জাতীয় দলের দুই তারকা ধোনি ও আরপি। ছবি- টুইটার।
জাতীয় দলের দুই তারকা ধোনি ও আরপি। ছবি- টুইটার।

ধোনি ক্রমশ উপরে উঠতে থাকে, আমি হারিয়ে যাই জাতীয় দল থেকে, আক্ষেপ প্রাক্তন পেসারের

  • ধোনির সঙ্গে অটুট রয়েছে বন্ধুত্ব, জানালেন প্রাক্তন তারকা।

একসঙ্গে খেলে পরিণত হয়েছেন। জাতীয় দলের বাইরেও একে অপরের সঙ্গে অনেক সময় কাটিয়েছেন। পরে ক্যাপ্টেন হওয়ার পর ধোনির পারফর্ম্যান্স গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী হয়, তাঁর গ্রাফ নীচের দিকে নামতে থাকে। তবে দু'জনের বন্ধুত্বে কখনও এতটুকু চিড় ধরেনি। এমনটাই জানালেন টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন বাঁ-হাতি পেসার রুদ্রপ্রতাপ সিং।

আরপির আন্তর্জাতিক কেরিয়ার শুরু হয়েছিল বিস্তর সম্ভাবনা জাগিয়ে। তবে প্রতিভার প্রতি সুবিচার করে টিম ইন্ডিয়ায় নিজের জায়গা দীর্ঘস্থায়ী করতে পারেননি তিনি। যদিও ধোনির নেতৃত্বে ভারতের ২০০৭ টি-২০ বিশ্বকাপ জয়ের শরিক হতে পেরেছিলেন রুদ্রপ্রতাপ।

জাতীয় দলে থাকার সময়েই ধোনির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে আরপি সিংয়ের। সেই বন্ধুত্ব এখনও অটুট রয়েছে। খেলা ছাড়ার পর আপাতত ধারাভাষ্য ও কোচিং নিয়েই ব্যস্ত আরপি। সম্প্রতি বিসিসিআইয়ের ক্রিকেট অ্যাডভাইজরি কমিটির সদস্য নিযুক্ত হয়েছেন তিনি।

এহেন আরপি সিং আকাশ চোপড়ার সঙ্গে আলোচনা প্রসঙ্গে জানান, ধোনির সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্বের কথা। জাতীয় দলে দীর্ঘদিন খেলতে না পারার আক্ষেপও লুকিয়ে রাখেননি তিনি।

রুদ্রপ্রতাপ বলেন, 'আমরা একসঙ্গে সময় কাটাতে অভ্যস্থ ছিলাম। পরে ধোনি ক্যাপ্টেন হয়। ওর গ্রাফ ক্রমশ উপরের দিকে উঠতে থাকে। আমার গ্রাফ নীচের দিকে নামতে থাকে। তবে আমাদের বন্ধুত্ব অটুট রয়েছে। এখনও আমাদের কথা হয় এবং একসঙ্গে ঘুরতেও যাই।'

পরক্ষণেই আরপি বলেন, 'আমি সেরা পারফরম্যান্স করেও টেস্ট অথবা ওয়ান ডে দলে নিজের জায়গা টিকিয়ে রাখতে পারিনি। আমি আইপিএল খেলেছি এবং ৩-৪ মরশুম সর্বোচ্চ উইকেট শিকারিদের তালিকাতেও ছিলাম। তবে নতুন করে জাতীয় দলে নিজেকে প্রমাণ করার সুযোগ পাইনি আর কখনও। হয়ত ক্যাপ্টেনের আমার প্রতি আস্থা ছিল না অথবা আমার পারফর্ম্যান্স সর্বোচ্চ পর্যায়ের ছিল না। নির্বাচকদের জিজ্ঞাসা করলে তাঁরা বলতেন, পরিশ্রম করে যাও, একদিন তোমার সময় আসবে। যদিও সেই সময় আর আসেনি।'

বন্ধ করুন