বাংলা নিউজ > ময়দান > জেতা ম্যাচ হাতছাড়া হওয়ায় দলের ফিল্ডিং নিয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন মন্ধনা
ভারতের মহিলা ক্রিকেট দল। ছবি- টুইটার।
ভারতের মহিলা ক্রিকেট দল। ছবি- টুইটার।

জেতা ম্যাচ হাতছাড়া হওয়ায় দলের ফিল্ডিং নিয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন মন্ধনা

  • ভারত ম্যাচ তথা সিরিজ হেরে বসায় ব্যর্থ হয় রিচার আগ্রাসী ইনিংস।

ওয়ান ডে'র পর দক্ষিণ আফ্রিকার মহিলা দলের কাছে টি-২০ সিরিজেও হার ভারতের। স্বাভাবিকভাবেই হতাশ ভারতের মহিলা ক্রিকেট দল। হতাশা লুকিয়েও রাখলেন না হরমনপ্রীতের পরিবর্তে টি-২০ সিরিজে নেতৃত্ব দিতে নামা স্মৃতি মন্ধনা। সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে হেরে উঠে মন্ধনা জানালেন, এটা তেতো ওষুধ, যা তাঁদের গিলতেই হবে।

তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজের শুরুতেই ভারতকে একতরফা হারের মুখে পড়তে হয়। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে ভারত একসময় চালকের আসনে ছিল। সেখান থেকে নিজেদের ভুলেই ম্যাচ হাতছাড়া হয় মন্ধনাদের।

ম্যাচের শেষে স্মৃতি বলেন, ‘এটা আসলে তেতো ওষুধ, যা আমাদের গিলে নেওয়া ছাড়া উপায় নেই। আমি মনে করি যে, ম্যাচের ৮০ শতাংশ সময়েই আমরা এগিয়ে ছিলাম। যদিও শেষে হারতে হয়।’

রীতিমতো ক্ষোভের সঙ্গে মন্ধনা জানালেন যে, ম্যাচে তাঁরা যে রকম ফিল্ডিং করেছেন, তাতে জেতা উচিতও ছিল না তাঁদের। ক্যাপ্টেনের কথায়, ‘আমাদের এখনও অনেক কিছু শিখতে হবে। বিশেষ করে আমরা যে রকম ফিল্ডিং করেছি, তাতে আমাদের জেতা উচিতও ছিল না। ফিল্ডিংয়ের মান নিয়ে আমাদের খাটতে হবে।’

যদিও দ্বিতীয় ম্যাচে দলের ব্যাটিং নিয়ে তৃপ্ত শোনায় মন্ধনাকে। তিনি বলেন, ‘যেভাবে আমাদের ব্যাটাররা ব্যাট করেছে, তা আসাধারণ। দেড়শোর বেশি রান তোলা নিঃসন্দেহে ইতিবাচক দিক। তবে এবার আমাদের সতর্ক হতেই হবে। আমরা কঠোর অনুশীলন করছি।’

দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে ভারত প্রথমে ব্যাট করে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ১৫৮ রান তোলে। শেফালি বর্মা ৩১ বলে ৪৭ ও রিচা ঘোষ ২৬ বলে অপরাজিত ৪৪ রান করেন। পালটা ব্যাট করতে নামা দক্ষিণ আফ্রিকার জয়ের জন্য শেষ ২ ওভারে দরকার ছিল ১৯ রান। তবে ১৯তম ওভারের দু'টি বাউন্ডারি হজম করেন হার্লিন। শেষ ওভারে যখন ২ বলে ৬ রান প্রয়োজন ছিল, এমন গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নো বল করে বসেন অনুন্ধতি রেড্ডি। দক্ষিণ আফ্রিকা একেবারে শেষ বলে সিঙ্গল নিয়ে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ১৫৯ রান তুলে ম্যাচ জিতে যায়। ৬ উইকেটের উত্তেজক জয়ের সুবাদে দক্ষিণ আফ্রিকার মেয়েরা এক ম্যাচ বাকি থাকতেই ৩ ম্যাচের টি-২০ সিরিজ জয় নিশ্চিত করে।

বন্ধ করুন