বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2022 > ঝগড়া ভুলে এখন কাছের বন্ধু, IPL শেষে RR জার্সিতে অশ্বিনের সইকে স্মৃতি করে দেশে ফিরলেন বাটলার-ভিডিয়ো
২০১৯-এর শত্রুতা ভুলে এখন অশ্বিন এবং বাটলার কাছের বন্ধু।

ঝগড়া ভুলে এখন কাছের বন্ধু, IPL শেষে RR জার্সিতে অশ্বিনের সইকে স্মৃতি করে দেশে ফিরলেন বাটলার-ভিডিয়ো

  • বছর তিনেক আগে রাজস্থান-পঞ্জাব ম্যাচে বল করার সময়ে অশ্বিন দেখেন, রান নেওয়ায় তাড়নায় ক্রিজ ছেড়ে অনেকটা বের হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছেন নন স্ট্রাইকার বাটলার। সঙ্গে সঙ্গে ডেলিভারি না করে নন স্ট্রাইকার প্রান্তের উইকেট ভেঙে দেন অশ্বিন। আউট হয়ে যান বাটলার। ম্যাচ হেরে যায় রাজস্থান।

রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবং জোস বাটলার ২০১৯ আইপিএলে একটি রান আউটকে কেন্দ্র করে তীব্র ঝগড়ায় জড়িয়েছিলেন। দুই তারকার মধ্যে তুমুল কথা কাটাকাটি হয়েছিল সেই সময়ে। তার মাঝে ৩ বছর পার হয়ে গিয়েছে। ২০২২ আইপিএলে একই টিমে খেলতে গিয়ে ৩ বছর আগের ঝগড়া ভুলে কাছের বন্ধু হয়ে উঠেছেন অশ্বিন এবং বাটলার।

বছর তিনেক আগে তখনও রাজস্থানের হয়ে খেলতেন বাটলার। অশ্বিন খেলতেন কিংস ইলেভেন পঞ্জাবে (বর্তমানে পঞ্জাব কিংস)। রাজস্থান-পঞ্জাব ম্যাচে বল করার সময়ে অশ্বিন দেখেন, রান নেওয়ায় তাড়নায় ক্রিজ ছেড়ে অনেকটা বের হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছেন নন স্ট্রাইকার বাটলার। সঙ্গে সঙ্গে ডেলিভারি না করে নন স্ট্রাইকার প্রান্তের উইকেট ভেঙে দেন অশ্বিন। আউট হয়ে যান বাটলার। ম্যাচ হেরে যায় রাজস্থান।

বাটলারকে ওই ভাবে আউট করা ‘অক্রিকেটীয়’ কি না, তা নিয়ে সেই সময়ে ব্যাপক বিতর্ক হয়েছিল। ক্রিকেটপ্রেমীদের কড়া সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল ভারতের তারকা অফস্পিনারকে। তবে অশ্বিনের যুক্তি ছিল, এই ভাবে আউট করাটা মোটেও অসাংবিধানিক নয়। ক্রিকেটের পরিভাষায় একে ‘মাঁকড়ীয়’ আউট বলে।

আরও পড়ুন: দল হারলেও পুরস্কার পেয়েই সবচেয়ে ধনী বাটলার, দেখে নিন সেই তালিকা

আরও পড়ুন: ২জনেই যেন মহাভারতের কর্ণ, কাকতালীয় হলেও ৬বছরের ব্যবধানে কোহলি-বাটলারকে মেলাল IPL

তবে এই মরশুমে রাজস্থান রয়্যালস অশ্বিনকে দলে নেয়। বাটলার তো আগে থেকেই ছিলেন। তার পর থেকে, অশ্বিন এবং বাটলার একসঙ্গে অনুশীলন করেছেন, মাঝখানে একসঙ্গে ব্যাট করেছেন যখন অশ্বিন রয়্যালসের হয়ে কয়েকটি ম্যাচে তিনে ব্যাটিং করেছিলেন। এমন কী এই দুই তারকা একই সঙ্গে খোশমেজাজে একটি ভিডিয়ো সাক্ষাত্কারেও উপস্থিত হয়েছিলেন। আর তাঁদের বন্ধুত্ব গাঢ় হওয়ার ছবিটি ধরা পড়ল আইপিএল শেষে। যখন বাটলার তাঁর রাজস্থান রয়্যালসের একাধিক জার্সিতে অশ্বিনের সই নিয়ে দেশে ফিরলেন। বন্ধুর স্মৃতিটুকু রেখে দেওয়ার জন্য। তবে দলের অন্যদের দিয়েও তিনি জার্সিতে সই করিয়েছেন। আসলে আইপিএলের স্মৃতি যে বড় 

বাটলার এ বার আইপিএলে অরেঞ্জ ক্যাপ জিতেছেন। তাঁর দল চ্যাম্পিয়ন না হলেও ছ'টি পুরস্কার একাই জিতেছেন ব্রিটিশ তারকা। রাজস্থানের হয়ে বাটলার ১৭ ম্যাচে ৫৭.৫৩ গড়ে এবং ১৪৯.০৫ স্ট্রাইকরেটে ৮৬৩ রান করেছেন। আইপিএলের একক সংস্করণে টুর্নামেন্টের ইতিহাসে এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান। বিরাট কোহলি এক মরশুমে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন। ২০১৬ সালে তিনি ৯৭৩ রান করেছিলেন।

বাটলারের অবদান নিঃসন্দেহে অবিস্মরণীয়। তবে অশ্বিনও কিন্তু খারাপ খেলেননি। কখনও বল হাতে, আবার কখনও ব্যাট হাতে তিনি দুরন্ত ছিলেন। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ একা দায়িত্ব নিয়ে ব্যাট-হাতে জিতিয়েছিলেন অশ্বিন। ফাইনালে অবশ্য বাটলার এবং অশ্বিন- দুই তারকাই কার্যত ব্যর্থ হন।

বন্ধ করুন