বাংলা নিউজ > ময়দান > MMA-র বাহুবলী আর্জান ভুল্লার নামতে চান ‘WWE’ রিং-এ
MMA-র বাহুবলী আর্জান ভুল্লার (ছবি: গুগল)
MMA-র বাহুবলী আর্জান ভুল্লার (ছবি: গুগল)

MMA-র বাহুবলী আর্জান ভুল্লার নামতে চান ‘WWE’ রিং-এ

  • ভুল্লার জানিয়েছেন, আগে তিনি কুস্তি করতেন, এবার তিনি MMA তে নিজেকে মানিয়ে নিয়েছেন, এবার তাঁর লক্ষ্য হল পেশাদার কুস্তি (WWE)। WWE -তে নাম লেখাতে চান তিনি। তাঁর জন্য অনুশীলন শুরু করে দিয়েছেন তিনি।

দঙ্গলে নতুন ইতিহাস তৈরি করেছেন ভারতীয় বংশদ্ভুত হেভিওয়েট মার্শাল আর্টস প্রতিযোগি আর্জান ভুল্লার। MMA এর দীর্ঘ দিনের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্র্যান্ডন ভেরাকে সিংহাসনচ্যুত করেছিলেন তিনি। প্রথমাবর ওয়ান হেভিওয়েট ওর্লাল্ড টাইটেল জিতেছেন কোনও ভারতীয় বংশদ্ভুত। মিক্সড মার্শাল আর্টসের ইতিহাসে কৃতিত্বের নতুন ধ্বজা উড়িয়ে ছিলেন আর্জান ভুল্লার।

কিন্তু আপনি কি জানেন, এই চ্যাম্পিয়ন ২০১০ দিল্লি কমনওয়েলথে এসে কানাডার হয়ে সোনা জিতে গিয়েছিলেন। তাও আবার কুস্তিতে। সেই বছর কানাডা কমনওয়েলথে ২৬টি সোনা জিতেছিল, যারমধ্যে একটি সোনা জিতেছিলেন ভুল্লার। শুধু কমনওয়েলথ নয়, কুস্তির বহু পদক রয়েছে তাঁর সাফল্যের ঝুলিতে। আর হবে নাই বা কেন, ভুল্লারের রক্তেই যে কুস্তিগীরের রক্ত বাহিত হচ্ছে।

ছোট থেকেই কুস্তি ছাড়া আর কিছুই ভাবেননি আর্জান ভুল্লার। একটি সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে ভু্ল্লার জানিয়েছেন, তাঁর পুরো পরিবার কুস্তির সঙ্গেই যুক্ত। তাঁর বাবা তাঁকে কুস্তির জন্য অনুপ্রেরণা দিতেন। ভুল্লার আরও জানিয়েছেন, বহুবার তিনি দলগত খেলায় যাবেন বলে ঠিক করেছিলেন কিন্তু কখনও সেই খেলা তার ভাল লাগতনা। ফলে তিনি পরে সেই কুস্তির আখড়াতেই চলে আসতেন। 

ভুল্লার জানিয়েছেন, ‘আমি ডায়পার পড়ার সময় থেকেই কুস্তি জানি। আমাদের বাড়িতে কুস্তির আখড়া ছিল। বাড়িতে আমরা ১০জন ছেলে ছিলাম সকলেই কুস্তিগীর ছিলাম, সকেলই কুস্তি জানত। অনেক স্মৃতি রয়েছে এভাবেই আমি আজ এই জায়গায় পৌঁছাতে পেরেছি।’

ভুল্লার আরও জানান, ‘আমার পুরো পরিবার কু্স্তির মধ্যেই ছিল, আমার জন্মের পরে আমি দলগত খেলায় যেতে চেয়েছিলাম, কিন্তু আমায় একক স্পোর্টস টানতে থাকে। আমি আমার অ্যাকশনের দায়িত্ব নিজে নিতে পছন্দ করি। যদি তুমি কঠিন অনুশীন করতে পার তাহলে তুমি উপরের দিকে হাত তুলতে পারবে এবং তুমি অনেক উঁচুতে পৌঁছাতে পারবে।’

ভু্ল্লারের পূর্ব পুরুষরা দীর্ঘদিন ধরেই কানাডাতে বসবাস করেন। ভুল্লারের বাবাও একজন কুস্তিগীর ছিলেন। কুস্তির টানে বারবার ভারতে চলে আসতেন। ভারতের দঙ্গলের দারুন ভক্ত ছিলেন ভু্ল্লারের বাবা। ছেলেকেও কুস্তিগীর করতে চেয়েছিলেন আর্জান ভুল্লারের বাবা অবতার। সেই কারণেই ভুল্লারের কুস্তি বা MMA সবেতেই রয়েছে ভারতীয় কুস্তির ছোঁয়া। MMA -র মঞ্চে গদা নিয়ে প্রবেশ করেন ভুল্লার। তার লড়াইয়ের মধ্যে পঞ্জাবের মাটির গন্ধ লুকিয়ে রয়েছে।

ভুল্লার জানিয়েছেন, আগে তিনি কুস্তি করতেন, এবার তিনি MMA তে নিজেকে মানিয়ে নিয়েছেন, এবার তাঁর লক্ষ্য হল পেশাদার কুস্তি (WWE) -তে নাম লেখানো। তাঁর জন্য অনুশীলন শুরু করে দিয়েছেন তিনি। এখন বয়স মাত্র ৩৫, তাই ভুল্লার মনে করেন এখনও অনেক কিছু করা তার বাকি রয়েছে।

বন্ধ করুন