বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2022 > KKR Strategy: নাইটদের ভবিষ্যৎ হওয়ার কথা ছিল বিশ্বকাপজয়ী ৩ তরুণের! ৫ বছরের মধ্যেই পত্রপাঠ বিদায়

KKR Strategy: নাইটদের ভবিষ্যৎ হওয়ার কথা ছিল বিশ্বকাপজয়ী ৩ তরুণের! ৫ বছরের মধ্যেই পত্রপাঠ বিদায়

২০১৮ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে শিবম মাভি, শুভমন গিল এবং কমলেশ নাগরকোটি। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে আইসিসি/গেটি ইমেজস এবং এএফপি)

KKR Strategy: ২০১৮ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের তিন তারকা ছিলেন শুভমন গিল, কমলেশ নাগরকোটি এবং শিবম মাভি। পাঁচ বছর কাটতে না কাটতেই তিনজনকেই ছেড়ে দিয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের তারকা ছিলেন তিনজন। অনেকেই ভেবেছিলেন, কলকাতা নাইট রাইডার্সের (কেকেআর) স্তম্ভ হয়ে উঠবেন শুভমন গিল, কমলেশ নাগরকোটি এবং শিবম মাভিরা। কিন্তু পাঁচ বছর কাটতে না কাটতেই তিনজনকেই ছেড়ে দিয়েছে নাইট বাহিনী। যা নিয়ে অনেকেই হা-হুতাশ করছেন। বিশেষত গিলকে ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টা মানতে পারেন না অনেকেই।

গতবার আইপিএলের মেগা নিলামের আগে গিলকে রিটেন করেনি কেকেআর। অলরাউন্ডার তত্ত্বের পিছনে ছুটে বেঙ্কটেশ আইয়ারকে রিটেন করা হয়েছিল (একাংশের আবার বক্তব্য, বরুণ চক্রবর্তীকে না ধরে রেখে গিলকে রিটেন করা উচিত ছিল)। যে সিদ্ধান্তে অনেকে অবাক হয়েছিলেন। কারণ ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম প্রতিভাবান তারকা হলেন গিল। তাঁকে তো নাইটদের পরবর্তী অধিনায়ক হিসেবেও ভাবা হচ্ছিল।

নাইটদের হয়ে যে গিলের পারফরম্যান্সের তেমন খারাপ ছিল, সেটাও নয়। খুব মারকুটে ব্যাটার না হলেও ওপেনিংয়ে যথেষ্ট ভরসাযোগ্য ছিলেন। স্ট্রাইক রেট নিয়েই কিছুটা সমস্যা ছিল। যদিও অন্য কেকেআরের খেলোয়াড়দের যে দারুণ কিছু স্ট্রাইক রেট ছিল, তেমনটা নয়। সার্বিকভাবে গিলের গড় ছিল ৩২-র বেশি। যিনি ২০১৮ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন (৩৭২ রান করেছিলেন)। 

আরও পড়ুন: রাহানে-মাভিদের ছেড়ে দিয়ে KKR কি ভুল করেছে? বিজয় হাজারে ট্রফির পারফরম্যান্স দেখলেই বুঝতে পারবেন

২০১৮ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে গিলের অপর সতীর্থ কমলেশের ক্ষেত্রে অবশ্য ছবিটা কিছুটা আলাদা ছিল। চোটের জন্য ২০২০ সালে কেকেআরের জার্সিতে অভিষেক হয়েছিল। তাঁকে চোটের সময় পুরোপুরি সমর্থন জুগিয়েছিল। কিন্তু ২০২০ সালে তেমন সফল না হওয়ায় ২০২২ সালের আইপিএলের মেগা নিলামের আগে তাঁকে ছেড়ে দিয়েছিল কেকেআর। নিলামে কেনা হয়নি। বরং নাগরকোটিকে নিয়েছিল দিল্লি ক্যাপিটালস।

আরও পড়ুন: IPL 2023 Auction: নিলামে সব থেকে কম টাকা হাতে থাকবে KKR-এর, কারা পকেট ভরে টাকা নিয়ে নামছে, জেনে নিন

তবে নাগরকোটির মতো ভাগ্যের শিকার হতে হয়নি মাভিকে। তাঁকে যথেষ্ট সুযোগ দিয়েছিল কেকেআর। প্যাট কামিন্সের মতো বোলারদের সঙ্গে তাঁকে খেলানো হয়েছিল। প্রথম মরশুমে (২০১৮ সাল) ফ্লপ হলেও তাঁকে রেখেছিল কেকেআর। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় মরশুমে সেই ভরসা মর্যাদা রেখেছিলেন। বিশেষত ২০২১ সালের আইপিএলে ভালো ছন্দে ছিলেন। তাই তাঁকে মেগা নিলামে ফের দলে নিয়েছিল। কিন্তু গতবারের আইপিএলে একেবারেই সাফল্য পাননি ২০১৮ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের আরও এক তারকা। যাঁর গতি নজর কেড়েছিল বিশেষজ্ঞদের।

বন্ধ করুন