বাংলা নিউজ > ময়দান > LPL 2021: ম্যাচ হওয়ার আগেই হাতির হামলায় প্রাণ হারালেন দুই মাঠ কর্মী
হাতির হামলায় প্রাণ হারালেন দুই মাঠকর্মী 

LPL 2021: ম্যাচ হওয়ার আগেই হাতির হামলায় প্রাণ হারালেন দুই মাঠ কর্মী

  • জানা গিয়েছে, ওই দুজন মাঠকর্মী সারাদিনের কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। তখনই স্টেডিয়ামের কাছে একটি জায়গায় হাতি তাদের উপর হামলা চালায়। দুজন মাঠকর্মীই হাতির হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন। তাঁদের মৃতদেহ পরদিন সকালে স্টেডিয়াম থেকে কিছুটা দূরে পাওয়া যায়। মনে করা হচ্ছে, রাত ৯টা নাগাদ হাতিটি তাঁদের উপর হামলা চালায়।

হাতির হামলায় প্রাণ হারালেন দু'জন মাঠকর্মী। এমন ঘটনা হয়তো বিশ্ব ক্রিকেটে প্রথম। সূত্রের খবর, শ্রীলঙ্কার হামবানতোতায় সূর্যবেয়া স্টেডিয়ামের দুজন মাঠকর্মী হাতির হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন। অনুমান করা হচ্ছে ঘটনাটি ঘটেছে ১৪ ডিসেম্বর রাতে। জানা গিয়েছে, ওই দুজন মাঠকর্মী সারাদিনের কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। তখনই স্টেডিয়ামের কাছে একটি জায়গায় হাতি তাদের উপর হামলা চালায়। দুজন মাঠকর্মীই হাতির হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন। তাঁদের মৃতদেহ পরদিন সকালে স্টেডিয়াম থেকে কিছুটা দূরে পাওয়া যায়। মনে করা হচ্ছে, রাত ৯টা নাগাদ হাতিটি তাঁদের উপর হামলা চালায়। তবে প্রথমে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড দুজন মাঠকর্মীর মৃত্যুর ঘটনা প্রকাশ্যে আনতে চায়নি। তবে শেষ পর্যন্ত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছে ক্রিকেট সংস্থা।

সূর্যবেয়া স্টেডিয়াম (ছবি:টুইটার)
সূর্যবেয়া স্টেডিয়াম (ছবি:টুইটার)

হামবানতোতায় হাতির উপদ্রব বহুদিনের। গত বছর শ্রীলঙ্কায় সব থেকে বেশি সংখ্যক হাতির হামলা হয়েছিল এখানেই। হামবানতোতায় হাতির হামলায় সব থেকে বেশি মানুষ মারা গিয়েছিলেন। গত বছর চারজন মানুষ সেখানে হাতির হামলায় প্রাণ হারিয়েছিলেন। হাতির উপদ্রব নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সরকারের কাছে বারবার আবেদন করেছেন হামবানতোতার কৃষকরা। কিন্তু কোনও লাভ হয়নি। এবার দুজন মাঠকর্মীর মৃত্যুতে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। স্থানিয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, দুজন মাঠকর্মী সাইকেলে চেপে বাড়ি ফিরছিলেন। তখনই হয়তো হাতিটি তাঁদের উপর হামলা চালিয়েছে। সেই সময় আশেপাশে তেমন কেউ ছিল না, তাই কারও সহায়তাও পাননি ওই দুজন মাঠকর্মী। 

কিছুদিন আগেই কলম্বো থেকে হামবানতোতায় শ্রীলঙ্কা প্রিমিয়র লিগের ম্যাচ সরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তাই মাঠ কর্মীরা দিন রাত এক করে মাঠ প্রস্তুত করছেন। এক সপ্তাহ আগেই ম্যাচ করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর থেকেই মাঠের কর্মীদের কাজ বেড়ে গিয়েছে। নক-আউট পর্ব ও ফাইনাল ম্যাচগুলি হবে হামবানতোতায়। ফলে মাঠকর্মীদের ব্যস্ততার শেষ নেই। এমন অবস্থায় মাঠের কাজ শেষ করে বাড়ি ফিরতে রাত হচ্ছে, আর তার মাঝেই এমন ঘটনা। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড ও শ্রীলঙ্কা সরকারকে প্রশ্নের মুখে দাঁড় করিয়েছে।  

বন্ধ করুন