বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ করতে আগ্রহী সৌরভ’, মনের কথা নাকি টের পেয়েছেন কামরান আকমল
কামরান আকমল এবং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।
কামরান আকমল এবং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

‘ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ করতে আগ্রহী সৌরভ’, মনের কথা নাকি টের পেয়েছেন কামরান আকমল

  • দীর্ঘ দিন ভারত-পাকিস্তান কোনও দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলেনি। আইসিসি-র কোনও টুর্নামেন্টে যদি ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখিও হয়েছে, সেই ম্যাচটি নিরপেক্ষ স্থানে হয়েছে।

রাজনৈতিক কারণে ২০১২-'১৩ সালের পর থেকে ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজ বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আইসিসি-র কোনও টুর্নামেন্ট খেলতে গিয়ে ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখি হলে সেটা আলাদা বিষয়। এর বাইরে ভারত-পাকিস্তান কোনও দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলেনি। আইসিসি-র কোনও টুর্নামেন্টে যদি ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখিও হয়েছে, সেই ম্যাচটি নিরপেক্ষ স্থানে হয়েছে। অথচ এই দুই দেশের মধ্যে যে কোনও সিরিজ ঘিরেই উত্তেজনার পারদ সব সময়েই চরমে থাকে। আর সেই ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজ করতে নাকি খুবই আগ্রহী বর্তমান বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। এমনটাই দাবি করেছেন, পাকিস্তানের উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান কামরান আকমল।

একটি ইউটিউব চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময়ে আকমল বলেছেন, ‘আসল বিষয় হল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় নিজে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অনেক ম্যাচ খেলেছেন। যে কারণে তিনি এই দুই দলের ম্যাচের গুরুত্ব বোঝেন। এবং এই খেলার মধ্যে দিয়ে দু'টি দেশকে কী ভাবে কাছে আনা যায়, সেটাও ভাল ভাবে জানেন। আমার মনে হয়, সৌরভ চাইবেন তাঁর সময়সীমায় (বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হিসেবে) ভারত এবং পাকিস্তানকে নিয়ে দ্বিপাক্ষিক সিরিজের আয়োজন করতে। আসলে সৌরভদের সময়কার যে কোনও প্লেয়ারই চাইবেন, ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে ম্যাচ খেলা নতুন করে শুরু হোক। কিন্তু ওঁরা কেউই খোলামেলা ভাবে এই কথা বলতে পারে না। কারণ সেটা বললে হয়তো বড় বিতর্ক হতে পারে সে কারণে। ওঁরা কিন্তু আমাদের মতো নয় যে, দুই দেশের ম্যাচের আয়োজন নিয়ে সব সময়ে এক পা বাড়িয়ে রেখেছে।’

প্রাক্তন অধিনায়ক ইনজামাম উল হক সহ পাকিস্তানের বহু ক্রিকেটার গত কয়েক মাসে ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজের আয়োজন নিয়ে মুখ খুলেছেন। আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ প্রসঙ্গ উঠতেই কামরান আকমল বলেছেন, ভবিষ্যতে ভারত-পাকিস্তান একে অন্যের দেশের গিয়ে ম্যাচ খেলেছেন, সেই ছবিটি কিন্তু এখন থেকেই তিনি দেখতে পাচ্ছেন। তিনি বলেওছেন, ‘এই বিষয়ে আইসিসি বড় ভূমিকা নিতে পারে। বিশেষত বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ক্ষেত্রে কোনও নিরপেক্ষ জায়গায় খেলা হওয়ার বদলে একে অপরের দেশে গিয়ে যাতে খেলতে পারে, সেই ব্যবস্থা অন্তত আইসিসি করতে পারে। এতে দুই দেশের সম্পর্কে উন্নতি হবে।’

বন্ধ করুন