বাংলা নিউজ > ময়দান > চেক প্রজাতন্ত্রকে উড়িয়ে দিয়ে টানা সাত ম্যাচ জয় ইতালির
গোল করার পর লোরেন্সো ইনসিগ্না ও চিরো ইম্মোবিলের উচ্ছ্বাস। ছবি- রয়টার্স। (REUTERS)
গোল করার পর লোরেন্সো ইনসিগ্না ও চিরো ইম্মোবিলের উচ্ছ্বাস। ছবি- রয়টার্স। (REUTERS)

চেক প্রজাতন্ত্রকে উড়িয়ে দিয়ে টানা সাত ম্যাচ জয় ইতালির

  • টানা ২৩ ম্যাচে অপরাজিত ইতালি।

২০১৮ সালে বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জন করতে ব্যর্থ হয় ইতালি। তবে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে দলের ভাগ্য সম্পূর্ণ বদলে দিয়েছেন ম্যানেজার রবার্তো মানচিনি। পুরনো হতাশা পিছনে ফেলে আসন্ন ইউরোর আগে যে তারা পুরোপুরি তৈরি, চেক প্রজাতন্ত্রকে ৪-০ গোলে কার্যত উড়িয়ে দিয়ে তা ফের প্রমাণ করল ইতালি।

দলের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই চিরাচরিত ইতালীয় ঘরানার ডিফেন্স নির্ভর ফুটবলের বদলে সুন্দর আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলার দিকেই সচেষ্ট হন মানচিনি। তার সুবাদেই সাম্প্রতিক অতীতে বড় গোলের ব্যবধানে একাধিক জয় মেলে। শক্তিশালী চেক দলের বিরুদ্ধে আবারও একবার সেই চিত্র ধরা পড়ল।

ম্যাচের শুরুটা ভালই করেছিল চেক দল। কিন্তু ২৩ মিনিটের মাথায় ডিফেন্সের সামান্য ভুলের সুযোগ নিয়ে, কিছুটা খেলার গতির বিপরীতেই আজুরিদের এগিয়ে দেন চিরো ইম্মোবিলে। প্রথমার্ধের বিরতির আগে ব্যবধান দ্বিগুন করেন নিকোলো বারেল্লা।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে নিজের ৩০তম জন্মদিনকে স্মরণীয় করে রাখলেন লরেন্সো ইনসিগ্নে। প্রথমে ৬৬ মিনিটে নিজে গোল করেন এবং তাঁর সাত মিনিট পরেই জাতীয় দলের জার্সি গায়ে নিজের দুরন্ত গোলের ফর্ম বজায় রাখতে ডমেনিকো বেররার্দিকেও ঠিকানা লেখা পাস বাড়িয়ে দেন।

ম্যাচের পর নায়ক ইনসিগ্নে বলেন, ‘আমরা টুর্নামেন্টে কতদূর এগোতে পারব, তা এখনই বলা বেশ কঠিন। তবে আমরা জানি দল হিসাবে আমরা কী করতে সক্ষম। কোচ দলের মধ্যে এমন একটি পরিবেশ তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন যেখানে আমরা নিজেদের সেরাটা দিতে পারি। নির্ভয়ে নিজেদের স্বাভাবিক খেলা খেলতে পারি।’ 

ভারতীয় সময় অনুযায়ী ১২ তারিখ মধ্যরাতে তুরস্কের বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে নিজেদের ইউরো অভিযান শুরু করতে চলেছে মানচিনির দল। দুরন্ত ছন্দে থাকা আজুরিরা যে এবারে যে কোন প্রতিপক্ষের রাতের ঘুম কেড়ে নিতে সক্ষম, তার উদাহরণ চেক প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে তাঁদের পারফরম্যান্স থেকেই পাওয়া যায়।  

বন্ধ করুন