বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2022 > পরিবর্ত হিসেবে RCB যোগ, সেই পতিদারই IPL Eliminator-এ শতরান করে নয়া রেকর্ড গড়লেন
নয়া নজির রজত পতিদারের। ছবি: পিটিআই

পরিবর্ত হিসেবে RCB যোগ, সেই পতিদারই IPL Eliminator-এ শতরান করে নয়া রেকর্ড গড়লেন

  • রজত পতিদার এ দিন যাবতীয় ফোকাস কেড়ে নেন। তাঁকে আইপিএলের নিলামে কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজি কেনেইনি। কিন্তু তাঁর ভাগ্য খোলে, যখন আরসিবি তাদের লিগের দ্বিতীয় ম্যাচের পর বড় ধাক্কা খান। কারণ চোটের জন্য গোটা আইপিএল মরশুম থেকে ছিটকে যান লুবনিথ সিসোদিয়া। সিসোদিয়ার জায়গায় দলে নেওয়া হয়েছিল রজত পতিদারকে।

আইপিএল ২০২২-এর এলিমেনটর ম্যাচে ইডেনের যাবতীয় ফোকাস কেড়ে নিলেন রজত পতিদার। বিরাট কোহলির চার ছয় দেখতে ইডেনে বুধবার ভিড় করেছিল কলকাতার ক্রিকেট প্রেমীরা। গোটা দেশ, এমন কী বিশ্ব ক্রিকেটেরও চোখ ছিল টিভি-র পর্দায়। তবে বিরাট কোহলি পুরো ফ্লপ। কিন্তু সেই দুঃখ ভুলিয়ে দিলেন রজত পতিদার। তাঁর বিধ্বংসী মেজাজে একেবারে ল্যাজেগোবরে দশা হয় লখনউ সুপার জায়ান্টস বোলারদের। সেই সঙ্গে এলিমেনটর ম্যাচে শতরান করে নতুন রেকর্ড গড়ে ফেলেন রজত পতিদার।

রজত পতিদার এ দিন যাবতীয় ফোকাস কেড়ে নেন। তাঁকে আইপিএলের নিলামে কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজি কেনেইনি। কিন্তু তাঁর ভাগ্য খোলে, যখন আরসিবি তাদের লিগের দ্বিতীয় ম্যাচের পর বড় ধাক্কা খান। কারণ চোটের জন্য গোটা আইপিএল মরশুম থেকে ছিটকে যান লুবনিথ সিসোদিয়া। সিসোদিয়ার জায়গায় দলে নেওয়া হয়েছিল রজত পতিদারকে। সেই পতিদারই এলিমেনটরে তাণ্ডব চালিয়ে আরসিবি-কে পার করিয়ে দেন ২০০ রানের গণ্ডি। সঙ্গে আইপিএলের ইতিহাসে নজির গড়েন পতিদার।

আইপিএলের ইতিহাসে রজত পতিদার প্রথম প্লেয়ার, যিনি এলিমেনটর ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকালেন। এই রেকর্ড কিন্তু নেই কোনও বড় নামেরও। সেই সঙ্গে আনক্যাপড ক্রিকেটার হিসেবে দ্রুততম শতরানের নজিরও গড়েন পতিদার। ৪৯ বলে এ দিন সেঞ্চুরি হাঁকান তিনি। যা আনক্যাপড ক্রিকেটারদের মধ্যে দ্রুততম।

আরও পড়ুন: রজত-কার্তিকদের একের পর এক ক্যাচ মিস LSG-র,গোতির থেকে বকা খাওয়া নিশ্চিত

ম্যাচের লাইভ আপডেট জানতে ক্লিক করুন এখানে: https://bangla.hindustantimes.com/sports/ipl/ipl-2022-eliminator-live-score-and-update-of-lsg-vs-rcb-playoff-match-at-eden-gardens-in-kolkata-31653483745027.html

এ দিন অবশ্য দু'বার জীবনদান পেয়েছেন রজত। প্রথম বার তাঁর ক্যাচ পড়ে ১৫.৩ ওভারে। রবি বিষ্ণোইয়ের বলে রজতের ক্যাচ ছাড়েন দীপক হুডা। একেবারে সহজ ক্যাচ ছিল। উল্টে ক্যাচ মিস করায় সেটি চার হয়ে যায়। তার আগের বলেই পতিদার একটি ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন। যখন পতিদারের ক্যাচ পড়ে, তখন তাঁর সংগ্রহ ছিল ৭২ রান।

এর পর ফের ১৭.৩ ওভারে মহসিন খানের বলে পতিদারের ক্যাচ ধরতে পারেননি ভোরা। সেই বলে ২ রান হয়। আর পরের বলেই ছক্কা হাঁকিয়ে সেঞ্চুরি পূরণ করেন পতিদার। দু'বার জীবনদান পেয়ে শেষ পর্যন্ত ৫৪ বলে ১১২ রান করে অপরাজিত থাকেন পতিদার।

আবার ১৪.৫ ওভারে মহসিনের বলেই কার্তিকের ক্যাচ ছাড়েন লোকেশ রাহুল। তখন দীনেশ কার্তিকের রান ছিল ২। আর কার্তিক তাঁর ইনিংস শেষ করে ২৩ বলে অপরাজিত ৩৭ রানে। আর ব্যাঙ্গালোর করে ফেলে নির্দিষ্ট ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ২০৭ রান।

বন্ধ করুন