বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2021 > আইপিএল-এর জৈব সুরক্ষা বলয়ের প্রশংসা করলেন দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের কর্তা গ্রেম স্মিথ
দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের কর্তা ও প্রাক্তন ক্রিকেটার গ্রেম স্মিথ(ছবি: টুইটার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের কর্তা ও প্রাক্তন ক্রিকেটার গ্রেম স্মিথ(ছবি: টুইটার)

আইপিএল-এর জৈব সুরক্ষা বলয়ের প্রশংসা করলেন দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের কর্তা গ্রেম স্মিথ

  • ভারতীয় বোর্ডের তৈরি করা জৈব সুরক্ষা বলয়কে দরাজ সার্টিফিকেট দিল দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড। প্রোটিয়াদের তরফ থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের ডিরেক্টর গ্রেম স্মিথ জানিয়েছেন, ভারতীয় জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে নিরাপদেই ছিলেন তাঁদের দেশের ক্রিকেটাররা।

আপাতত স্থগিত করা হয়েছে ২০২১ আইপিএল। ভারতীয় ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগের ১৪তম সংস্করণে প্রবেশ করেছিল করোনা। বিসিসিআই-এর তৈরি করা কঠিন বায়ো বাবলকে ভেঙে দিয়েছিল কোভিড-১৯। এরপরেই আইপিএল-এর বায়ো বাবল নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। 

অজি তারকা জাম্পা ভারতীয় বোর্ডের জৈব সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এরপর একে একে অনেকেই বোর্ডের জৈব সুরক্ষা নিয়ে সমালোচনা করতে থাকেন। বিসিসিআই-ও নিজেদের ফাঁক খোজার চেষ্টা করেন। 

এমন অবস্থায় ভারতীয় বোর্ডের তৈরি করা জৈব সুরক্ষা বলয়কে দরাজ সার্টিফিকেট দিল দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড। প্রোটিয়াদের তরফ থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের ডিরেক্টর গ্রেম স্মিথ জানিয়েছেন, ভারতীয় জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে নিরাপদেই ছিলেন তাঁদের দেশের ক্রিকেটা

ররা।     

 

আইপিএল মাঝপথে বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর অনেকেই জৈব সুরক্ষা বলয় নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। কিন্তু এই ব্যবস্থাকে দরাজ শংসাপত্র দিলেন গ্রেম স্মিথ। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটের কর্তা জানিয়েছেন, তাঁর দেশের ক্রিকেটাররা নিরাপদেই ছিলেন। স্মিথ বলেছেন, ‘আমি ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলেছি। ওরা জানিয়েছে, বলয়ে প্রত্যেকে নিরাপদেই ছিল। ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে এমনটা কখনও মনে হয়নি ওদের। কিন্তু সাবধানে থাকা সত্ত্বেও কোভিডকে এড়ানো গেল না।’

এরপরে ভারতীয় বোর্ডকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, ‘প্রত্যেকে যাতে নিরাপদে বাড়ি ফেরে, সেটার উপর নজর রেখেছে ভারতীয় বোর্ড। আমাদের সীমান্ত বন্ধ ছিল না। বাণিজ্যিক বিমানও চালু রয়েছে। তাই কারোর ফিরতে অসুবিধা হবে না।’

দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা ইতিমধ্যেই জোহানেসবার্গের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন। স্মিথ জানিয়েছেন, জৈব সুরক্ষা বলয় কখনওই সম্পূর্ণ নিরাপদ নয়। দেশে কোভিড ছেয়ে গেলে বলয়ে তার প্রবেশ আটকানো কঠিন। এক বার ভাইরাস বলয়ে ঢুকে পড়লে যে সমস্যা অনেকটাই বেড়ে যায়, সেটাও মেনে নিয়েছেন স্মিথ।

বন্ধ করুন