বাংলা নিউজ > ময়দান > আমেরিকায় বাজিগরের জাদু, মেজর লিগ ক্রিকেটের অংশীদার হল নাইট রাইডার্স
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

আমেরিকায় বাজিগরের জাদু, মেজর লিগ ক্রিকেটের অংশীদার হল নাইট রাইডার্স

  • মার্কিন ক্রিকেটের ভোল বদল করতে চলেছে শাহরুখের কোম্পানি। 

আমেরিকার মেজর লিগ ক্রিকেটের এবার অংশীদার হবে নাইট রাইডার্সরা। ২০২২ সাল থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই টি-২০ লিগ চালু হওয়ার কথা। আইপিএল ছাড়াও অতীতে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে দল কিনেছে শাহরুখ খানের সংস্থা। 

জানা গিয়েছে যে এমএলসি-তে নাইটরাইডার্সের দল তো থাকবেই তারা কনসালটেন্ট হিসেবে কাজ করবে যাতে সুষ্ঠু ভাবে আয়োজিত হতে পারে এই টি-২০ লিগ। নাইট রাইডার্সের সিইও ভেঙ্কি মাইসোর জানিয়েছেন যে ছয়টি দল থাকবে এমএলসি-তে। এছাড়াও আইপিএল বা সিপিএলে যেমন শুধু দল চালানোর কাজ থাকে, এখানে সামগ্রিক লিগে তাদের অংশীদারিত্ব থাকবে বলে জানিয়েছেন মাইসোর। আনুমানিক ১৫-২০ মিলিয়ন ডলার টাকা নাইট রাইডার্স ঢালবে বলে জানিয়েছে ক্রিকবাজ। 

ক্রিকবাজের রিপোর্ট অনুযায়ী নাইট রাইডার্সরা খুব সম্ভবত লস অ্যাঞ্জেলসের ফ্র্যাঞ্চাইসিটি কিনতে পারে। কেকেআরের মতো এলএ লেকার্স ও পার্পেল অ্যান্ড গোল্ড জার্সি পরে। একই সঙ্গে হলিউডের ঠিকানা হল লস অ্যাঞ্জেলস। তাই স্বভাবতই সেখানে শাহরুখের জনপ্রিয়তার ছটা আরো বেশি করে উদ্ভাসিত হবে।

জানা গিয়েছে American Cricket Enterprises (ACE) নাইট রাইডার্সকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। আলোচনার পর আমেরিকান ক্রিকেটে দীর্ঘমেয়াদি ভাবে টাকা ঢালার পরিকল্পনা করেছে নাইট রাইডার্স। ক্রিকইনফোকে ভেঙ্কি মাইসোর জানান যে দল চালানো ছাড়াও পুরোদস্তুর কনসালটেন্টের কাজ করবেন তাঁরা। 

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ক্রিকেটকে জনপ্রিয় করার জন্য অনেক পরিকল্পনা আছে বোর্ডের। সেই কারণেই নাইটরাইডার্সের সঙ্গে গাঁটছড়া। আগামী কয়েক বছরে পরিকাঠামো গঠনের ওপর জোর দেওয়া হবে। ছটি বিশ্বমানের স্টেডিয়াম নির্মাণ, অ্যাকাডেমি, প্রতিভা তুলে আনার ওপর জোর দেওয়া হবে। পাশাপাশি চলবে টি-২০ লিগ। 

ভেঙ্কি মাইসোর জানিয়েছেন পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ মডেলে কাজ হবে। সিটি কাউন্সিলগুলির সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে কাজ হবে। মাইসোর বলেন যে ক্রিকেটের বিশ্বজনীন জনপ্রিয়তা, মার্কিন মিডিয়া মার্কেট ও আমেরিকায় খেলার যে সংস্কৃতি আছে, তিনের মেলবন্ধনে সফল একটি প্রোডাক্ট হতে পারে বলে তাঁরা আশাবাদী। 

কীভাবে শুধু আইপিএল নয় সারা বছর ধরেই নাইট রাইডার্স ব্র্যান্ড নিয়ে আলোচনা হয় ও সারা বিশ্বে ব্যবসা ছড়িয়ে দেওয়া যায় অনেক লিগে দল কিনে, সেটা সর্বদাই নাইট রাইডার্সের পরিকল্পনার মধ্যে ছিল বলে জানান সিইও। 

আমেরিকায় ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকবার ক্রিকেট লিগ চালু করার চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু বিশেষ সাফল্য আসেনি। বরং বিভিন্ন আইনি জটিলতায় ক্রিকেট পিছিয়ে গিয়েছে মার্কিন মুলুকে। আপাতত তিনটি মাঠে খেলা দিয়ে শুরু হবে লিগ। ফোর্ট লৌডেরডেল, ডালাস ও নর্থ ক্যারালিনার মরিসভিলে খেলা হবে। তবে ধাপে ধাপে ছটি শহরে এই টুর্নামেন্ট শুরু করার পরিকল্পনা আছে। প্রাথমিক ভাবে মূলত বিদেশিরা খেললেও ধীরে ধীরে স্থানীয়দের সংখ্যা বাড়বে বলেও আশা করেন ভেঙ্কি মাইসোর। 

ACE-র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা বিনয় শ্রীনিবাসন জানান যে নাইটরাইডার্সরা আসায় তাদের বলবৃদ্ধি হয়েছে ও তাদের পরিকল্পনা যে মজবুত সেটাও মানুষ বুঝতে পারবেন। মাইসোর জানান, প্রাথমিক ভাবে অনেক ক্রিকেটারই উৎসাহ দেখিয়েছেন আমেরিকায় এসে খেলার জন্য। তাদের জন্য ঠিকঠাক টাকা পয়সা দেওয়া যায়, তাহলে তারকা ক্রিকেটারদের লিগে নিয়ে আসতে সমস্যা হবে না বলে তিনি আশাবাদী। 

 

বন্ধ করুন