বাংলা নিউজ > ময়দান > ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট বাতিল করাই সঠিক সিদ্ধান্ত, যুক্তি দিয়ে বোঝালেন দীনেশ কার্তিক
দীনেশ কার্তিক (ছবি:ইনস্টাগ্রাম)
দীনেশ কার্তিক (ছবি:ইনস্টাগ্রাম)

ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট বাতিল করাই সঠিক সিদ্ধান্ত, যুক্তি দিয়ে বোঝালেন দীনেশ কার্তিক

  • আজ রিপোর্ট নেগেটিভ মানে দু'দিন পরে কেউ করোনা আক্রান্ত চিহ্নিত হবেন না, কে বলতে পারে? সংশয় প্রকাশ KKR তারকার।

ম্যাচ শুরুর আগে আরটি-পিসিআর টেস্ট নেগেটিভ মানে এই নয় যে, তিন-চার দিন পরে কেউ করোনা পজিটিভ চিহ্নিত হবেন না। টেস্টের মাঝে কেউ করোনা আক্রান্ত হলে তখন কী হবে? ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট বাতিল করার সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে দীনেশ কার্তিক দাবি করেন, এখানে কোনও ক্রিকেটার করোনা আক্রান্ত হওয়া মানে আইপিএলের উপর প্রশ্নচিহ্ন পড়ে যাবে।

বৃহস্পতিবার ভারতের সহকারী ফিডিও যোগেশ পারমার করোনা পজিটিভ চিহ্নিত হওয়ার পরেই ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট নিয়ে সংশয় তৈরি হয়। বৃহস্পতিবার রাতে ক্রিকেটারদের আরটি-সিপিআর টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় শোনা গিয়েছিল সিরিজের পঞ্চম তথা শেষ টেস্ট নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী আয়োজিত হবে। তবে শেষমেশ কোনও ঝুঁকির রাস্তায় হাঁটতে চায়নি বিসিসিআই ও ইসিবি। একেবারে শেষ মুহূর্তে পতৌদি ট্রফির পঞ্চম তথা শেষ টেস্ট বাতিল করা হয়।

স্কাই স্পোর্টসের সঙ্গে আলোচনায় এপ্রসঙ্গে কার্তিক বলেন, ‘আমি কয়েকজনে ক্রিকেটারের সঙ্গে কথা বলেছি। ওদের আশঙ্কার যথাযথ কারণ রয়েছে। দলে একজন মাত্র ফিজিও ছিল। ২ জনের মধ্যে একজন তো কোচেদের সঙ্গে কোয়ারান্টাইনে। একজন মাত্র ফিজিও থাকায় দলের বহু ক্রিকেটারের সঙ্গে কাজ করেছে। অন্য কেউ করোনা আক্রান্ত হলে বিষয়টা আলাদা ছিল। কিন্তু ফিজিও যখন করোনা পজিটিভ, তখন সেটা চিন্তার বিষয়।’

করোনা আক্রান্ত হলে ক্রিকেটারদের পক্ষে আইসোলেশনে থাকা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে বলেই মত কার্তিকের। তিনি বলেন, ‘এটাও মাথায় রাখা উচিত যে, ইংল্যান্ড সিরিজের পরেই আইপিএল রয়েছে। তার পরেই বিশ্বকাপ। তার পরে নিউজিল্যান্ড সিরিজ। মাঝে এক সপ্তাহের ব্যাবধান। কতগুলি বাবল আপনি তৈরি করবেন? ওরা মুম্বইয়ে একজোট হয়েছে ১৬ মে। সুতরাং, এখনই চারমাস হয়ে গিয়েছে। সময়টা অত্যন্ত দীর্ঘ।’

ম্যাচ দু-একদিন পিছিয়ে দেওয়া যেত কিনা এপ্রসঙ্গে কার্তিক বলেন, ‘ক্রিকেটাররা কার্যত ভোর রাতে ঘুমোতে যায়। তারা জানতই না যে, পরের দিন খেলা হবে কিনা। তাই ম্যাচের জন্য প্রস্তু হবে, কি হবে না, সেবিষয়েই নিশ্চিত ছিল না কেউ। তাছাড়া ভুলে যাওয়া উচিত নয় যে, পিসিআর টেস্টে নেগেটিভ হওয়ার তিন দিন পরেও কেউ করোনা পজিটিভ চিহ্নিত হতে পারে। সে যদি প্লেয়িং ইলেভেনে থাকে, তখন কি হবে? সে মাঠে বাকিদের মধ্যে করোনা ছড়াতে পারে। সব খেলোয়াড়রা তখন সমস্যায় পড়ে যাবে। একজন করোনা আক্রান্ত হলে সকলকে ১০ দিন ইংল্যান্ডে আইসোলেশনে থাকতে হবে। তাহলে আইপিএলের কি হবে? আমিরশাহিতে পা দেওয়ার চার দিনের মধ্যেই তাদের আইপিএলে মাঠে নামার কথা। এমনটা নিশ্চয়তা দেওয়া যায় না যে, আজ কেউ নেগেটিভ মানে দু’দিন পরেও সে নেগেটিভ হবে। এই অবস্থায় একজন ক্রিকেটারও করোনা আক্রান্ত হলে গোটা বিষয়টাই অন্যদিকে মোড় নেবে।'

বন্ধ করুন