বাংলা নিউজ > ময়দান > শেষ কয়েক বছরে IPL-এ ভাল পারফরম্যান্সের সুবাদেই কি T20 WC-এর দলে অশ্বিন?
রবিচন্দ্রন অশ্বিন।
রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

শেষ কয়েক বছরে IPL-এ ভাল পারফরম্যান্সের সুবাদেই কি T20 WC-এর দলে অশ্বিন?

  • শেষ কয়েক বছরে বল হাতে আইপিএলের মঞ্চে ভাল ফল করেছেন অশ্বিন। তার সেই পারফরম্যান্সে ভর করেই তিনি ভারতীয় টি-২০ বিশ্বকাপ দলে জায়গা ফিরে পেয়েছেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

শুভব্রত মুখার্জি : অক্টোবরে আমীরশাহিতে বসতে চলা টি-২০ বিশ্বকাপকে মাথায় রেখে ভারতীয় দল ইতিমধ্যেই ঘোষণা হয়ে গিয়েছে। সেই দল ঘোষণার সব থেকে বড় চমক অবশ্যই রবিচন্দ্রন অশ্বিন। যিনি ২০১৭ সালের পরে ফের একবার ভারতীয় জার্সি গায়ে চাপিয়ে ২২ গজে নামার সুযোগ পাবেন। সাম্প্রতিক সময়ে এই অশ্বিনের নাম সব সময় উঠে এসেছেন খবরের শিরোনামে। টেস্টে ভারতের হয়ে ৪১৩ টি উইকেট শিকার করা অশ্বিনকে আশ্চর্যজনকভাবে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট এখন পর্যন্ত চলতি ভারত বনাম ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজের চারটি টেস্ট হয়ে গেলেও একঠি টেস্টেও খেলায়নি। যে ওভালে তার খেলার সম্ভাবনা সবথেকে বেশি ছিল সেখানেও তিনি সুযোগ না পাওয়াতে বিতর্ক জোরদার দানা বেঁধেছিল। যদিও ওভালে ১৫৭ রানে ভারতের জয় সেই বিতর্ককে আপাতত ধামাচাপা দিতে সক্ষম হয়েছে। তবে টেস্টে ভারতের অন্যতম সেরা বোলার জাতীয় ক্রিকেট দলে সুযোগ না পেলেও তিনি কোন জাদুতে টি-২০ বিশ্বকাপ স্কোয়াডে জায়গা করে নিলেন !

সেই ঘটনা বিভিন্ন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা পর্যালোচনার চেষ্টা করব। আমীরশাহির উইকেট এমনিতেই স্লো। তার উপরে আইপিএল খেলা হয়ার পরে সেই উইকেটেই হবে বিশ্বকাপের ম্যাচ ফলে উইকেট স্বাভাবিক ভাবেই আর ও বেশি স্লো থাকবে তা বলাই বাহুল্য। এই উইকেটে একজন অফ স্পিনারের ভূমিকা কতটা গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে তা বিলক্ষণ জানে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। শুধুমাত্র সেই কারণেই কি দলে অশ্বিন?

শেষ কয়েক বছরে বল হাতে আইপিএলের মঞ্চে ভাল ফল করেছেন অশ্বিন। তার সেই পারফরম্যান্সে ভর করেই তিনি ভারতীয় টি-২০ বিশ্বকাপ দলে জায়গা ফিরে পেয়েছেন বলেই মনে করা হচ্ছে। এমন আবহে ক্রিকেটার অশ্বিনের পরিসংখ্যানের দিকে একটু ফিরে তাকানো যাক। ২০০৯-২১ পর্যন্ত একাধিক ফ্রাঞ্চাইজি দলের হয়ে আইপিএলে খেলেছেন অশ্বিন। আইপিএলে দীর্ঘ দিন ধরে তিনি চেন্নাই সুপার কিংস দলের হয়ে খেলেছেন। এরপর পুনে ওয়ারিয়র্সের খেলার পরে বর্তমানে তিনি দিল্লি ক্যাপিটালস দলের হয়ে খেলছেন। ইতিমধ্যেই তিনি ৩৩৪৪ গুলি বল করে ৩৮৪৮ রান খরচা করে ১৩৯ টি উইকেট শিকার করেছেন তিনি। গড় ২৭.৬৮। তার ইকোনমি রেট ৬.৯০। তার সেরা বোলিং ফিগার ৩৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নেওয়া। প্রথম মরসুম ছাড়া বাকি এমন কোন মরসুম নেই যেখানে তিনি ১০ উইকেটের কম পেয়েছেন। শেষ দুটি মরসুম তার যথেষ্ট ভাল গিয়েছে বল হাতে। ২০১৯ সালে তিনি ১৫ উইকেট নিতে সক্ষম হয়েছিলেন। ২০২০ সালেও তিনি ১৩টি উইকেট নেন। দুই মরসুমেই তার রানের গড় ছিল ওভার প্রতি ৮ রানের নিচে । টি-২০ ক্রিকেটে যা নিঃসন্দেহে অত্যন্ত ভাল। এছাড়াও শেষ ২০১৬ সালের টি-২০ বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। প্রসঙ্গত সেবার সেমিফাইনালে উঠে হারতে হয়েছিল ধোনি বাহিনীকে।

অশ্বিনের দলে অন্তর্ভুক্তির কার্যকারণ সূত্র নিয়ে পর্যালোচনা করতে গিয়ে অনেক বিশেষজ্ঞ ওয়াশিংটন সুন্দরের চোটের প্রসঙ্গ টেনে এনেছেন। তাদের মতে সুন্দরের চোটেই ভাগ্য শিকে ছিড়েছে অশ্বিনের। তবে অনেকেই মনে করেন শেষ কয়েক বছরে আইপিএলে বল হাতে অশ্বিনের ঈর্ষনীয় পারফরম্যান্স তাকে ভারতীয় টি-২০ জাতীয় স্কোয়াডে ফের জায়গা করে দিয়েছে। পারফরম্যান্স হোক বা অন্য ক্রিকেটারের চোট যে কারণেই অশ্বিনের বিশ্বকাপ দলে অন্তর্ভুক্তি হোক না কেন অভিজ্ঞতা এবং পারফরম্যান্স এর নিরীখে তিনি যে ভারতীয় দলের জন্য এক গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

বন্ধ করুন