বাড়ি > ময়দান > বর্ণবিদ্বেষের জোরালো প্রতিবাদ, সেমিফাইনালে উঠে টুর্নামেন্ট থেকে সরে দাঁড়ালেন ওসাকা
নাওমি ওসাকা। ছবি- টুইটার।
নাওমি ওসাকা। ছবি- টুইটার।

বর্ণবিদ্বেষের জোরালো প্রতিবাদ, সেমিফাইনালে উঠে টুর্নামেন্ট থেকে সরে দাঁড়ালেন ওসাকা

  • পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ জেকব ব্লেকের মৃত্যুর প্রতিবাদেই এমন পদক্ষেপ নেন জাপানি টেনিস তারকা।

লকডাউনের জন্য দীর্ঘদিন খেলা থেকে দূরে থাকতে হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের আগে পর্যাপ্ত ম্যাচ প্র্যাকটিসের সুযোগ ছিল নাওমি ওসাকার সামনে। বিশেষ করে কেরিয়ারে আরও একটি ট্রফি জয়ের হাতছানি ছিল ওয়েস্টার্ন অ্যান্ড সাদার্ন ওপেনে। তবে জাপানি টেনিস তারকা বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে নিজেকে সরিয়ে নিলেন গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টের মাঝপথেই।

ইউএস ওপেনের প্রস্তুতি টুর্নামেন্ট হিসেবে বিবেচত হওয়া ওয়েস্টার্ন অ্যান্ড সাদার্ন ওপেনের সেমিফাইনালে ওঠার কয়েক ঘণ্টা পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ওসাকা জানিয়ে দেন, কৃষ্ণাঙ্গদের বিরুদ্ধে বেড়ে চলা অবিচারের প্রতিবাদে তিনি সরে দাঁড়াচ্ছেন টুর্নামেন্ট থেকে।

রবিবার উইসকনসিনে পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ জেকব ব্লেকের মৃত্যুর প্রতিবাদেই এমন পদক্ষেপ নেন দু'বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী ওসাকা। এক্ষেত্রে তিনি ন্যাশনাল বাস্কেটবল অ্যাসোসিয়েশন ও মেজর লিগ বেসবলের অ্যাথলিটদের পথেই প্রতিবাদ জানালেন।

এমন কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর ওসাকা বলেন, ‘একজন অ্যাথলিটের আগে আমি একজন কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা। এবং একজন কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা হওয়ার জন্যই আমি মনে করি আমার খেলা দেখার থেকেও অন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সবার নজর দেওয়া দরকার। আমি কখনই আশা করছি না যে, আমি না খেললে সবকিছু নিমেশে বদলে যাবে। তবে আমার সরে দাঁড়ানোয় যদি শ্বেতাঙ্গ ক্রীড়ামহলে আলোচনা শুরু হয়, তবে মনে করবে, আমার পদক্ষেপ সঠিক ছিল।’

উল্লেখ্য, ওয়েস্টার্ন অ্যান্ড সাদার্ন ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে ওসাকা ৪-৬, ৬-২, ৭-৫ সেটে পরাজিত করেন অ্যানেত কোন্তাভেতকে। সেমিফাইনালে জাপানি তারকার কোর্টে নামার কথা ছিল বেলজিয়ান এলিস মার্টেন্সের বিরুদ্ধে।

বন্ধ করুন