বাড়ি > ময়দান > এ কেমন বন্ধুত্ব! কাশ্মীর প্রসঙ্গে মোদী বিরোধী কথাবার্তা বলায় আফ্রিদিকে কাঠগড়ায় তুলছেন প্রাক্তন পাক তারকা
শহিদ আফ্রিদি
শহিদ আফ্রিদি

এ কেমন বন্ধুত্ব! কাশ্মীর প্রসঙ্গে মোদী বিরোধী কথাবার্তা বলায় আফ্রিদিকে কাঠগড়ায় তুলছেন প্রাক্তন পাক তারকা

কানেরিয়া এক্ষেত্রে জাতীয় দলের দীর্ঘদিনের সতীর্থকে কাঠগড়ায় তুলছেন কাশ্মীর প্রসঙ্গে ভারত বিরোধী কথাবার্তা বলার জন্য।

এ কেমন বন্ধুত্ব! শাহিদ আফ্রিদির আচরণ নিয়ে সরাসরি প্রশ্ন তুললেন প্রাক্তন পাক স্পিনার দানিশ কানেরিয়া। তিনি জানতে চান, বন্ধুদের সঙ্গে এ কেমন ব্যবহার?

কানেরিয়া এক্ষেত্রে জাতীয় দলের দীর্ঘদিনের সতীর্থকে কাঠগড়ায় তুলছেন কাশ্মীর প্রসঙ্গে ভারত বিরোধী কথাবার্তা বলার জন্য। পাক স্পিনার কার্যত সমর্থন করেন গম্ভীর, যুবরাজ, হরভজন, রায়নাদের সোশ্যাল মিডিয়ায় আফ্রিদিকে আক্রমণের। তিনি জানান, আফ্রিদির যে কোনও বিষয়ে ভেবেচিন্তে কথা বলা উচিত। রাজনীতিতে যোগ দিতে চাইলে ক্রিকেট থেকে দূরে সরে থাকা দরকার পাক অল-রাউন্ডারের। তাছাড়া, কারও কাছ থেকে সাহায্য চেয়ে তা পেয়ে যাওয়ার পর তাঁর দেশ ও প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে কটুক্তি করাটা কোন ধরণের ভদ্রতা!

পাক অধিকৃত কাশ্মীরে দাঁড়িয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সম্পর্কে আফ্রিদির হাওয়া গরম করা কথাবার্তা প্রসঙ্গে কানেরিয়া বলেন, 'যে কোনও বিষয়ে আফ্রিদির ভেবেচিন্তে কথা বলা উচিত। যদি ও রাজনীতিতে যোগ দিতে চায়, তবে ক্রিকেট থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখা দরকার। রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মতো কথাবার্তা বললে ক্রিকেট থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করা প্রয়োজন। এ ধরণের কথাবার্তা পাকিস্তান ক্রিকেট সম্পর্কে খারাপ ধারণা তৈরি করে। শুধু ভারতীয়দের কাছেই নয়, সারা বিশ্বের সামনে পাক ক্রিকেটের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়।'

পাকিস্তানের হয়ে ৬১ টেস্টে ২৬১ উইকেট নেওয়ার লেগ-স্পিনার আরও বলেন, 'আফ্রিদি প্রথমে ভারতীয়দের (হরভজন ও যুবরাজের) কাছ থেকে সাহায্য চায়। সেটা পেয়ে যাওয়ার পর ভারত ও নরেন্দ্র মোদী বিরোধী কথাবার্তা বলে। এটা কী ধরণের বন্ধুত্ব!'

বন্ধ করুন