বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2021 > MI-এর মিডল অর্ডারে ধস নামিয়ে হ্যাটট্রিক করার পাশাপাশি নয়া নজির গড়লেন হার্ষাল
মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করেন হার্ষাল প্যাটেল।
মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করেন হার্ষাল প্যাটেল।

MI-এর মিডল অর্ডারে ধস নামিয়ে হ্যাটট্রিক করার পাশাপাশি নয়া নজির গড়লেন হার্ষাল

  • এই মরশুমে দুই দলের প্রথম সাক্ষাতে অনামী হার্ষালের উত্থান দেখেছিল গোটা ক্রিকেটবিশ্ব। রবিবাসরীয় রাতে পুনরায় হার্ষাল প্যাটেল ঝড়ে উড়ে গেল মুম্বইয়ের মিডল অর্ডার। মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে পাঁচ উইকেট নেওয়ার পর দুবাইতে পল্টনদের বিরুদ্ধে মাত্র ৩.১ ওভার হাত ঘুরিয়ে চার উইকেট নেন হার্ষাল।

ব্যাট এবং বল হাতে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ধামাকা যেমন রবিবার রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গলোরকে অক্সিজেন দিয়েছিল, তেমনই বল হাতে হর্ষল প্যাটেলের পারফরম্যান্স ব্যাঙ্গালোরের জয়ের রাস্তা প্রশস্ত করেছিল। ১৭ তম ওভারে হার্দিক পাণ্ডিয়া, কায়রন পোলার্ড, রাহুল চাহারকে পরপর তিন বলে ফেরান হর্ষল। সেই সঙ্গে আরসিবির তৃতীয় প্লেয়ার হিসেবে হ্যাটট্রিক করেন তিনি। আর হর্ষলের এই ধাক্কায় মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের যেটুকু ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ ছিল, সেটাও শেষ হয়ে যায়। এরই সঙ্গে হার্ষাল গড়ে ফেললেন নতুন নজিরও।

জাতীয় দলের সুযোগ না পেয়েও আইপিএলে সবচেয়ে বেশি উইকেট নেওয়ার নজির গড়লেন হার্ষাল। তিনি এই বছর এখনও পর্যন্ত মোট ২৩টি উইকেট নিয়েছেন। আনক্যাপড বোলারদের মধ্যে এক মরশুমে এখনও পর্যন্ত এটাই সর্বোচ্চ। তবে এই সংখ্যাটা আরও বাড়বে। কারণ কোনও বড় অঘটন না ঘটলে ব্যাঙ্গালোরের হয়ে তিনি এই বছর আরও ম্যাচ খেলবেন।

এই তালিকায় হর্ষলের সঙ্গে এই মুহূর্তে যুগ্ম ভাবে শীর্ষে রয়েছেন যুজবেন্দ্র চাহাল। ২০১৫ সালে তিনিও আরসিবি-র জার্সিতে একই মরশুমে ২৩টি উইকেট নিয়েছিলেন। এত দিন পর্যন্ত এটাই ছিল আনক্যাপড প্লেয়ারদের মধ্যে সর্বোচ্চ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড। সেই রেকর্ডই রবিবার স্পর্শ করলেন হার্ষাল। তবে আরসিবি-র পরের ম্য়াচগুলোতে চাহালকে ছাপিয়ে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ রয়েছে হার্ষালের সামনে। সে ক্ষেত্রে একক ভাবেই আনক্যাপড প্লেয়ার হিসেবে সর্বোচ্চ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড গড়বেন তিনি। ২০১১ সালে ২১টি উইকেট নিয়েছেন আরও এক আনক্যাপড প্লেয়ার শ্রীনাথ অরবিন্দ। তিনিও ব্যাঙ্গালোরের জার্সিতে এই রেকর্ড গড়েছিলেন। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে সিদ্ধার্থ কাউল ২০১৮ সালে ২১টি উইকেট নিয়েছিলেন।

রবিবার মরুশহরে আইপিএলের ৩৯ নম্বর ম্য়াচে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের মুখোমুখি হয়েছিল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। এই মরশুমে দুই দলের প্রথম সাক্ষাতে অনামী হার্ষালের উত্থান দেখেছিল গোটা ক্রিকেটবিশ্ব। রবিবাসরীয় রাতে পুনরায় হার্ষাল প্যাটেল ঝড়ে উড়ে গেল মুম্বইয়ের মিডল অর্ডার।

মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে পাঁচ উইকেট নেওয়ার পর দুবাইতে পল্টনদের বিরুদ্ধে মাত্র ৩.১ ওভার হাত ঘুরিয়ে চার উইকেট নেন হার্ষাল। ম্যাচের এক সময়ে আরসিবির দেওয়া ১৬৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে বেশ ভাল জায়গায় ছিল মুম্বই। ক্রিজে ছিলেন আইপিএলের অন্যতম সেরা দুই ফিনিশার কায়রন পোলার্ড এবং হার্দিক পান্ডিয়া। তবে ১৭তম ওভারে হার্ষালের তিনটি বলই ম্যাচের রং বদলে দেয়। পরপর দুই বলে জুনিয়র পান্ডিয়া এবং কায়রন পোলার্ডকে তো আউট করেনই, তৃতীয় বলে রাহুল চাহারের উইকেট নিয়ে নিজের হ্যাটট্রিকও পূর্ণ করেন হার্ষাল। এর পর মুম্বইয়ের হাত থেকে ম্যাচও পুরোপুরি বেরিয়ে যায়।

বন্ধ করুন