বাংলা নিউজ > ময়দান > নকশালরা ঝাঁঝরা করেছিল বাবার শরীর, ১৯ বছর পর জাতীয় সেরা হলেন মেয়ে সুপ্রীতি
৩০০০ মিটার দৌড়ে জাতীয় সেরা সুপ্রীতি কাছাপ। ছবি- টুইটার।

নকশালরা ঝাঁঝরা করেছিল বাবার শরীর, ১৯ বছর পর জাতীয় সেরা হলেন মেয়ে সুপ্রীতি

  • ৩০০০ মিটার দৌড়ে জাতীয় রেকর্ড গড়ে ফেললেন সুপ্রীতি।

২০০৩ সালে এক কোয়াশাঘেরা রাতে পাশের গ্রামের একজন রোগীর চিকিৎসা করতে গিয়েছিলেন তাঁর বাবা। আর বাড়ি ফেরা হয়নি। ঝাড়খণ্ডের গুমলা জেলার রামসেবক ওঁরায়ের গুলিবিদ্ধ দেহ পরের দিন গাছে বাঁধা অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল। সম্ভবত নকশালরা তাঁর বাবাকে গুলিবিদ্ধ করেছিল। সেই ঘটনার ১৯ বছর পর জাতীয় স্তরে সোনা জিতলেন রামসেবকের মেয়ে সুপ্রীতি কাছাপ।

পঞ্চকুলায় ৩০০০ মিটার সুপ্রীতি স্বর্ণপদক তো জিতলেনই, পাশাপাশি ১৯ বছরের স্প্রিন্টার গড়লেন জাতীয় রেকর্ডও। ৯ মিনিট ৫০.৫৪ সেকেন্ডের রেকর্ড ভেঙে ৯ মিনিট ৪৬.১৪ সেকেন্ডে নিজের রেস জিতলেন সুপ্রীতি। তাঁর মা বালামতি দেবী The Indian Express-কে জানান তাঁর বাবার মৃত্যুর সময় সুপ্রীতি হাঁটতেও পারতেন না। বহু সংঘর্ষ করে পাঁচ সন্তানকে মানুষ করেছেন তিনি। রামসেবকের মৃত্য়র পর বিডিও অফিসে চতুর্থ ক্লাস স্টাফের চাকরি পান বালামতি। তাঁরা আর বুরহু গ্রামে সেই বাড়িতে থাকে না। বর্তমানে তাঁদের ঠিকানা সরকারি কোয়ার্টার।

মেয়ে সুপ্রীতি পদক জেতায় আর চোখের জল থামিয়ে রাখতে পারলেন না মা। জানালেন মেয়ে ফিরলে তাঁর পদক বাড়িতে সযত্নে সাজিয়ে রাখবেন। আর বাবার মৃত্যুর সময় সদ্য জন্ম নেওয়া সুপ্রীতির কাছে বাবার মুখটা আজ ঝাঁপসা। তবে এই জয় তিনি তাঁর বাবাকেই উৎসর্গ করছেন। তিনি বলেন, ‘আমার বাবার কথা কিছুই মনে নেই, তবে আমি এই জয়টা বাবাকেই উৎসর্গ করতে চাই।’ তাঁর আইডল, স্টিপেল চেজ রেকর্ডধারী অবিনাশ সাবলের মতো সুপ্রীতিও ভবিষ্যতে আরও পদক জয়ের লক্ষ্যে। ‘ওঁ নিজেও এক গরীব পরিবার থেকে উঠে এসেছে এবং আমার আইডল। অনুপ্রেরণা প্রয়োজন হলেই আমি ওর নানান প্রতিযোগিতার ভিডিয়ো দেখি। আশা করছি আমি ভারতের হয়েও একদিন পদক জিততে পারব।’ আশা সুপ্রীতির।

বন্ধ করুন