বাংলা নিউজ > ময়দান > দুই মহারথীর লড়াই হচ্ছে-কোহলির সিদ্ধান্তে সৌরভের ছায়া দেখছেন পাক প্রাক্তনী
বিরাট কোহলি ও সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় (ছবি: গেটি ইমেজ)
বিরাট কোহলি ও সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় (ছবি: গেটি ইমেজ)

দুই মহারথীর লড়াই হচ্ছে-কোহলির সিদ্ধান্তে সৌরভের ছায়া দেখছেন পাক প্রাক্তনী

  • প্রাক্তন পাক উইকেট রক্ষকের বিশ্বাস, বিরাট কোহলি টেস্ট অধিনায়কের পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার মূল কারণ বিসিসিআইয়ের প্রধানের সঙ্গে তাঁর দ্বন্দ্ব। রশিদ লতিফ তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে বলেছেন, ‘বিরাটের এমনটা করার আসল কারণ হল বোর্ডের সঙ্গে তার ঝগড়া। বিরাট যাই বলুক না কেন, এটা আসলে দুই প্রখ্যাত ক্রিকেটারের লড়াই।’

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ হারের পরের দিন বিস্ময়কর ভাবে একটি সিদ্ধান্ত জানিয়েছিলেন বিরাট কোহলি। ভারতের টেস্ট দলের অধিনায়কের পদ থেকে তিনি সরে দাঁড়ান। কোহলির এই সিদ্ধান্তে অনেকেই অবাক হয়েছিলেন। টেস্ট অধিনায়কত্ব ছাড়ার পর কোহলিকে তিন ফর্ম্যাটেই শুধু ব্যাটার হিসেবে দেখা যাবে। প্রাক্তন পাক উইকেট রক্ষকের বিশ্বাস, বিরাট কোহলি টেস্ট অধিনায়কের পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার মূল কারণ বিসিসিআইয়ের প্রধানের সঙ্গে তাঁর দ্বন্দ্ব। রশিদ লতিফ তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে বলেছেন, ‘বিরাটের এমনটা করার আসল কারণ হল বোর্ডের সঙ্গে তার ঝগড়া। বিরাট যাই বলুক না কেন, এটা আসলে দুই প্রখ্যাত ক্রিকেটারের লড়াই।’

কোহলির এই সিদ্ধান্তের পরেই বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় একটি টুইট করেন। সৌরভ জানান, এই সিদ্ধান্ত পুরোটাই বিরাটের। অর্থাৎ কোন রকম চাপ ছাড়াই সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিরাট। পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক রশিদ লতিফ মনে করেন বিরাট যা বলছেন বা সৌরভ যা লিখছেন তা সত্যি নয়। প্রাক্তন উইকেট রক্ষকের বিশ্বাস বিরাটের টেস্ট অধিনায়কের পদ থেকে ইস্তফা দেয়ার মূল কারণ হল বিসিসিআইয়ের প্রধানের সঙ্গে তাঁর দ্বন্দ্ব। রশিদ লতিফ তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে বলেছেন, ‘বিরাটের এমনটা করার আসল কারণ হল বোর্ডের সঙ্গে তার ঝগড়া। বিরাট যাই বলুক না কেন এটা আসলে দুই প্রখ্যাত ক্রিকেটারের লড়াই।’

বিরাট-সৌরভ বিতর্কে এর আগেও অংশ নিয়েছিলেন লতিফ। গত বছর ডিসেম্বরে তিনি বলেছিলেন, ‘কোহলিকে একদিনের আন্তর্জাতিক এর অধিনায়ক এর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়াই উদ্দেশ্য ছিল বোর্ডের।’ ফের একবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ হেরে টেস্টের অধিনায়ক এর থেকে সরে দাঁড়ালেন কোহলি। এ প্রসঙ্গে লতিফ মনে করেন, ‘কিছু লোক ইচ্ছে করে কোহলিকে নিশানা করছে এবং ভারতীয় ক্রিকেট কে প্রভাবিত করছে।’ লতিফ আরও বলেন, ‘কিছু মানুষ আছেন যারা জানেন কখন কী ভাবে বিরাট কে উস্কে দিতে হয়। বিরাট টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ঘোষণা করেছিলেন টি-টোয়েন্টি আন্তর্জাতিক আর অধিনায়কত্ব করবে না। এরপর তাকে একদিনের আন্তর্জাতিক অধিনায়কের পদ থেকেও সরিয়ে দেয়া হয়। এতে শুধু কোহলিকে কষ্ট দেওয়া হয়নি ভারতীয় ক্রিকেটও স্থিতিশীলতা হারিয়েছে।’ 

বন্ধ করুন