্ডারে অন্য মাত্রা যোগ করেছেন, ৩১ বছরের তারকায় মুগ্ধ জাদেজা

টিম ইন্ডিয়া।

রবিবার সূর্যকুমার মিস্টার ৩৬০ ডিগ্রি হয়ে উঠেছিলেন। বিশেষ করে শেষ ৫ ওভারে। যার জেরে প্রথম ১৫ ওভারে ৯৮ রান থেকে ভারতের ইনিংস শেষ হয় ১৮৪-তে। শেষ ৫ ওভারে ওঠে ৮৬ রান। সৌজন্যে সূর্যকুমার।

রবিবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে শেষ টি-টোয়েন্টিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৬৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ভারত যখন চাপে, সেই সময়ে দলের হাল ধরেছিলেন সূর্যকুমার যাদব। প্রথমে ক্রিজে টিকে থেকে লড়াই করেছিলেন। এর পর শেষ ৫ ওভারে একেবারে তিনি ঝড় তোলেন। তাঁর সৌজন্যেই ভারত ৫ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান করে। এবং ম্যাচটি ভারত ১৭ রানে জিতে ওডিআই সিরিজের মতো টি-টোয়েন্টিতেও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করে। ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার অজয় জাদেজা মনে করেন, দেরীতে হলেও ভারতের মিডল অর্ডারে অন্য মাত্রা যোগ করেছেন সূর্যকুমার যাদব।

বিরাট কোহলি এবং ঋষভ পন্তহীন তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে ভারতের ব্যাটিং অর্ডারে ছিল একটি বড় চমক। দলের অধিনায়ক রোহিত শর্মা ওপেন না করে তিনি নিজে নামেন চার নম্বরে। ওপেন করতে পাঠান রুতুরাজ গায়কোয়াড় এবং ইশান কিষাণকে। তিনে নামেন শ্রেয়স আইয়ার। রুতুরাজ ৪ রান করে আউট হন। ইশান (৩১ বলে ৩৪ রান) এবং শ্রেয়স (১৬ বলে ২৫ রান) চেষ্টা করেছিলেন। তবে তাঁরাও সে অর্থে সফল হননি। রোহিত শর্মাও ১৫ বলে ৭ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। তখন সূর্যকুমার যাদব আর বেঙ্কটেশ আইয়ারই ক্রিজে টিকে থেকে লড়াই চালান। 

রবিবার সূর্যকুমার মিস্টার ৩৬০ ডিগ্রি হয়ে উঠেছিলেন। বিশেষ করে শেষ ৫ ওভারে। যার জেরে প্রথম ১৫ ওভারে ৯৮ রান থেকে ভারতের ইনিংস শেষ হয় ১৮৪-তে। শেষ ৫ ওভারে ওঠে ৮৬ রান। সৌজন্যে সূর্যকুমার। শেষ ওভারে তিনটি ছক্কা হাঁকান সূর্য। করেন ৩১ বলে ৬৫ রান। এই নিয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ২৭ বলে চতুর্থ হাফসেঞ্চুরি করেন তিনি। তাঁর ইনিংসে রয়েছে ৭টি ছক্কা এবং একটি চার। তাঁকে যোগ্যসঙ্গত করেন বেঙ্কটেশ আইয়ার। ১৯ বলে ৩৫ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। পঞ্চম উইকেটে সূর্যকুমার-বেঙ্কটেশ ৯১ রানের পার্টনারশিপ করেন।

ভারতের বহুমুখী ক্রিকেটারের স্ট্রোক-প্লের প্রশংসা করে, জাদেজা বলেছেন, খুব ভালো বল বুঝে শট খেলেন সূর্যকুমার। বলটি কী ভাবে আসতে পারে তাঁর কাছে, সেই অনুমানটাও স্পষ্ট। ক্রিকবাজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জাদেজা বলেছেন, ‘আমি জানি না, এই ইনিংসকে কী ভাবে আমি ব্যাখ্যা করব। কেউ যদি চারের থেকে বেশি ছক্কা মারে তার ইনিংসে, কিছুই বলার থাকে না। এবং সেই ছয় মারার সময় কিন্তু শক্তির ব্যবহার করেনি ও। অন্য উপায় বের করেছিল। এই ফর্ম্যাটে খেলার জন্য খুব শক্তিশালী হওয়া বা খুব জোর থাকা প্রয়োজন, এই মিথটা সূর্যকুমার ভেঙে দিয়েছে। ও দেখিয়ে দিয়েছে, যদি তোমার কোনও শক্তি না থাকে, তা হলে ম্যাচের পরিস্থিতি বুঝে অন্য স্কিলও ব্যবহার করা যায়। আমার মনে হয়, ও সেটাই এই ম্যাচে করেছে।’ এর সঙ্গেই জাদেজা যোগ করেছেন, ‘ও যে সব ছয়গুলো মেরেছে, তার মধ্যে আমি একটি ছয়ের কথা বলব, যেটা ওয়ালশের বলে ও মেরেছিল, সেটাতেই একমাত্র শক্তির প্রয়োগ করেছে। বাকিগুলো সবটাই ছিল সঠিক টাইমিং-এর প্রয়োগ।’

বন্ধ করুন