বাংলা নিউজ > ময়দান > হোল্ডিং-মার্শাল-লিলি নন! এই পেস বোলারের স্পেল আজও ভুলতে পারেননি সুনীল গাভাসকর
সুনীল গাভাসকর (ছবি:গেটি ইমেজ)

হোল্ডিং-মার্শাল-লিলি নন! এই পেস বোলারের স্পেল আজও ভুলতে পারেননি সুনীল গাভাসকর

  • যখন সুনীল গাভাসকরকে ‘দ্রুততম বোলার’ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, তখন গাভাসকর থমসনের নাম নেন এবং সিডনিতে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট ম্যাচের একটি মজার গল্প বলেন।

সবচেয়ে বিপজ্জনক বোলার সম্পর্কিত একটি মজার গল্প বললেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার সুনীল গাভাসকর। ক্রিকেটের অন্যতম কিংবদন্তি হিসেবে পরিচিত প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়ক সুনীল গাভাসকর। তিনি নিজের ক্যারিয়ারে অনেক ফাস্ট বোলারের মুখোমুখি হয়েছেন। মাইকেল হোল্ডিং, ম্যালকম মার্শাল, ডেনিস লিলি, জেফ থমসনের মতো অনেকের নাম এই তালিকায় রয়েছে। যখন সুনীল গাভাসকরকে ‘দ্রুততম বোলার’ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, তখন গাভাসকর থমসনের নাম নেন এবং সিডনিতে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট ম্যাচের একটি মজার গল্প বলেন।

১৯৮৩ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ বিজয়ী জানান কীভাবে ভারতের ওপেনার চেতন চৌহানের সঙ্গে ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েছিলেন অজি পেস বোলার থমসন। গাভাসকর জানান এরফলে ভারতের বিরুদ্ধে ‘অসাধারণ দ্রুততম স্পেল’ করেছিলেন অজি পেস বোলার। ‘আমার ওপেনিং পার্টনার চেতন চৌহান টমোর বলে স্ল্যাশ শট খেলেন এবং বল ব্যাটের উপরের প্রান্তে লেগে বাউন্ডারিতে চলে যায় চারে। লোকে ঠাট্টা করছে বুঝতে পেরে চেতন মাথা নেড়ে হাসতে লাগল। কিন্তু তিনি হেসেছিলেন, তিনি টমাসের চোখে চোখ রেখেছিলেন।’

গাভাসকর জানান, ‘থমাস (জেফ থমসন) ভেবেছিলেন তিনি চেতন চৌহানকে নিয়ে হাসছেন। তাই সে কাছে গিয়ে চেতনের হেলমেটে একটা আড়াআড়ি দাগ দেখায় এবং বলেন, আমি তোমাকে ওখানে মারব। তারপর দেখি তুমি হাসতে পারো কিনা।’ গাভাসকর আরও জানান, ‘চেতন তখন থমসনকে বলল 'তুমি যা চাও তাই করো' এবং আমি নন-স্ট্রাইকার প্রান্ত থেকে আসি এবং তাকে বলার চেষ্টা করছি, 'চেতন, ছেড়ে দাও।' আমি তার সাথে মারাঠি ভাষায় কথা বলছি এবং সে আমাকে বলছে, আমি একজন রাজপুত'। আমি পিছিয়ে কোনও পদক্ষেপ নিই না'। এবং তার পরে, সে বাতাসের মতো বল করছিল। চারপাশে সবকিছু উড়ছিল। অবিশ্বাস্য। এটাই ছিল দ্রুততম স্পেলের ওভার যেটা আমি ফেস করেছি।’ থমসনকে অনেকেই খেলার ইতিহাসের অন্যতম দ্রুততম বোলার বলে মনে করেন।

বন্ধ করুন