বাংলা নিউজ > ময়দান > IPL 2022 Auction: ‘এখন ছবি দিয়ে নাটক করছেন কেন?’ গিল নয়া দলে যেতেই নেটিজেনদের তোপের মুখে পড়ল KKR
তখন ‘নাইট’ ছিলেন শুভমন গিল। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে ফেসবুক @KolkataKnightRiders)
তখন ‘নাইট’ ছিলেন শুভমন গিল। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে ফেসবুক @KolkataKnightRiders)

IPL 2022 Auction: ‘এখন ছবি দিয়ে নাটক করছেন কেন?’ গিল নয়া দলে যেতেই নেটিজেনদের তোপের মুখে পড়ল KKR

  • ‘ঘরের ছেলেকে’ রেখে দেয়নি কেকেআর। সেই পরিস্থিতিতে অনেকেই জানান, শুভমন যে এবার বেগুন-হলুদ জার্সি পরে নামবেন না, তা মানতে পারছেন না।

‘ঘরের ছেলেকে’ রিটেন করা হয়নি। বরং নিলামের আগেই ড্রাফট খেলোয়াড় হিসেবে বেছে নিয়েছে আমদাবাদ ফ্র্যাঞ্জাইজি। তারপরই শুভমন গিলকে আগামীদিনের জন্য শুভেচ্ছা জানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)। তা নিয়ে তোপের মুখে পড়ল নাইট কর্তৃপক্ষ। কেউ কেউ বললেন, ‘এই সব ছবি দিয়ে আর নাটক করার কী আছে!’

এবার নিলামের আগে যে চারজনকে রিটেন করেছে কেকেআর, সেই তালিকায় শুভমন ছিলেন না। পরবর্তীতে আট কোটি টাকা দিয়ে কেকেআরের ‘ঘরের ছেলেকে’ দলে নিয়েছে আমদাবাদ ফ্র্যাঞ্জাইজি। তারপর ‘ঘরের ছেলেকে’ শুভেচ্ছা জানিয়ে একাধিক ছবি এবং ভিডিয়ো পোস্ট করেছে কেকেআর। তাতেই চটে গিয়েছেন নেটিজেনদের একাংশ। তেমনই একজন বলেন, ‘গিলকে তো ছেড়ে দিলেন। এই সব ছবি দিয়ে আর নাটক করার কী আছে! গিলকে ক্যাপ্টেন হিসেবে দলে রাখা যেত। বেশি টাকা দিয়ে অন্য ক্যাপ্টেন আনার কোনও যুক্তি নেই। কেকেআর টিম ম্যানেজমেন্ট ভালো নয়।’ একইসুরে অপর এক নেটিজেন বলেন, ‘কেন আপনারা শুভমন গিলের ছবি পোস্ট করছেন? আপনারা আমাদের সহানুভূতি দেখাচ্ছেন? আমাদের অনুভূতি নিয়ে ছিনিমিনি খেলছেন আপনারা। আমি এই পেজ আনফলো করে দেব। বাকিদের জন্য শুভেচ্ছা রইল। এখন থেকে আমি আর কেকেআরের সমর্থক থাকব না।’

২০১৮ সালে শুভমনকে দলে নিয়েছিল কেকেআর। প্রথম মরশুমে ১৩ টি ম্যাচ খেলেছিলেন। গড় ছিল ৩৩.৮৩। ২০১৮ সালেও ভালো ছন্দে ছিলেন। তাঁকে রিটেন করেছিল কেকেআর। ভবিষ্যতের তারকা হিসেবে তাঁকে দেখা হয়েছিল। কেকেআরের নেতৃত্ব প্রদানকারী গোষ্ঠীরও গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন। গতবারের আইপিএলেও নাইটদের ওপেন করেন। সার্বিকভাবে তেমন ফর্মে ছিলেন না। তাও ১৭ ম্যাচে ৪৭৮ রান করে দলের কেকেআরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন। তাই অনেকেই ভেবেছিলেন, গিলকে রাখা হবে। এমনকী নাইটদের অধিনায়কত্বের ব্যাটনও তাঁর হাতে উঠতে পারে। কিন্তু সেটা হয়নি।

সেই পরিস্থিতিতে অনেকেই জানান, শুভমন যে এবার বেগুন-হলুদ জার্সি পরে নামবেন না, তা মানতে পারছেন না। একজন লেখেন, ‘তোমায় মিস করছি। মিস করব তোমায়।’ অপর এক নেটিজেন বলেন, ‘শুভমন আজীবন কেকেআরের হয়ে খেলতে চেয়েছিলেন। নিজেই সেই কথা একটি ভিডিয়োয় জানিয়েছিলেন। আমায় সবাই গিলকে মিস করব।’ একজন আবার কান্নার ইমোজি দিয়ে বলেন, ‘শুভমান গিল'কে আর আমি কখনও কলকাতা হয়ে দেখতে পারব না।’ এক নেটিজেন বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে চেয়েছিলাম যে ওকে যেন কেকেআর না ছেড়ে দেয়। কারণ এই ম্যানেজমেন্টের অধীনে কয়েকজন খেলোয়াড়কে আমি নাইট হিসেবে গড়ে উঠতে দেখেছিলাম। কাউকে বিদায় জানানো এবং অন্য জার্সি পরে খেলতে দেখার বিষয়টি মোটেও সহজ নয়। যাই হোক, গিল তোমায় মিস করব এবং ভবিষ্যতে তোমার সাফল্য কামনা করছি। কারণ ও যখন বলেছিল, যদি সম্ভব নয়, তাহলে আমি চিরকাল কেকেআরের হয়ে খেলতে চাই, আমরা সেটাই চেয়েছিলাম। কিন্তু কিছু জিনিস হয়ত ঠিকঠাক হয় না। যাই হোক, বিদায় নাইট।’

বন্ধ করুন