বাংলা নিউজ > ময়দান > সচিনকে আউট করে গর্ব করছিলেন আরপি সিং, মাস্টারব্লাস্টার দিয়েছিলেন মোক্ষম উত্তর

সচিনকে আউট করে গর্ব করছিলেন আরপি সিং, মাস্টারব্লাস্টার দিয়েছিলেন মোক্ষম উত্তর

সচিন তেন্ডুলকর। ছবি- বিসিসিআই।

ভারতীয় দলে এক সঙ্গে বহুদিন ধরে খেলেছেন সচিন তেন্ডুলকর এবং রুদ্র প্রতাপ সিং। ফলে আউট করার সুযোগ হয়নি কোনও দিন। কিন্তু আইপিএলে একে অপরের বিপক্ষে খেলতেন তারা। ফলে সুযোগ হয়েছিল আরপি সিংয়ের। মাস্টার ব্লাস্টারের উইকেট নেওয়ার পর আরপিকে মাস্টার ব্লাস্টার বলেছিলেন, ‘এমনটা আর কখনও নাও হতে পারে।’

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ক্রিকেটার হিসাবে ধরা হয় তাঁকে। ঝুলি খুললেই রেকর্ডের বন্যা। যেকোনও বোলারের রাতের ঘুম কেড়ে নেওয়ার জন্য একটা নামই যথেষ্ট। আর সেটা সচিন তেন্ডুলকর। ওডিআই এবং টি-টোয়েন্টিতে সর্বাধিক রানের রেকর্ড রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। ১০০ টি শতরানের মালিক। ২০১০ আইপিএলে অরেঞ্জ ক্যাপ নিয়ে টুর্নামেন্ট শেষ করেছিলেন তিনি। বিশ্ব ক্রিকেটে তিনি যেমন তাবড়-তাবড় বোলারদের সামলেছেন। ঠিক তেমন ভাবেই ঘরোয়া ক্রিকেটেও অনেক ভয়ঙ্কর বোলারদের মুখোমুখি হতে হয়েছে তাঁকে। আউটও হয়েছেন। সচিনকে আউট করার অভিজ্ঞতা শোনালেন ভারতের প্রাক্তন বোলার রুদ্র প্রতাপ সিং। দক্ষিণ আফ্রিকায় টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে ধারাভাষ্য দেওয়ার সময় আরপি সিং বলেন, ‘মাস্টার ব্লাস্টারকে আউট করে তাঁকে বলেছিলাম আমি তোমার উইকেট নিয়েছি। তখন তিনি আমাকে বলেন, এটা আর কখনও নাও হতে পারে।’

প্রাক্তন পেসার আরপি সিং ২০০৭ সালের টি-টোয়েন্টি দলের অংশ ছিলেন। প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতার পিছনে তাঁর ভূমিকাও ছিল অনেকখানি। এরপর আইপিএল শুরু হলে সচিন এবং তিনি ভিন্ন দলের হয়ে অনেকবার মুখোমুখি হয়েছেন। আইপিএলের সচিনের উইকেটও পেয়েছেন আরপি। দক্ষিণ আফ্রিকাতে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি লিগের ধারাভাষ্য দিতে গিয়ে এমনই একটি ম্যাচের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন, ‘কেউ যদি সচিনের উইকেট নেয় তাহলে তাকে সেটা মনে করিয়ে দিতে হয়। একবার আমি তাঁকে মনে করিয়ে দিয়েছিলাম। শুনে তিনি বলেন, হ্যাঁ ওটা একটা ভালো ডেলিভারি ছিল। আমি ওটা মিস করে গিয়েছি। কিন্তু এটা আর কখনো নাও হতে পারে। পরেরবার যখন আমরা একে অপরের মুখোমুখি হলাম, আমি একটি ভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে খেলছিলাম। এবং সচিন সেঞ্চুরি করেছিল সেই ম্যাচটাতে। ওই ম্যাচে আমি শুধুমাত্র কম রান দিয়েছিলাম তাছাড়া আর কিছুই করতে পারিনি।’

রুদ্র প্রতাপের সঙ্গে ধারাভাষ্য দিচ্ছিলেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার সুরেশ রায়না। তিনি তাঁর আন্তর্জাতিক কেরিয়ারের কিছুটা সময় সচিন তেন্ডুলকরের সঙ্গে কাটিয়েছেন। ধারাভাষ্যের সময় তিনিও সচিনের সঙ্গে তাঁর অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। ২০১৪ সালে কার্ডিফে ওডিআইতে সেঞ্চুরি করার আগে মাস্টার ব্লাস্টারের থেকে অনেক আত্মবিশ্বাস পেয়েছিলেন রায়না। সেই প্রসঙ্গে বলেন, ‘ম্যাচের আগে আমাকে সচিন ভাই বলেন, নিজের উপর বিশ্বাস রাখো। এবং আমি সেঞ্চুরি করার পর মাস্টার ব্লাস্টারের সেলিব্রেশন করার ভঙ্গি আমাকে আরও আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছিল।’

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক

 

বন্ধ করুন