বাংলা নিউজ > ময়দান > দ্রাবিড় কিন্তু বড্ড রাগি, বকাও দেন প্লেয়ারদের, রহস্য ফাঁস করলেন শ্রেয়স
অভিষেক ম্যাচে গাভাস্করের হাত থেকে টুপি নেওয়ার দিনে শ্রেয়স।

দ্রাবিড় কিন্তু বড্ড রাগি, বকাও দেন প্লেয়ারদের, রহস্য ফাঁস করলেন শ্রেয়স

  • নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে কানপুরে নিজের অভিষেক টেস্টে শ্রেয়স সেঞ্চুরি করেছেন। স্বভাবিক ভাবেই খুবই খুশি দ্রাবিড়। তাঁর ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ হয়ে পিঠও চাপড়ে দিয়েছেন। যা শ্রেয়সকে আরও ভালো খেলতে নিঃসন্দেহে উদ্বুদ্ধ করেছে। কিন্তু এই দ্রাবিড়ের কাছেই একবার জোর বকুনি খেতে হয়েছিল শ্রেয়সকে।

রাহুল দ্রাবিড় যে বড় কড়া কোচ, সে কথা কমবেশি সকলেই জানেন। তবে শান্ত স্বভাবের দ্রাবিড় যে প্রয়োজনে প্লেয়ারদের বকুনিও দেন, সে কথা হয়তো অনেকেরই জানা নেই। আর সেই গোপন কথাই ফাঁস করে দিয়েছেন শ্রেয়স আইয়ার।

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে কানপুরে নিজের অভিষেক টেস্টে শ্রেয়স সেঞ্চুরি করেছেন। স্বভাবিক ভাবেই খুবই খুশি দ্রাবিড়। তাঁর ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ হয়ে পিঠও চাপড়ে দিয়েছেন। যা শ্রেয়সকে আরও ভালো খেলতে নিঃসন্দেহে উদ্বুদ্ধ করেছে। কিন্তু এই দ্রাবিড়ের কাছেই একবার জোর বকুনি খেতে হয়েছিল শ্রেয়সকে।

সেই স্মৃতির কথা বলতে গিয়ে শ্রেয়স আবেগপ্রবণও হয়ে পড়েন। আসলে জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার আগে শ্রেয়স যখন ভারতীয় এ দলের হয়ে খেলছেন, সেই সময়ে দলের কোচ ছিলেন রাহুল দ্রাবিড়। শ্রেয়সের পারফরম্যান্সে কিন্তু দ্রাবিড়ের বড় ভূমিকা রয়েছে। এ দলে থাকার সময়ে দ্রাবিড়ের কোচিংয়েই নিজেকে পোক্ত করেছেন শ্রেয়স। এ দলের হয়ে খেলার সময়ে একটি ম্যাচে দিন শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন শ্রেয়স। তাঁর এই ধরনের শট খেলা একেবারেই পছন্দ হয়নি দ্রাবিড়ের। তাই সাজঘরে ফেরার সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে এর জন্য বকুনিও খেতে হয়।

শ্রেয়স বলছিলেন, ‘চার দিনের ম্যাচ ছিল। আমি শেষ ওভারে ব্যাট করছিলাম। সবাই ভেবেছিল সাবধানে খেলে দেব। কিন্তু একটি বলে আমি এগিয়ে গিয়ে ছক্কা মারি। সবাই সাজঘর থেকে বেরিয়ে দেখে ছক্কা হয়েছে কি না। সবাই ভেবেছিল শেষ ওভারে কে এমন শট খেলে।’

শ্রেয়স আরও বলেন, ‘সাজঘরে যাওয়ার পরেই রাহুলভাই এগিয়ে আমাকে বলেন, এটা কী? দিনের শেষ ওভারে কেউ এ রকম শট খেলে? যদিও পরে তিনি বুঝিয়ে বলেন কেন সে সময় ওই শট খেলা উচিত হয়নি আমার।’

বন্ধ করুন