বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > 'ম্যাচ শেষের পরও' পেনাল্টি কর্নার জার্মানিকে, হকিতে ‘মারাত্মক ভুল’ নিয়ে বিতর্ক
অলিম্পিক্সে ভারত বনাম জার্মানির ব্রোঞ্জ পদক ম্যাচ নিয়ে এরকমই বিতর্ক তৈরি হয়েছে। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
অলিম্পিক্সে ভারত বনাম জার্মানির ব্রোঞ্জ পদক ম্যাচ নিয়ে এরকমই বিতর্ক তৈরি হয়েছে। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)

'ম্যাচ শেষের পরও' পেনাল্টি কর্নার জার্মানিকে, হকিতে ‘মারাত্মক ভুল’ নিয়ে বিতর্ক

  • অলিম্পিক্সে ভারত বনাম জার্মানির ব্রোঞ্জ পদক ম্যাচ নিয়ে এরকমই বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

ছ'সেকেন্ড বাকি থাকতে পেনাল্টি কর্নার পেয়েছিল জার্মানি। কিন্তু তার আগে ১১ সেকেন্ড বন্ধ ছিল ম্যাচের ঘড়ি। সেইসময় দিব্যি চলছিল খেলা। অলিম্পিক্সে ভারত বনাম জার্মানির ব্রোঞ্জ পদক ম্যাচ নিয়ে এরকমই বিতর্ক তৈরি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশনের তরফে এখনও কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

(টোকিও অলিম্পিক্স ২০২০-এর যাবতীয় খবর, আপডেটের জন্য চোখ রাখুন -- এখানে)

বৃহস্পতিবার চতুর্থ কোয়ার্টারের একেবারে শেষ লগ্নে পেনাল্টি কর্নার পায় জার্মানি। ম্যাচ শেষ হতে তখন বাকি ছিল ৬.৪ সেকেন্ড। ৫-৪ অবস্থায় ম্যাচ থাকায় সেই পেনাল্টি কর্নার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। যেনতেন প্রকারে সেই পেনাল্টি কর্নার রুখতে হত ভারতকে। আর ব্রোঞ্জ জয়ের সম্ভাবনা জিইয়ে রাখতে জার্মানিকে গোল করতেই হত। শেষপর্যন্ত সেই পেনাল্টি কর্নার রুখে দেন পি শ্রীজেশ। তার জেরে ৪১ বছরের খরা কাটিয়ে অলিম্পিক্স হকিতে পদক জেতে ভারত।

তারইমধ্যে নেটিজেনদের একাংশের দাবি, সেই পেনাল্টি কর্নার পাওয়ার কথা ছিল না জার্মানির। কিন্তু কেন? তাঁদের ব্যাখ্যা, চতুর্থ কোয়ার্টারের শেষের দিকে (২৮ সেকেন্ড) ১১ সেকেন্ড মতো বন্ধ ছিল ম্যাচের ঘড়ির কাঁটা। তারপর আবার ২৮ সেকেন্ড থেকেই ঘড়ির কাঁটা চলতে শুরু করে। সেই নিরিখে ৬.৮ সেকেন্ডে যখন জার্মানিকে পেনাল্টি কর্নার দেওয়া হয়, তখন আদতে ম্যাচের ৬০ মিনিট শেষ হয়ে গিয়েছে। তাঁদের বক্তব্য, সেই পেনাল্টি কর্নার থেকে যদি জার্মানি গোল করে দিত, তাহলে কী হত? সেখান থেকে তো ম্যাচ হেরেও যেতে পারত ভারত। সেই দায় কি আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন নিত? নেটিজেনদের বক্তব্য, ভারত শেষপর্যন্ত জিতে গেলেও এই ‘মারাত্মক ভুল’ একেবারেই এড়ানো যায় না। সেজন্য আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশনের জবাবদিহি চাওয়া হয়েছে।

বন্ধ করুন