বাংলা নিউজ > ময়দান > হারের পর ফিল্ডিং ও ব্যাটিংকে দুষলেন কোহলি

ভারতকে আট উইকেটে উড়িয়ে দিয়ে তিরুবনন্তপুরমে দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচটি জিতল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সিরিজের মীমাংসা হবে মুম্বইয়ের তৃতীয় টি-২০ ম্যাচে।

এদিন ভারত প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে সাত উইকেটে ১৭০ করে। তিন নম্বরে প্রমোশন পাওয়া শিবম দুবে ছাড়া কেউই তেমন নজর কাড়তে পারেননি। ৩০ বলে ৫৪ রান করেন তিনি। অনেক দিন পরে রানের মুখ দেখলেন ঋষভ পন্থও। ২২ বলে ৩৩ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। কিন্তু দুবের আউট হওয়ার পর সেভাবে রান রেট বাড়াতে পারেনি ভারত। মারতে গিয়ে আউট হন মিডল অর্ডারের খেলোয়াড়রা। মন্থর পিচে বুদ্ধি করে বল করে ভারতীয়দের নাস্তানাবুদ করে দেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ম্যাচের শেষে সে কথা স্বীকারও করেন কোহলি। তিনি বলেন ভারতের থেকে অনেক ভালো বোলিং করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শেষের কিছু ওভারে মোমেন্টাম হারানোর কথাও উল্লেখ করেন ভারতীয় অধিনায়ক। ওয়েস্ট ইন্ডিজের জন্য দুটি করে উইকেট নেন উইলিয়ামস ও ওয়ালশ।

তবে তাও ভালো প্রতিযোগিতামূলক স্কোর ছিল ১৭০। কিন্তু আবারও ফিল্ডিংয়ের জন্য মার খেল ভারত। অসংখ্য ক্যাচ মিস, গ্রাউন্ড ফিল্ডিংয়েও ত্রুটি। ভুূবির পরপর দুটি বলে ক্যাচ ছাড়েন ওয়াশিংটন সুন্দর ও ঋষভ পন্থ। ম্যাচের শেষে এই নিয়ে আক্ষেপ করে কোহলি বলেন যে যত রানই করা হোক না কেন, খারাপ ফিল্ডিং করলে জেতা যাবে না। এদিন ম্যাচের সেরা বর্ষীয়ান লেন্ডল সিমন্স। ভারতের বিরুদ্ধে ২০১৬-এ টি-২০ বিশ্বকাপের পর এদিন ফের নিজের জাত চেনালেন তিনি। চারটি করে চার ও ছয় মেরে ৪৫ বলে ৬৭ রান করে অপরাজিত থাকেন সিমন্স। যোগ্য সঙ্গত দেন এভিন লুইস (৩৫ বলে ৪০) ও নিকোলাস পুরান (১৮ বলে ৩৮)। ফিল্ডিংয়ে সবাইকে আরও সাহসী হতে হবে বলেন কোহলি।

ম্যাচ জেতার জন্য দলের বোলারদের কৃতিত্ব দেন পোলার্ড। যেভাবে নতুন ছেলেরা খেলছে, সেটা খুবই ইতিবাচক বলে করেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক। বিশেষ করে স্পিনার ওয়ালশের কথা উল্লেখ করেন তিনি। ভারতে বহুদিন খেলার অভিজ্ঞতা সিমন্স সঠিক ভাবে ব্যবহার করেছেন বলে মনে করেন পোলার্ড। অধিনায়ক হিসাবে নবীন প্রজন্মের সঙ্গে অভিজ্ঞতা শেয়ার করে নেওয়াটা প্রয়োজনীয় বলে জানান তিনি। সবাই যদি এককাট্টা হয়ে খেলে, তাহলে দল ভালো খেলবেই, এই বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী তিনি। পোলার্ডের আইপিলের ঘরের মাঠ ওয়াংখেডেতে নির্ণায়ক ম্যাচটি খেলতে তিনি মুখিয়ে আছেন বলে জানান ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক।



বন্ধ করুন