বাংলা নিউজ > ময়দান > ঘরে গিয়ে কাঁদেন এবং সারা রাত ঘুমতে পারেননি! বিরাটের অতীত ফাঁস করলেন বন্ধু
বিরাট কোহলি

ঘরে গিয়ে কাঁদেন এবং সারা রাত ঘুমতে পারেননি! বিরাটের অতীত ফাঁস করলেন বন্ধু

  • প্রদীপ সাঙ্গওয়ান এরপরে বলেন, ‘বিরাট আমাদের দলের প্রধান খেলোয়াড় ছিলেন এবং অজিত স্যার মজা করে পরামর্শ দিয়েছিলেন - আসুন বিরাটকে বলি যে তিনি পরের ম্যাচে খেলবেন না। আমরা সবাই এই অপকর্মে জড়িয়ে পড়ি। টিম মিটিংয়ে বিরাটের নাম ঘোষণা করেননি অজিত স্যার। নিজের রুমে গিয়ে কাঁদতে লাগলো বিরাট।’

ভারতের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি সাম্প্রতিক সময়ে খারাপ ফর্মের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন। ডানহাতি ব্যাটসম্যান ২০১৯ সালের নভেম্বর থেকে কোনও ফর্ম্যাটে সেঞ্চুরি করেননি। তবে ব্যাট হাতে কঠিন সময়ের মুখোমুখি হওয়া এই প্রথম নয়। কোহলির দিল্লি দলের প্রাক্তন সতীর্থ প্রদীপ সাঙ্গওয়ান একটি পুরনো ঘটনা বর্ণনা করেছেন। প্রদীপ সাঙ্গওয়ান জানিয়েছেন কেন বিরাট কোহলি কেঁদে ছিলেন এবং সারা রাত ঘুমাতে পারেননি।

গুজরাট টাইটানস প্লেয়ার প্রদীপ সাঙ্গওয়ান তার দিল্লির সতীর্থ বিরাট কোহলির সম্পর্কে একটি গল্প বলেছেন। এই ঘটনাটি ঘটেছিল যখন কোহলি এবং সাঙ্গওয়ান দিল্লির অনূর্ধ্ব ১৭ দলের ক্রিকেটার ছিলেন। বিরাটের সঙ্গে ঠাট্টা করার পরিকল্পনা করেছিলেন তাদের কোচ। প্রদীপ সাঙ্গওয়ান নিউজ 24-কে বলেন, ‘আমরা পঞ্জাবের অনূর্ধ্ব-১৭ দলের বিরুদ্ধে ম্যাচ খেলছিলাম। শেষ ২-৩ ইনিংসে তিনি (কোহলি) বড় স্কোর করতে পারেননি। তখন আমাদের কোচ ছিলেন অজিত চৌধুরী যিনি বিরাটকে 'চিকু' বলে ডাকতেন।’

প্রদীপ সাঙ্গওয়ান এরপরে বলেন, ‘বিরাট আমাদের দলের প্রধান খেলোয়াড় ছিলেন এবং অজিত স্যার মজা করে পরামর্শ দিয়েছিলেন - আসুন বিরাটকে বলি যে তিনি পরের ম্যাচে খেলবেন না। আমরা সবাই এই অপকর্মে জড়িয়ে পড়ি। টিম মিটিংয়ে বিরাটের নাম ঘোষণা করেননি অজিত স্যার। নিজের রুমে গিয়ে কাঁদতে লাগলো বিরাট। তিনি স্যারকে ডেকে বললেন, আমি ২০০ এবং ২৫০ রান করেছি। সত্যি কথা বলতে, ওই মরশুমে তিনি বড় রান করেছিলেন কিন্তু হ্যাঁ শেষ ২-৩ ইনিংসে তিনি লড়াই করেছিলেন। তিনি এতটাই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিলেন যে তিনি রাজকুমার স্যারকে (বিরাটের ছোটবেলার কোচ) ডাকেন।’

সম্পূর্ণরূপে বিচলিত হয়ে বিরাট কোহলি দিল্লির এই ফাস্ট বোলারের কাছে পৌঁছেছিলেন এবং সাঙ্গওয়ানকে তার ত্রুটিগুলি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেছিলেন। বিরাট জানিয়েছেন, এই কারণে সারা রাত ঘুমাতে পারেননি তিনি। সাঙ্গওয়ান বললেন, ‘তারপরে তিনি আমার কাছে এসে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আমাকে বল, কী হয়েছে? আমি এই মরশুমে এত রান করেছি। আমি তাকে বললাম, ‘হ্যাঁ হ্যাঁ, এটা খুব ভুল!’ সারা রাত ঘুমাতেও পারেননি।’ তিনি বললেন, ‘না, আমি ঘুমাতে চাই না। আমি না খেললে ঘুমিয়ে কি লাভ?’ তারপর, আমি তাকে বললাম সে পরের ম্যাচে খেলবে। এটা একটা মজা ছিল।’ 

বন্ধ করুন