বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘তুমি তো বুড়ো’, স্রেফ বয়সের অজুহাতেই জাতীয় দলে সুযোগ দেওয়া হয়নি KKR তারকাকে!
ভারতের কোনও ফর্ম্যাটের কোনও দলেই সুযোগ পাননি কেকেআর তারকা। ছবি- আইপিএল।

‘তুমি তো বুড়ো’, স্রেফ বয়সের অজুহাতেই জাতীয় দলে সুযোগ দেওয়া হয়নি KKR তারকাকে!

  • ঘরোয়া ক্রিকেটে ৫০-র অধিক গড়ে প্রায় ছয় হাজার রান রয়েছে কেকেআর তারকার দখলে।

আইপিএল থেকে হালে ভাল পারফর্ম করে বহু ক্রিকেটার ভারতীয় দলে সুযোগ পেয়েছেন। জনপ্রিয়তার বিচারেও আইপিএল বাকি সকলের থেকে আগে। তবে এখনও ভারতীয় ক্রিকেটের শিরদাঁড়া হল ঘরোয়া রঞ্জি ট্রফি, বিজয় হাজারে ট্রফির মতো টুর্নামেন্টগুলি। এইসব টুর্নামেন্টে ধারাবাহিকভাবে ভাল পারফর্ম করেও নিরন্তর উপেক্ষিত হওয়ায় কিছুটা হতাশই এক কলকাতা নাইট রাইডার্স তারকা।

কে সেই নাইট? তিনি অন্য কেউ নন, কেকেআরের কিপার-ব্যাটার শেল্ডন জ্যাকসন। এ মরশুমের আইপিএলে কেকেআরের হয়ে বেশ কয়েকটি ম্যাচে খেলার সুযোগ পেয়েছেন শেল্ডন। কিপিংয়ে প্রভাবিত করলেও, ব্যাট হাতে তাঁর পারফরম্যান্স একেবারেই সাদামাটা। তবে সৌরাষ্ট্রের হয়ে ঘরোয়া ক্রিকেটে শেল্ডনের রেকর্ড ঈর্ষণীয়। ৭৯টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে শেল্ডন ৫০.৩৯ গড়ে মোট ৫৯৪৭ রান করেছেন। তা সত্ত্বেও কোনওদিন ভারতীয় দলে নাম আসেনি তাঁর। এর কারণ হিসাবে ৩৫ বছর বয়সি শেল্ডনের দাবি তাঁর বয়সের জেরেই নাকি তাঁকে সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না বলে জানানো হয়।

আরও পড়ুন:- Ranji Trophy Semifinal Live- ‘ক্লান্ত’ আকাশদীপে কামাল! ভাঙলেন ১২৩ রানের জুটি

সৌরাষ্ট্রের হয়ে খেলা শেল্ডন SportsKeeda-কে এক সাক্ষাতকারে জানান, ‘প্রতি বছরই আমার সঙ্গে একই জিনিস হয়। আমি যে পরিমাণ রান করেছি এবং যে হারে তা করেছি, আমার মনে হয় না দেশে খুব বেশিজন তেমনটা করেছে বলে। ৭৫ ম্যাচের আশেপাশে খেলে ছয় হাজার রানটা আমি কঠোর পরিশ্রমকে বোঝায়। আমায় (কেন দলে নেওয়া হয় না সে বিষয়ে) কিছুই বলা হয়নি। তবে একবার একজনকে জিজ্ঞেস করায় সে বলেছিল, তুমি কো বুড়ো। বলা হয়েছিল ৩০ বছরের উর্ধ্বে কাউকে নেওয়া হচ্ছে না। তবে এক বছর পরেই একজন ৩২-৩৩ বছর বয়সে সুযোগ পায়। কারুর বয়স ৩০, ৩৫ বা ৪০ হলেই বা তাকে কেন বাদ দেওয়া হবে। এমন কী কোনও আইন আছে? না থাকলে তাহলে বানাও।’

আরও পড়ুন:- রঞ্জির সেমিতে শূন্য পৃথ্বীর, মুম্বইকে টানছেন যশস্বীরা, উইকেট KKR পেসারের

পরপর পারফর্ম করেও সুযোগ না পাওয়ার হতাশাটা মেনে নেওয়া খুবই কঠিন মেনে নিচ্ছেন শেল্ডন। তবে তিনি হাল ছাড়তে নারাজ। ‘ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেট ভীষণই প্রতিযোগিতমূলক এবং সেখানে ভাল পারফর্ম করা খুবই কঠিন। সেখানে প্রতি বছর কঠোর পরিশ্রম করে, ধারাবাহিক পারফর্ম করেও সুযোগ না পাওয়াটা মেনে নেওয়া কঠিন। তবে এটাই আমায় অনুপ্রেরণা জোগায়। ওরা আমায় যত উপেক্ষা করবে, আমি তত বদ্ধপরিকর হয়ে উঠব ভাল পারফর্ম করার জন্য। লোককে কিছু প্রমাণ করার জন্য নয়, বরং নিজেকে প্রমাণ করতে যে আমার ভিতরে খিদেটা মরে যায়নি।’ দাবি শেল্ডনের।

বন্ধ করুন