তরতরিয়ে চলছে পালতোলা নৌকা (ছবি সৌজন্য টুইটার @ILeagueOfficial)
তরতরিয়ে চলছে পালতোলা নৌকা (ছবি সৌজন্য টুইটার @ILeagueOfficial)

পাহাড়েও অব্যাহত মোহনবাগানের বিজয়রথ, নেরোকাকে ৩ গোল বাবাদের

ম্যাচের সেরা হয়েছেন বাবা। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে স্ত্রীকে দলের জয় উৎসর্গ করেন তিনি।

পাহাড়েও অব্যাহত মোহনবাগানের বিজয়রথ। নেরোকাকে এফসিকে তিন গোলে হারাল সবুজ-মেরুন। এই জয়ের আই লিগের টেবিলে শীর্ষে বাগানের অবস্থান আরও দৃঢ় হল।

১৪ দিনে টানা চার ম্যাচ খেলে মণিপুরে খেলতে গিয়েছিল মোহনবাগান। সবকটি ম্যাচেই বাগানের প্রথম একাদশ অপরিবর্তিত ছিল। কম ব্যবধানে এতগুলি ম্যাচ খেললেও জেতা একাদশে কোনও পরিবর্তন করেননি বাগান কোচ কিবু ভিকুনা। তাঁর ভাবনাচিন্তা যে কতটা সঠিক তা ম্যাচের প্রথম মিনিট থেকেই বোঝা যায়।

শুরু থেকেই ম্যাচের দখল নেয় বাগান। নিজেদের দখলে বল বেশি রাখার পাশাপাশি ডান প্রান্ত দিয়ে আক্রমণ করতে থাকেন নাওরেম। দু'মিনিটেই গোলের সুযোগ পেয়েছিল বাগান। ধনচন্দ্র সিংয়ের লম্বা থ্রোতে মাথা ছোঁয়ান বাবা দিয়াওয়ারা। তবে হেডে বিশেষ জোর ছিল না। ফলে তা নেরোকা গোলকিপারকে কোনওরকম অস্বস্তিতে ফেলেনি।

ভিপি সুহের ও আশুতোষ মেহতার দুর্দান্ত বোঝাপড়ার জেরে রীতিমতো চাপ বাড়ছিল নেরোকা ডিফেন্সের উপর। সেই সুফলও মেলে ২৭ মিনিটে। মোহনবাগানকে এগিয়ে দেন নাওরেম। এরপর গোল শোধের সুবর্ণ পেয়েছিল নেরোকা। তবে ফাঁকা গোলে বল ঠেলতে ব্যর্থ হন রালতে। মোহনবাগানও একাধিক গোলের সুযোগ নষ্ট করেন।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সেই ভুল শুধরে নেয় বাগান। ৫৩ মিনিটে নাওরেমের মাপা ক্রস থেকে হেডে গোল করে যান ডার্বির নায়ক বাবা। এরপর নির্ধারিত সময় বাগান গোল না পেলেও অতিরিক্ত সময়ের তৃতীয় মিনিটে গোল করেন কমোরন তুর্সোনভ। ব্রিটোর ডিফেন্স থ্রু-বল নেরোকার জালে জড়িয়ে দেন বাগানের নতুন বিদেশি।

ম্যাচের সেরা হয়েছেন বাবা। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে স্ত্রীকে দলের জয় উৎসর্গ করেন তিনি। এদিকে, পাহাড়-জয়ের ফলে ন'ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে রইল মোহনবাগান।

বন্ধ করুন