বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল ২০২০ > RCB vs KKR: খেললেন কোহলিরা, ৮২ রানে হেরে বিরাট নেট রানরেটের বোঝা নিয়ে ফিরল KKR
জয়ের উচ্ছ্বাস (ছবি সৌজন্য আইপিএল)
জয়ের উচ্ছ্বাস (ছবি সৌজন্য আইপিএল)

RCB vs KKR: খেললেন কোহলিরা, ৮২ রানে হেরে বিরাট নেট রানরেটের বোঝা নিয়ে ফিরল KKR

  • কলকাতাকে উড়িয়ে লিগ টেবিলের তৃতীয় স্থানে উঠে এলেন বিরাট কোহলিরা।

খারাপ দিনটা মনে রাখতে চান না দীনেশ কার্তিক। বেশি ঘাটতেও চান না। মনে রাখার মতোও খেললেন না তাঁরা। সোজা বাংলায় বললে বশ্যতা স্বীকার করল কলকাতা নাইট রাইডার্স। ব্যাটিংয়ের শেষ চার ওভার থেকে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর যে নিজেদের দখলে ম্যাচ নিল, সেখান থেকে নাইটদের আর কোনও সুযোগই দিলেন না বিরাট কোহলিরা। একবারও দেখে হয়নি যে কেকেআর ব্যাটসম্যানরা ম্যাচ বের করে নিতে পারেন। আর তার জেরে ৮২ রানে জিতে লিগ টেবিলের তৃতীয় স্থানে চলে গেলেন কোহলিরা। (আইপিএলের যাবতীয় আপডেট, লাইভ স্কোর দেখুন এখানে)

RCB vs KKR আপডেটস : 

  • ম্যাচের সেরা কে হবেন, তা বলার জন্য কোনও পুরস্কার নেই। যথারীতি সেরা হয়েছেন এবি ডি'ভিলিয়ার্স।
  • সাত রাউন্ড শেষে আইপিএলে শীর্ষে আছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। তাদের পয়েন্ট ১০। নেট রানরেটে পিছিয়ে সমসংখ্যক পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে দিল্লি ক্যাপিটালস। আট পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে ব্যাঙ্গালোর। চারে আছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। নাইটদেরও পয়েন্ট আট। সোমবারের হারের পর তাঁদের নেট রানরেট গিয়ে ঠেকল -০.৫৭৭।
  • খারাপ দিনটা মনে রাখতে চান না দীনেশ কার্তিক। বেশি ঘাটতেও চান না। মনে রাখার মতোও খেললেন না তাঁরা। সোজা বাংলায় বললে বশ্যতা স্বীকার করল কলকাতা নাইট রাইডার্স। ব্যাটিংয়ের শেষ চার ওভার থেকে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর যে নিজেদের দখলে ম্যাচ নিল, সেখান থেকে নাইটদের আর কোনও সুযোগই দিলেন না বিরাট কোহলিরা। একবারও দেখে হয়নি যে কেকেআর ব্যাটসম্যানরা ম্যাচ বের করে নিতে পারেন। আর তার জেরে ৮২ রানে জিতে লিগ টেবিলের তৃতীয় স্থানে চলে গেলেন কোহলিরা।
  • কী কারণে বিরাটদের কাছে বশ্যতা স্বীকার KKR-এর? কোথায় ভুল হল কার্তিকদের?
  • শুধু স্পিনাররা নয়, দুরন্ত বোলিং করেছেন পেসাররা। বিশেষত ক্রিস মরিস আসার পর থেকে ব্যাঙ্গালোরের বোলিং লাইন-আপ আকাশ-পাতাল পালটে গিয়েছে। মরিস চার ওভারে ১৭ রান দিয়ে দু'উইকেট নিয়েছেন। নভদীপ সাইনি তিন ওভার বল করেছেন। ১৭ রান দিয়ে পেয়েছেন এক উইকেট।
  • স্লো পিচে দুরন্ত বোলিং করলেন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বোলাররা। বিশেষক স্পিনজুটি তো নাইট ব্যাটসম্যানদের কোনও সুযোগ দিলেন। দুই স্পিনার আট ওভারে ৩২ রান দিয়ে তিন উইকেট নিয়েছেন। ওয়াশিংটন সুন্দরে চার ওভারে ২০ রান দিয়ে দু'উইকেট নিয়েছেন। চার ওভারে ১২ রান দিয়ে এক উইকেট পেয়েছেন যুজবেন্দ্র চহাল।
  • কলকাতা নাইট রাইডার্সের ইতিহাসে সম্ভবত জঘন্যতম পারফরম্যান্স। ৮২ রানে বিরাট কোহলিদের কাছে বশ্যতা স্বীকার করলেন নাইটরা। ২০ ওভারে ন'উইকেটে ১১২ রানের বেশি তুলতে পারল না  তাতে নেট রানরেটের যে ধাক্কা লাগল, তাতে টুর্নামেন্টের শেষ লগ্নে লড়াইয়ের কোনও জায়গায় থাকবেন না - যদি না কেকেআর বড় ব্যবধানে জেতে।
  • IPL-র ইতিহাসে অবিস্মরণীয় নজির বিরাট-ডি'ভিলিয়ার্সের, কী জানেন?
  • সবে হাত খুলেছিলেন। প্রথম তিন বলে ১৪ রান তুলেছিলেন রাসেল। চতুর্থ বলে মিস করেছিলেন। পরের বলটি অফস্টাম্পের  বাইরে ফুলটস ছিল। ১০ বলে ১৬ রান করেন রাসেল। ১৩.৫ ওভারে ৬ উইকেটে ৮৫ রান।
  • ১৩ ওভারে কলকাতার স্কোর পাঁচ উইকেটে ৭১ রান।
  • সামান্য বেশি বাউন্স হয়েছিল। তাতেই ইয়ন মর্গ্যানকে প্যাভিলিয়নে পাঠালেন ওয়াশিংটন সুন্দর। ব্যাটের বাইরের দিকের কাণায় বল লেগে ইশুরু উডানার হাতে বল জমা পড়ল। ১১.১ ওভারে কলকাতার স্কোর পাঁচ উইকেটে ৬৪ রান।
  • প্রত্যাশিতই ছিল। আর সেই স্পিন জালেই কলকাতা নাইট রাইডার্সকে আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে ধরল ব্যাঙ্গালোর। এবার আউট হলেন দীনেশ কার্তিক। ১০.৩ ওভারে কলকাতার স্কোর চার উইকেটে ৬২। যুজবেন্দ্র চাহালের লেগব্রেকে মারতে গিয়ে বল স্টাম্পে টেনে আনলেন।
  • কোনওভাবেই রান ছিল না। কিন্তু ডট বলের চাপে ভুল কল গিলের। তার ফল ভুগলেন শুভমন গিল। রান আউট হয়ে গেলেন তিনি। ২৫ বলে ৩৪ রান করেছেন তিনি। ৯.৩ ওভারে কেকেআরের স্কোর তিন উইকেটে ৫৫ রান।
  • নবম ওভারের প্রথম বলেই জীবনদান পেলেন শুভমন গিল। যুজবেন্দ্র চহালের প্রথম বলেই ভালোভাবে টাইম করতে পারেননি। লং-অনে একেবারে সহজ ক্যাচ ফেললেন অ্য়ারন ফিঞ্চ। যা তাঁর পক্ষে অভাবনীয়।
  • চারে নামলেন ইয়ন মর্গ্যান।
  • সপ্তম ওভারে মাত্র তিন রান দিয়েছিলেন যুজবেন্দ্র চহাল। অষ্টম ওভারের প্রথম পাঁচ বলে পাঁচ রান ওঠে। তার জেরে উত্তরোত্তর চাপ বাড়ছিল। তাই বড় শট মারতে গিয়ে বোল্ড হলেন নীতিশ রানা। ১৪ বলে ৯ রান করলেন তিনি। ৮ ওভারে কলকাতার স্কোর ২ উইকেটে ৫১ রান।
  • পাওয়ার প্লে'তে নিজের দুরন্ত ছন্দ ধরে রাখলেন ওয়াশিংটন সুন্দর। ষষ্ঠ ওভারে দিলেন মাত্র চার রান। তার জেরে পাওয়ার প্লে'তে এক উইকেটে ৪৩ রান তুলল কেকেআর। ক্রিজে আছেন শুভমন গিল ( ১৭ বলে ২৬ রান) এবং নীতিশ রানা (সাত বলে ৬ রান)।
  • কেকেআর ইনিংসের প্রথম ভালো ওভার। পঞ্চম বলে চার মারলেন গিল, পরের বলে ছক্কা। ফলে ওভারে ১৬ রান উঠল। পাঁচ ওভারে কলকাতার স্কোর এক উইকেটে ৩৯।
  • একেবারেই ছন্দে লাগেনি। মারকুটে ব্যাটসম্যান হিসেবে পরিচিত হলেও সোমবার তার একটুও প্রমাণ মেলেনি। বরং কার্যত টেস্ট খেলছিলেন। নভদীপ সাইনির ঘণ্টায় ১৪৮ কিলোমিটারের বলে ছিটকে গেল ব্যান্টনের স্টাম্প।  চার ওভারে কলকাতার স্কোর এক উইকেটে ২৩ রান। পিচ ক্রমশ স্লো হচ্ছিল।
  • ১০ রানের কাছাকাছি রান তাড়া করতে নেমে ঢিমেতালে শুরু টম ব্যান্টন এবং শুভমন গিলের। তিন ওভারে কেকেআরের স্কোর বিনা উইকেটে ১৬।
  • প্রথম ওভারে উঠল সাত রান। বল করলেন ক্রিস মরিস।
  • ওপেনিংয়ে আবার পরিবর্তন কেকেআরের। এবার শুভমন গিলের সঙ্গে নামলেন টম ব্যান্টন। রাহুল ত্রিপাঠী কি তাহলে তিনে নামবেন বাকি সাতে নামবেন?
  • একটা সময় ম্যাচে থেকেও রীতিমতো বেকায়দায় পড়ে গেল কেকেআর। স্লো পিচে যুজবেন্দ্র চহাল, ওয়াশিংটন সুন্দরের মতো স্পিনারকে সামলানো খুব একটা সহজ হবে না।
  • ৪৬ বলে ১০০ রানের পার্টনারশিপ বিরাট কোহলি ও এবি ডি'ভিলিয়ার্সের। বিরাটকে কার্যত খেলতেই হয়নি। খেলার দরকারই পড়েনি। ২৮ বলে ৩৩ রানে অপরাজিত থাকবেন বিরাট। মাত্র একটি চার মেরেছেন।
  • শেষ পাঁচ ওভারে উঠল ৮৩।
  • একটা সময় মনে হচ্ছিল, ১৭০ রান তুলতে বেগ পাবে ব্যাঙ্গালোর। কিন্তু তারপরই শারজায় উঠল  এবি ডি'ভিলিয়ার্স ঝড়। ৩৩ বলে তাঁর অপরাজিত ৭৩ রানের সৌজন্যে ২০ ওভারে ২ উইকেটে ১৯৪ রান তুললে ব্যাঙ্গালোর।
  • পরিস্থিতির নিরিখে তুলনায় ভালো ওভার প্রসিধ কৃষ্ণা। ১৯ তম ওভারে দিলেন ১২ রান। একটা বাউন্ডারি দিয়েছেন।
  • ১৮ তম ওভারে ১৭ রান দিলেন আন্দ্রে রাসেল। ব্যাঙ্গালোরের স্কোর ২ উইকেটে ১৬৫। ২৬ বলে ৫৭ রানে অপরাজিত এবি ডি'ভিলিয়ার্স। ২২ বলে ২১ রান করেছেন বিরাট কোহলি। এখনও কোনও বাউন্ডারি মারতে পারেননি তিনি।
  • দুই মহাতরকা - যেদিন থেকে জুটি তৈরি হয়েছে, সেদিন থেকে ঘুম উঠেছে বোলারের। বিরাট কোহলি ও এবি ডি'ভিলিয়ার্স আইপিএলে ৩,০০০ রানের পার্টনারশিপের মাইলস্টোন ছাপিয়ে গেলেন।
  • আগেরদিন ছিলেন বিরাট। সোমবার ডেথ ওভারে ঝড়ের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে দিলেন এবি ডি'ভিলিয়ার্স। ১৮ তম ওভারের দু'বলে চার ও ছক্কা মেরে ২৩ বলে ৫০ পূরণ করলেন।
  • চার ওভারে প্যাট কামিন্স দিলেন ৩৮ রান। কোনও উইকেট পাননি।
  • চেন্নাই সুপার কিংসের বিরুদ্ধে শেষ চার ওভারে পার্থক্য গড়ে দিয়েছিলেন বিরাটরা। এবার কেকেআরের বিরুদ্ধেও ১৬ তম ওভার থেকে রানের গতি বাড়িয়ে নিল ব্যাঙ্গালোর। ১৭ তম ওভারে এল ১৯ রান। ব্যাঙ্গালোরের স্কো ২ উইকেটে ১৪৮ রান।
  • পরপর স্লো বল করছিলেন। সেই বলের জন্য ব্যাকফুটে তৈরি হয়েছিলেন এবি ডি'ভিলিয়ার্স। দ্বিতীয় বলে সেভাবে মিস করেছিলেন। পরের দুটি বলে ভুল করেননি। দুটি ছক্কা মারে। ভালো শুরু করেও ধরে রাখতে পারলেন নাগরকোটি। ১৬ তম ওভারে উঠল ১৮ রান। ব্যাঙ্গালোরের স্কোর ২ উইকেটে ১২৯ রান।
  • প্রথম ৬ ওভারে উঠেছিল ৪৭ রান। পরের ৯ ওভারে ৬৪ রান তুলল ব্যাঙ্গালোর।
  • ১৫ তম ওভারে উঠল চার রান। ব্যাঙ্গালোরের স্কোর ২ উইকেটে ১১১ রান।
  • শারজায় রীতিমতো দাপুটে বোলিং কমলেশ নাগরকোটির। শেষ ম্যাচ খুব একটা ভালো পারফরম্যান্স করতে পারেননি। এই ম্যাচে বিরাট কোহলিদের ব্যাটসম্যানকে গতিতে বোকা বানাচ্ছেন। নিজের তৃতীয় ওভারে দিলেন আট রান। ১৪ ওভারে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর ২ উইকেটে ১০৭ রান।
  • ১৩ তম ওভারে উঠল ন'রান। ব্যাঙ্গালোরপের স্কোর ২ উইকেটে ৯৯ রান। ক্রিজে আঠেন বিরাট কোহলি ও এবি ডি'ভিলিয়ার্স।
  • প্রথম বলেই চার খেয়েছিলেন। কিন্তু তাতে দমেননি। পরের বলেই দুরন্ত ইনসুইয়িং ইয়র্কারে অ্যারন ফিঞ্চের স্টাম্প নড়িয়ে দিলেন প্রসিধ কৃষ্ণা। ১২.২ ওভারে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর ২ উইকেটে ৯৪ রান। ৩৭ বলে ৪৭ রান করেন ফিঞ্চ।
  • অসাধারণ ওভার করলেন কমলেশ নাগরকোটি। গতিতে বিরাট কোহলিকে দু'বার বোকা বানালেন। সেই ওভারে উঠল চার রান। ১২ ওভারে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর এক উইকেটে ৯০।
  • ক্রমশ স্লো হচ্ছে শারজার উইকেট। প্রথম চার ওভারের পর রানের গতি অনেকটা কমিয়েছে নাইট বোলাররা। ৬ ওভারের স্কোর ছিল বিনা উইকেটে ৪৭ রান। ১১ ওভারে তা দাঁড়াল এক উইকেট ৮৬।
  • প্রথম ওভার করলেন কমলেশ নাগরকোটি। দশম ওভারে উঠল ছ'রান। অর্ধেক ইনিংসে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর এক উইকেটে ।
  • সেই উইকেটের সঙ্গে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৩০০ টি উইকেট নেওয়ার নজির গড়লেন রাসেল।
  • অবশেষে ওপেনিং জুটি ভাঙলেন আন্দ্রে রাসেল। দেবদূত পাড়িক্কালের স্টাম্প পুরো ছিটকে দিলেন। ইনসাইড আউট ড্রাইভ মারতে গিয়ে ফিরলেন প্যাভিলিয়নে। ৭.৪ ওভারে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর এক উইকেটে ৬৭ রান।
  • কলকাতা নাইট রাইডার্সের ক্যাচ ফেলার রোগ সারল না। পরপর ডট বল করে ফিঞ্চের উপর চাপ বাড়িয়েছিলেন আন্দ্রে রাসেল। কিন্তু শেষ বলে শর্ট ফাইন লেগে কমলেশ নাগরকোটি ক্যাচ ধরতে পারলেন না। কার্যত তাঁর হাতে বল লেগে বেরিয়ে গেল। তা চার হয়ে গেল। রীতিমতো হতাশ আন্দ্রে রাসেল। ছ'ওভারে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর বিনা উইকেটে  ৪৭ রান।
  • কামিন্সের তৃতীয় ওভারে উঠল চার রান। পাঁচ ওভারে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর বিনা উইকেটে ৪১।
  • কামিন্সকে তৃতীয় ওভার দিলেন দীনেশ কার্তিক। কিছুটা অবাক? দলের সেরা বোলারের শেষের দিকে আর এক ওভার পড়ে থাকবে। যদিও গত দু'ম্যাচেই ডেথ ওভারে বল করেননি কামিন্স।
  • ছন্দ পাচ্ছেন না প্রসিধ কৃষ্ণা। তাঁর দ্বিতীয় ওভারে উঠল ১০ রান। চার ওভারে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর বিনা উইকেটে ৩৭।
  • কেমন খেলেন টম ব্যান্টন, একনজরে দেখে নিন KKR-র অভিষেকারীর পারফরম্যান্স - পড়ুন এখানে
  • কামিন্সকে এবার আক্রমণের পথে হাঁটলেন পাড়িক্কাল। পরপর দু'বলে দুটি চার মারলেন। তৃতীয় ওভারে উঠল আট রান। ব্যাঙ্গালোরের স্কোর বিনা উইকেটে ২৭।
  • দ্বিতীয় ওভারে উঠল ১১ রান। দু'ওভার শেষে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর বিনা উইকেটে ১৯।  প্রসিধ কৃষ্ণাকে ছক্কা মারলেন ফিঞ্চ।
  • প্রথম ওভারে জমল দুই অজি তারকার লড়াই। তৃতীয় বলেই কামিন্সকে চার মারেন ফিঞ্চ। শেষপর্যন্ত প্রথম ওভারে বিনা উইকেটে আট রান তোলে ব্যাঙ্গালোর।
  • শুরু হয়ে গিয়েছে খেলা। বল হাতে প্যাট কামিন্স। ব্যাট হাতে অ্যারন ফিঞ্চ।
  • কলকাতা নাইট রাইডার্সের প্রথম একাদশ : রাহুল ত্রিপাঠী, শুভমন গিল, টম ব্যান্টন, নীতিশ রানা, ইয়ন মর্গ্যান, দীনেশ কার্তিক, আন্দ্রে রাসেল, প্যাট কামিন্স, কমলেশ নাগরকোটি, প্রসিধ কৃষ্ণা এবং বরুণ চক্রবর্তী।
  • সন্দেহজনক বোলিং অ্যাকশনের রিপোর্ট জমা পড়ার পরই বাদ পড়লেন সুনীল নারিন। তবে খেলছেন আন্দ্রে রাসেল। কিন্তু বোলারের পরিবর্তে টম ব্যান্টনকে খেলিয়ে বোলিংয়ের উপর কিছুটা চাপ বাড়াল নাইট শিবির। কারণ আগের থেকে স্লো হয়েছে শারজার পিচ।
  • দলে একটাই পরিবর্তন। দলে এসেছেন মহম্মদ সিরাজ। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের প্রথম একাদশ : দেবদূত পাড়িক্কাল, অ্যারন ফিঞ্চ, বিরাট কোহলি, এবি ডি'ভিলিয়ার্স, ওয়াশিংটন সুন্দর, শিবম দুবে, ক্রিস মরিস, উশুরু উডানা, নভদীপ সাইনি, মহম্মদ সিরাজ এবং যুজবেন্দ্র চহাল।
  • অবশেষে আইপিএলে অভিষেক হচ্ছে টম ব্যান্টনের। তাঁর হাতে কেকেআরের টুপি তুলে দিলেন ইয়ন মর্গ্যান।
  • টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর।

বন্ধ করুন